ফেসবুকে রেকর্ড গড়ছেন গোলাম মাওলা রনি | বিশ্ব | DW | 25.07.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ফেসবুকে রেকর্ড গড়ছেন গোলাম মাওলা রনি

বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনি৷ সাংবাদিক পেটানোর অভিযোগে বুধবার গ্রেপ্তার হয়েছেন তিনি৷ নিজ দলের সমালোচনা করে আলোচিত এই সাংসদ ফেসবুকে অত্যন্ত সক্রিয়৷

সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেসবুকে আর কোনো বাংলাদেশি সাংসদ সম্ভবত এতটা সক্রিয় নন৷ গোলাম মাওলা রনি এক্ষেত্রে অনন্য৷ পশ্চিমা বিশ্বের বিভিন্ন সংসদ সদস্যের মতো তিনিও সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেসবুককে নিজের আনুষ্ঠানিক প্রচার মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছেন৷ তাঁর ফেসবুক স্ট্যাটাসগুলো তাই গণমাধ্যমে প্রকাশ হচ্ছে বক্তব্য হিসেবে৷

বুধবার (২৪.০৭.১৩) গ্রেপ্তারের অল্প কিছু সময় আগে ফেসবুক পোস্টে রনি তাঁর বক্তব্য দিয়ে গেছেন৷ প্রায় সকল গণমাধ্যম এই বক্তব্য প্রকাশ করেছে৷ বাংলাদেশের সংসদ সদস্যদের ক্ষেত্রে এই ধারাটি নতুন৷ বুধবার ফেসবুকে রনির পোস্ট করা সর্বশেষ স্ট্যাটাসটি প্রথম চব্বিশ ঘণ্টায় শেয়ার হয়েছে ১,২০৪ বার, মন্তব্য জমা পড়েছে ১,৩৮১টি আর লাইকের সংখ্যা ৪,৩৭৫৷ একজন সংসদ সদস্যদের ফেসবুক পোস্ট নিয়ে এত আলোচনা একটি রেকর্ডও বটে৷

এর আগে মঙ্গলবার রনির আরেকটি ফেসবুক স্ট্যাটাস গোটা বাংলাদেশে সাড়া ফেলে৷ সেখানে তিনি নিজের পদত্যাগের সম্ভাবনার কথা জানিয়েছিলেন৷ গণমাধ্যম রনির এই স্ট্যাটাসের ভিত্তিতে সংবাদ প্রচার করেছে৷ ফেসবুকে প্রকাশিত হিসেব অনুযায়ী, রনির এই স্ট্যাটাসটি শেয়ার হয়েছে ২০৬ বার৷ এতে মন্তব্য করা হয়েছে ৯৯৩ বার আর লাইক ২,৪০৭৷

এদিকে, রনিকে গ্রেপ্তার নিয়ে আলোচনা অব্যাহত রয়েছে৷ আমারব্লগ ডটকমে ব্লগার হাসিব হায়াত লিখেছেন, ‘‘প্রকৃত অর্থে, এই ভদ্রলোকের স্বপ্ন ছিল একটাই, তাহলো দুর্নীতিমুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশ গড়ার৷'' একই ব্লগসাইটে লিপি হালদারের পোস্টের শিরোনাম, ‘‘গোলাম মওলা রনির আটকাদেশ ও প্রাসঙ্গিক কিছু কথা৷'' বিতর্কিত এমপি-কে গ্রেপ্তারের সিদ্ধান্তের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এই ব্লগার৷

ডয়চে ভেলের দ্য বব্স অ্যাওয়ার্ডজয়ী ব্লগার আরিফ জেবতিক এই বিষয়ে একটি বিস্তারিত নিবন্ধ প্রকাশ করেছেন৷ রনির বিভিন্ন বিতর্কিত দিক নিয়ে লেখার পাশাপাশি বর্তমানে বিভিন্ন অভিযোগে আটক করা উচিত কয়েকজনের একটি তালিকা প্রকাশ করেছেন এই ব্লগার৷ জেবতিকের লেখার শিরোনাম, ‘‘একহালি গ্রেফতার, যা সরকারের করা উচিত৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন