1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ফুটবল ভক্তদের জন্য ইংরেজি শিখছেন পতিতারা

‘শুভ সকাল, মেয়েরা!’ এই সম্ভাষণ দিয়ে ক্লাস শুরু করেন ইগর ফুখস৷ ব্রাজিলের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের বেলো হরিজন্তে শহরে মেয়েদের ইংরেজি শেখান তিনি৷

ফুখস-এর শিক্ষার্থীরা সকলেই পতিতা৷ তাঁরা ইংরেজি শিখছেন বিদেশি খদ্দেরদের সন্তুষ্ট করতে৷ সাধারণ কথোপকথনের বাইরে যৌনতার সঙ্গে সম্পর্কিত বিশেষ ইংরেজি শব্দগুলো শিখতে আগ্রহী এই মেয়েরা৷ শিক্ষকও সেভাবেই তাদেরকে ইংরেজি পড়ান৷

ব্রাজিলে পতিতাদের মধ্যে ইংরেজি শেখার হিড়িক পড়ার কারণ আসন্ন কনফেডারেশন কাপ এবং বিশ্বকাপ৷ আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হবে কনফেডারেশন কাপ৷ বেলো হরিজন্তে শহরে রয়েছে তিনটি ম্যাচ৷ ধারণা করা হচ্ছে, জুন মাসে এসব খেলা দেখতে শহরে থাকবেন ৪০ হাজারের মতো বিদেশি পর্যটক৷ তাদের আগমনের সঙ্গে যৌন ব্যবসাও জমে উঠবে৷

Menschenhandel Prostitution Europa

খদ্দেরের খোঁজ চলছে

তবে শহরের সব পতিতা যে ইংরেজি শেখায় আগ্রহী, তেমনও নয়৷ অনেকের মধ্যেই ক্লাস ফাঁকি দেওয়ার প্রবণতা প্রকট৷ আর যাঁদের বয়স একটু বেশি তাঁরা আবার ক্লাসে আসেন নিয়মিত৷ এঁদেরই একজন মারিয়া আপারেসিডা৷ ৫৫ বছর বয়সি এই নারী জানালেন, ‘‘আমি সবসময়ই ইংরেজি শিখতে চেয়েছি৷ পতিতা পেশায় থেকে আমি সন্তানদের বড় করেছি৷''

বেলো হরিজন্তের পতিতাদের অ্যাসোসিয়েশন গত মার্চ মাসে এই ইংরেজি ভাষা শিক্ষার কার্যক্রম শুরু করেছে৷ এখন পর্যন্ত ৩০০ জন পতিতা ইংরেজি ক্লাসে নাম লিখিয়েছেন৷

পতিতাদের অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান সিডা ভিয়েরা বলেন, ‘‘পর্যটকরা দল বেধে এখানে আসেন এবং তাঁরা পয়সা খরচ করতে চান৷'' ভিয়েরার বয়স ২৬ বছর৷ প্রতিদিন গড়ে ২০ জন খদ্দেরের দেখা পান তিনি এবং ১৫ মিনিটের একেকটি সেশনের জন্য ১০ থেকে ২৫ মার্কিন ডলার নেন৷

ইংরেজি শেখার গুরুত্ব সম্পর্কে ভিয়েরা বলেন, ‘‘আমারা রাস্তাঘাটে, ডিস্কোতে নিয়মিত বিদেশিদের মুখোমুখি হই৷ অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে আমরা চাই যে মেয়েরা আরো প্রশিক্ষণ নিক, যাতে তারা বিদেশিদের ভালো সেবা দিতে পারে৷''

উল্লেখ্য, ব্রাজিলে আগামী বছর বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে৷ সে সময় বেলো হরিজন্তেতে হাজির হবেন দেড় লাখের মতো পর্যটক৷ এরপর আবার ২০১৬ সালে অলিম্পিক আয়োজন করা হবে সেদেশে৷ ফলে বিদেশি খদ্দেরদের মন জয় করতে ইংরেজি শেখাকেই এখন বড় কাজ মনে করছেন ব্রাজিলের পতিতারা৷ আর সে লক্ষ্যেই চলছে কাজ৷

এআই/ডিজি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন