1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জাপান

ফুকুশিমার ছ'বছর পর...

জাপান সরকার এখনও স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরার চেষ্টা করছেন৷ কিন্তু নারী ও শিশুদের জন্য সংকট এখনও শেষ হয়নি, বলছে গ্রিনপিস৷ মায়েরা হাজারে হাজারে কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন৷

ছ'বছর আগের কথা: ভূমিকম্প, সুনামি ও ফুকুশিমার দাইচি আণবিক চুল্লিতে পারমাণবিক বিপর্যয়ের ফলে প্রায় ২০ হাজার মানুষ প্রাণ হারান এবং ১ লাখ ৬০ হাজার বেশি মানুষ গৃহহারা হন৷ ৮০ হাজারের বেশি মানুষ এখনও অস্থায়ী আবাসনে দিন কাটাচ্ছেন৷

সংশ্লিষ্ট বসতিগুলির সব মানুষ ফুকুশিমা বিপর্যয়ের ফলে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হন, কিন্তু আজ পর্যন্ত নারী ও শিশুরাই ফুকুশিমা থেকে সৃষ্ট ‘‘মানবাধিকার ভঙ্গের ঘটনার শিকার হয়েছে'', বলে গ্রিনপিস সংগঠনের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে৷ এক্ষেত্রে বিশেষ করে ‘‘ফুকুশিমার সর্বাধিক (পারমাণবিক দূষণে) দূষিত এলাকাগুলিতে বাসিন্দাদের পুনর্বাসনের'' সরকারি পরিকল্পনার কথা বলে গ্রিনপিস৷

যত তাড়াতাড়ি সম্ভব স্বাভাবিক অবস্থায় প্রত্যাবর্তনের প্রচেষ্টায় জাপান সরকার মার্চ মাসের শেষে স্থানান্তরণের নির্দেশ তুলে নেওয়ার ও বাসিন্দাদের ফুকুশিমা আণবিক চুল্লির কাছাকাছি বসতিগুলিতে ফেরৎ যাবার অনুমতি দেওয়ার কথা ভাবছেন৷ তবে ঐ সব এলাকায় তেজস্ক্রিয়তা বিকিরণের পরিমাণ এখনও বিপজ্জনকভাবে উচ্চ, বলে গ্রিনপিস সাবধান করে দিয়েছে এবং সরকারের প্রতি বাসিন্দাদের উপর চাপ সৃষ্টি না করার আহ্বান জানিয়েছে৷ এলাকাগুলি নিরাপদ ঘোষণা করার এক বছর পরে সরকার আর্থিক সাহায্য এবং স্থানান্তরিত ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া বন্ধ করবেন৷

এছাড়া যারা সরকারের নির্দেশ না থাকা সত্ত্বেও স্বেচ্ছায় তাদের বসবাসের এলাকা ত্যাগ করেছেন, তাদের বাড়িভাড়ার জন্য আর্থিক ভরতুকি এই মার্চ মাসেই বন্ধ করে দেওয়া হবে – এর ফলে নাকি দশ হাজারের বেশি মানুষকে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে দূষিত এলাকায় ফিরতে হতে পারে, বলেছেন গ্রিনপিস জাপানের এক মুখপাত্র৷ এ ধরনের ‘‘অর্থনৈতিক দমননীতি''-কে ‘‘আইন তথা নিপীড়িতদের মানবাধিকারের পরিকল্পিত লঙ্ঘন'' বলে অভিহিত করেছেন তিনি৷

যারা তাদের সাবেক আবাসে ফিরে অস্বীকার করবেন, অথচ যারা সরকারি সাহায্যের উপর নির্ভরশীল – বিশেষ করে একা সন্তান প্রতিপালনকারী মায়েরা – তাদের উভয়সংকট, কেননা তাদের মধ্যে অনেকেই ফুকুশিমার কারণেই বিয়ে ভেঙেছেন – স্বামী দূষিত এলাকায় থেকে যেতে চেয়েছেন বলে৷ জাপানি ভাষায় এর নাম ‘গেনপাৎসু রিকন' বা আণবিক বিবাহবিচ্ছেদ৷

সরকার যে সব এলাকা দূষণ মুক্ত করেছেন, তা প্রায়শই রাস্তা বা বাড়ি ও কৃষিক্ষেত্রের চারপাশে ২০ মিটার চওড়া এক ফালি জমি ছাড়া আর কিছু নয়৷ গ্রিনপিস এ ধরনের আবাসিক এলাকার নাম দিয়েছে ‘মুক্ত কারাগার', যার ফলে শিশুদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যেরও হানি ঘটতে পারে৷

তবে মায়েরা কিছু দম যাননি, তারা সকলে মিলে জাপানি সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন, যাতে সরকার আবাসিক ভরতুকি ও ন্যায্য ক্ষতিপূরণ চালু রাখতে বাধ্য হন৷

কাটারিনা ওয়েকার/এসি

প্রতিবেদনটি কেমন লাগলো? আপনার মতামত জানান, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন