1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ফেসবুক, টুইটারের ব্যবহার বেড়েছে ৮২ শতাংশ!

বিশ্বের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা গত ডিসেম্বরে সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইটগুলোতে গড়ে অবস্থান করেছে সাড়ে পাঁচঘন্টা৷ অথচ ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে সময়ের এই গড় ছিল মাত্র সাড়ে তিন ঘন্টা৷ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নিলসন জানিয়েছে এই তথ্য৷

default

ফাইল ফটো

নিলসন জানায়, ইন্টারনেটের তাবত ওয়েবসাইট আর অ্যাপ্লিকেশনের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে সামাজিক নেটওয়ার্কিং আর ব্লগিং সাইটগুলো৷ আর এরপরই অবস্থান অনলাইন গেম খেলার সাইটগুলো আর মেসেঞ্জারের৷ সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইটগুলোর মধ্যে আবার সবচেয়ে জনপ্রিয় ফেসবুক৷ গত ডিসেম্বরে শুধু ফেসবুকে ঢুকেছে বিশ্বের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৬৭ শতাংশ৷

দেশের দিক থেকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইটের চর্চা সবচেয়ে বেশি, জানাচ্ছে নিলসন৷ তাদের দাবি, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ডিসেম্বরে সামাজিক নেটওয়ার্ক সাইটগুলোতে প্রবেশ করেছে ১৪২.১ মিলিয়ন একক ব্যবহারকারী৷ ব্যবহারকারী বিচারে ৫৭.৫ মিলিয়ন একক ব্যবহারকারী নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে জাপান, ৩১.৩ মিলিয়ন নিয়ে তৃতীয় ব্রাজিল৷

তবে ঠিক কতক্ষন সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইটে থাকছে ব্যবহারকারীরা? এই প্রশ্নের উত্তরে সবার উপরে অস্ট্রেলিয়া৷ সেখানকার ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা গড়ে সাত ঘন্টা করে কাটাচ্ছেন ফেসবুক, টুইটারের মতো সাইটগুলোতে৷ অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন এবং ইটালির ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে সময়ের এই পরিমান গড়ে ৬ ঘন্টা৷

অনেকেই বলেন, ফেসবুক হচ্ছে ইন্টারনেটে সময় অপচয়ের আদর্শ জায়গা৷ বিষয়টি খানিকটা ব্যাঙ্গাত্মক হলেও বাস্তবতা বলছে ভিন্ন কথা৷ বিশেষত, ফেসবুক খুলে ঘন্টার পর ঘন্টা কম্পিউটারের সামনে বসে থাকার পরিমাণ নাকি দিনকে দিন বাড়ছে৷ এই প্রবণতায় সবার সামনে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ সেখানকার ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ফেসবুকে ঢুকে বসে থাকার পরিমাণ এক বছরে বেড়েছে ২০০ শতাংশ৷

তবে হ্যাঁ, এমন লোভনীয় মার্কেট গড়তে ফেসবুকের লেগেছে কিন্তু ৬ বছর৷ তাদের চেয়েও এগিয়ে টুইটার৷ মাত্র, এক বছরে যুক্তরাষ্ট্রে টুইটারের ব্যবহার বেড়েছে ৫৭৯ শতাংশ! এমন রেকর্ড আর কারও ভাগ্যে জোটেনি৷

প্রতিবেদক: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়