1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ফুটবলে টাকা বড়, না ট্রেনিং বড়?

সপ্তাহান্তে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড গোলশূন্য ড্র করল বার্নলের বিরুদ্ধে তাদের ১০ কোটি ডলার মূল্যে কেনা দি মারিয়া মাঠে থাকা সত্ত্বেও৷ ওদিকে বার্সা ভিয়ারেয়ালকে এক গোলে হারাল তাদের লা মাসিয়া অ্যাকাডেমির কল্যাণে৷

default

বার্সা ভিয়ারেয়ালকে এক গোলে হারাল তাদের লা মাসিয়া অ্যাকাডেমির কল্যাণে

আলোচনাটা তত্ত্বগত মনে হতে পারে, কিন্তু আসলে বোধহয় তা নয়৷ শনিবার বার্নলের বিরুদ্ধে খেলাটা ছিল আনখেল দি মারিয়ার ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড-এর হয়ে প্রথমবার মাঠে নামা৷ ৭০ মিনিট মাঠে ছিলেন ব্রিটিশ ফুটবলে রেকর্ড ট্রান্সফার ফি-র এই খেলোয়াড়টি৷ কিন্তু খেলার ফল দাঁড়ায় ০-০৷

ধনি-দরিদ্রের ব্যবধান ফুটবলে, বিশেষ করে ফুটবল ক্লাবগুলোর মধ্যে, আরো বিশেষ করে প্রিমিয়ার লিগের ক্লাবগুলোর মধ্যে যে'রকম, সে'রকম বোধহয় আর কোথাও নয়৷ যেমন ম্যানইউ চলতি মরশুমে প্লেয়ার কেনায় এ যাবৎ ব্যয় করেছে ১৩ কোটি ২০ লক্ষ পাউন্ড৷ সে তুলনায় বার্নলের খরচ হলো ৪০ লাখ পাউন্ড৷ বলতে কি, বার্নলে তাদের ১৩২ বছরের ইতিহাসে প্লেয়ার কেনায় যা খরচা করেছে, দি মারিয়াকে কিনতে ম্যানইউ-এর খরচ পড়েছে তার বেশি

Munir El Haddadi FC Barcelona Fußball Spieler

মুনির এল হাদ্দাদি

ডেভিড আর গোলিয়াথ

ইউনাইটেড-এর ওল্ড স্ট্র্যাফোর্ড স্টেডিয়াম থেকে বার্নলের টার্ফ মুর স্টেডিয়ামের দূরত্ব হল ঠিক ৩৫ মাইল৷ নয়তো দু'টি ক্লাবের মধ্যে আকাশ-পাতাল তফাৎ৷ ম্যানইউ হলো বিশ্বায়িত প্রিমিয়ার লিগের মাল্টিন্যাশনাল ব্র্যান্ড, পৃথিবার কোণায় কোণায় তাদের অফিস রয়েছে, ফ্যানেরা আছেন৷ সে তুলনায় বার্নলে হলো ৮৭ হাজার বাসিন্দার একটি ছোট্ট শহর, এককালে যেখানে নানা কাপড়ের কল ছিল৷ বার্নলের টার্ফ মুর স্টেডিয়ামে এখনও সব কাঠের সিট৷

তা বলে বার্নলের অতীত গরিমা ভুললে চলবে না৷ ফুটবল লিগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিল এই বার্নলে৷ শুধু তাই নয়, বার্নলে হলো ক্ষুদ্রতম শহর, যারা লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে – ১৯৬০ সালে৷ সবচেয়ে বড় কথা, বার্নলে আজও ঠিক তাই রয়ে গেছে, ইংল্যন্ডের অধিকাংশ ফুটবল ক্লাব এককালে যা ছিল: স্থানীয় ফুটবলমোদী ব্যবসায়ীদের মালিকানার একটি স্থানীয় ক্লাব, যাদের ম্যানেজার একজন ইংলিশম্যান এবং খেলোয়াড়রা সবাই হান্ড্রেড পার্সেন্ট ব্রিটিশ!

আরে ছ্যা ছ্যা

ইস্ট ল্যাঙ্কাশায়ারে গিয়ে ম্যানইউ-এর নতুন সাত নম্বরকে বার্নলের সাপোর্টারদের কাছ থেকে শুধু আওয়াজই নয়, এ-ও শুনতে হয়েছে: আরে ছ্যা ছ্যা, এত একেবারে পয়সা নষ্ট৷ ডেভিড বেকহ্যাম কিংবা ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোর মতো ইউনাইটেড-এর হয়ে সাত নম্বর জার্সি পরে দি মারিয়া নিশ্চয় ভেবেছেন: একেই বলে রিয়্যালিটি চেক৷ বার্নলের অবশ্য তা-তে আপত্তি নেই, কেননা শনিবারের ড্র'টা ছিল ফার্স্ট ডিভিশনে ফেরার পর তাদের প্রথম পয়েন্ট৷

কে হে ছোকরা?

এবার যদি আমরা নজর দিই ঠিক তার পরদিন, অর্থাৎ রবিবার ভিয়ারেয়াল-এর বিরুদ্ধে বার্সেলোনার খেলার দিকে, তাহলে দেখব বার্সা ১-০ গোলে জিতেছে তাদের আদি ও অকৃত্রিম মেসি ম্যাজিকের দরুণ নয়, বরং এক ১৯ বছর বয়সি ‘ছোকরা'-র কল্যাণে, যে বার্সার লা মাসিয়া প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের স্নাতক: সান্দ্রো রামিরেজ৷ রামিরেজ গোলটা করেন খোদ লিওনেল মেসির সেন্টার থেকে৷ ওদিকে লা লিগায় বার্সার এবারকার অভিযানের সূচনায় বার্সা যখন এলচে-কে ৩-০ গোলে হারায়, তখন আর এক ১৯ বছর বয়সি লা মাসিয়া স্নাতক রামিরেজ-এর মতোই প্রথমবার নেমে গোল করেছিল: তার নাম হলো মুনির এল হাদ্দাদি

মনে রাখতে হবে, লা মাসিয়ার হয়ে ১৮ বছরের কম বয়সি প্লেয়ারদের কেনাবেচা নিয়েই বার্সা গোলযোগে পড়েছে এবং দু'টি ‘ট্রান্সফার উইন্ডো'-র জন্য তাদের সাসপেন্ড করা হয়েছে৷ এই সংকটে দেখা যাচ্ছে লা মাসিয়া-ই তাদের মুশকিল আসান৷

তাই বলছিলাম: প্লেয়ার কেনা নয়, প্লেয়ার গড়াটাই বড় কথা৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন