1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ফিলিপাইন্সে হাইয়ানে নিহত কমপক্ষে ১০ হাজার

ফিলিপাইন্সে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় হাইয়ানের আঘাতে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ৷ উপকূলীয় এলাকার অনেক গ্রাম তলিয়ে গেছে৷ লন্ডভন্ড হয়ে গেছে টাকলোবান এলাকা৷

default

টাকলোবানে ভেঙে পড়া একটি বাড়ি

শুক্রবার ভোরে ফিলিপাইন্সের লেটে প্রদেশের রাজধানী টাকলোবানে ঘণ্টায় ৩১৩ কিলোমিটার বেগে আঘাত হানে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় হাইয়ান৷ পুলিশ কর্মকর্তা এলমার সোরিয়া রয়টার্সকে জানান, দুর্বল হয়ে ভিয়েতনাম যাওয়ার আগে ঝড়টি ঐ এলাকার ৭০ থেকে ৮০ ভাগ ভবন বিধ্বস্ত করেছে৷

ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ ভয়াবহ

তবে সরকার এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থাগুলো মৃতের সংখ্যা এখনো নিশ্চিত করেনি৷ কেননা শনিবার তারা বলেছিল নিহতের সংখ্যা ১,২০০৷ তবে সোরিয়া জানান, শনিবার রাতে স্থানীয় গর্ভনর ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করে তাঁরা জানতে পেরেছেন ঝড়ে ১০ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছে৷ আর ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণটা ভয়াবহ বলে জানান তিনি৷

এদিকে, সামার প্রদেশে এখনো অন্তত ২ হাজার মানুষ নিখোঁজ বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা৷ সেখানে মৃতের সংখ্যা প্রায় ৩০০ বলে জানিয়েছেন স্থানীয় এক সরকারি কর্মকর্তা৷

টাকলোবানের এক স্কুল শিক্ষক বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন যে, শহরটি পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়েছে৷ বেশিরভাগ মানুষ তাদের পরিবার ও ঘর-বাড়ি হারিয়ে মানসিক ভারসাম্য খুইয়েছেন, বলে জানান তিনি৷

Taifun Haiyan Philippinen

‘বেশিরভাগ মানুষ পরিবার ও ঘর-বাড়ি হারিয়ে মানসিক ভারসাম্য খুইয়েছেন’

জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র জানিয়েছে, ঝড়ে ৩৬টি প্রদেশের গৃহহীণ হয়েছে অন্তত ৪ লাখ ৮০ হাজার মানুষ আর ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা ৪৫ লাখ৷ তবে উপকূলবর্তী এলাকাগুলো এতটাই লন্ডভন্ড হয়েছে যে, উদ্ধারকারীরা এখনও উদ্ধার তৎপরতা চালাতে ব্যর্থ হচ্ছেন৷ তাই প্রকৃত নিহতের সংখ্যা কত তা নিশ্চিত হওয়ার উপায় নেই৷ স্বজনদের খোঁজে এবং খাদ্যের জন্য ঘুরে ফিরছেন শত শত মানুষ৷ লেটের একজন মেডিকেল শিক্ষার্থী জানালেন, মানুষ খাদ্যের জন্য পাগলের মতো হেঁটে বেড়াচ্ছেন৷

টাকলোবানের অধিবাসীরা জানালেন, রাস্তায় রাস্তায় মানুষের মৃতদেহ ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে৷ চারিদিকে শুধু ধ্বংসের চিহ্ন৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ম্যানুয়েল রোক্সাস হেলিকপ্টারে করে টাকলোবানের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে সাংবাদিকদের বলেন, একটি ভবনেরও কাঠামো নেই৷ সৈকতে যতদূরে চোখ যায় কেবল ধ্বংসের চিহ্ন, যেন কোনো সুনামি আঘাত হেনেছে৷ তিনি জানান, যা দেখেছেন, সেটা তার পক্ষে বর্ণনা করা সম্ভব নয়৷

লেটে, সেবু আর সামার-সহ আটটি প্রধান দ্বীপ ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়েছে৷ কোনো কোনো হোটেলের দ্বিতীয় তলায় পানি উঠে গেছে৷ সেসব হোটেলে আটকা পড়েছেন অনেক পর্যটক৷ টাকলোবানের বিমানবন্দরে সাগরের পানি ঢুকে পড়ায় বন্ধ রয়েছে বিমানবন্দর৷ সেখানে পানির উচ্চতা ১৩ ফুটে পৌঁছেছে৷

ভিডিও দেখুন 01:56

দাতা দেশগুলোর প্রতিশ্রুতি

আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থাগুলো এরই মধ্যে ফিলিপাইন্স সরকারের ডাকে সাড়া দিয়েছে৷ জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি়-মুন সব ধরনের মানবিক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন৷ মার্কিন দূতাবাস জানিয়েছে, তারা ১ লাখ মার্কিন ডলার আর্থিক সহায়তা দেবে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্রাণকাজে সহায়তা হিসেবে ৩০ লাখ ইউরো দেয়ার কথা বলেছে৷ অস্ট্রেলিয়াও ৩ লাখ ৫৯ হাজার মার্কিন ডলার দিতে চেয়েছে৷ এদিকে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম বা বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি প্রতিদিন ১ লাখ ২০ হাজার মানুষের খাদ্য সংস্থানের ব্যবস্থা করছে বলে জানিয়েছে৷

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি

এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যে টাকলোবানের দোকানপাটে চলছে লুটপাট৷ এমনকি এটিএম মেশিন ভেঙে লুটপাট চালানো হয়েছে৷ ফিলিপাইন্স রেডক্রস-এর চেয়ারম্যান রিচার্ড গর্ডন জানালেন, খাবার, পানি ও তাবু বহনকারী ট্রাকগুলোতেও হামলা চালানো হয়েছে৷ প্রেসিডেন্ট বেনিগনো অ্যাকুইনো জানিয়েছেন, পরিস্থিতি সামাল দিতে তাঁর সরকার ৩০০ সেনা এবং পুলিশ মোতায়েন করেছে৷

জাতিসংঘের ত্রাণ সহযোগিতা বিভাগ জানিয়েছে, ঝড়ের যেসব ছবি তারা দেখেছেন, তাতে দেখা গেছে বড় বড় জাহাজ কূলে আছড়ে পড়েছে, বিধ্বস্ত হয়েছে শত শত ঘর বাড়ি, কৃষিজমি পানিতে তলিয়ে গেছে৷ মিন্দোরো প্রদেশের বাকো শহরের ৮০ ভাগ পানির নীচে তলিয়ে গেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ৷

Taifun Haiyan Philippinen

শুরু হয়েছে ত্রাণ তৎপরতা

চীন ও ভিয়েতনামে সতর্কতা

চীন সমুদ্রে একটি কার্গো নৌকা ডুবে ছয় আরোহী নিখোঁজ হওয়ার পর ঘূর্ণিঝড় হাইয়ানের কারণে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে চীনা সরকার৷ ঝড়ের প্রভাবে হাইনান প্রদেশে প্রবল বর্ষণ শুরু হয়েছে৷ বাতিল করা হয়েছে সেখানকার সব ফ্লাইট৷ একটি পর্যটন কেন্দ্র থেকে ১৩ হাজার মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে৷ এদিকে, ভিয়েতনামেও ঝড়ের প্রভাবে প্রবল বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে, তলিয়ে গেছে রাস্তা-ঘাট৷ সরকারি ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ১১টি প্রদেশ থেকে ৮ লাখ ৮৩ হাজার মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে৷ সোমবার ভোরে সেখানে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড়টি৷

১৯৭৬ সালে ফিলিপাইন্সে ভূমিকম্প ও সুনামির আঘাতে ৫ থেকে ৮ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছিল৷ এবারের ঘূর্ণিঝড় সেই ভয়াবহতাকে ছাড়িয়ে গেল৷

এপিবি/জেডএইচ (এপি/এএফপি/রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন