1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ফেসবুকাররা সাবধান, নজর রাখছেন বাবা-মা

বিশ্ববিদ্যালয়গামী তরুণ-তরুণী ফেসবুকাররা সাবধান৷ ফেসবুকে নজর রাখছেন বাবা-মা, অভিভাবকরা৷ সন্তান কোথায় যায়, কার সঙ্গে মেশে, কার সঙ্গে ছবি তোলে কিংবা কী খাচ্ছে, সব জানার এক অনন্য মাধ্যম হয়ে উঠেছে ফেসবুক৷

default

সামাজিক নেটওয়ার্ক নিয়ে আলোচনার শেষ নেই

সাম্প্রতিক এক জরিপ জানাচ্ছে, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া তরুণ-তরুণীদের ৭৫ শতাংশের অভিভাবকই ফেসবুক ব্যবহার করেন সন্তানের খোঁজখবর রাখতে৷ তবে অনেক তরুণই বাবা-মাকে ফেসবুকে বন্ধু হিসেবে নিতে চায়না৷ কেননা, নিজেদের ব্যক্তিগত ছবি কিংবা বিশেষ বন্ধুর খবর অভিভাবকদের জানাতে অনীহা তাদের৷ দুই-তৃতীয়াংশ তরুণের মত এমনটাই৷

ইউরোপসহ উন্নত বিশ্বে একটি নির্দিষ্ট বয়সের পর সন্তান চাইলে বাবা-মাকে ছেড়ে অন্যত্র বাস করতে পারে৷ এই সুযোগ নিয়ে গৃহত্যাগীদের অধিকাংশের বয়স ১৮ থেকে ২৫ বছর৷ এই জরিপ চালনায় সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান এন্সলিশ জানাচ্ছে, ঘরছাড়াদের ৭২ শতাংশই অভিভাবকের সঙ্গে যোগাযোগে ইন্টারনেটের সহায়তা নেয়৷ তবে এসব তরুণরা একইসঙ্গে আরো কয়েক উপায়ে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে৷

Flash-Galerie Oktoberfest 2009

পার্টির এমন ছবি পরিবারকে দেখাতে চায়না অনেক তরুণী (ফাইল ফটো)

সেক্ষেত্রে মোবাইল ব্যবহারের হার ৭০ শতাংশ, মানে ইন্টারনেটের চেয়ে কম! তারও কম, মানে মাত্র সাত শতাংশ তরুণের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম সনাতনী চিঠিপত্র৷

তবে, বিপদের কথাও শোনাচ্ছে এই জরিপ৷ বর্তমানের ফেসবুক-টুইটার ক্রেজ নাকি তরুণ-তরুণীদেরকে আগের চেয়ে গৃহকাতর করে তুলছে৷ ২৫ বছরের কম বয়সী ৬২ শতাংশের দাবি, বাবা-মায়ের সঙ্গ ছাড়ার পরও সেখানকার স্মৃতি ভুলে থাকা বড় কষ্টকর৷ তবে, বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গৃহকাতরতাও কেটে যায় অনেকটা৷

অবশ্য ফেসবুকে সন্তানের খোঁজখবর রাখার বিষয়টিকে ঠিক পছন্দ করছেন না সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ ক্রিষ্টিনা ভেবার৷ এই জরিপ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ইদানিং বাবা-মায়েরা গৃহত্যাগী সন্তানদের নিয়ে বেশি চিন্তা করেননা৷ কারণ, তাদের খোঁজ নেয়ার নানা উপায় রয়েছে৷ তবে, ইন্টারনেটের সন্তানদের গোপনীয়তা নিয়ে ঘাঁটাঘাটি খুব একটা না করাই ভালো৷

উল্লেখ্য, যুক্তরাজ্যে এক হাজার শিক্ষার্থী এবং এক হাজার বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া সন্তানের অভিভাবকের মধ্যে চালানো হয়েছে এই জরিপ৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: সাগর সরওয়ার

সংশ্লিষ্ট বিষয়