1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ফিলিপাইন্সে মৃতের সংখ্যা ১০,০০০ ছাড়িয়ে যেতে পারে

শুক্রবার ভোরে ফিলিপাইন্সের উপকূলে যে রেকর্ড গড়া ঘূর্ণিঝড় আঘাত হেনেছিল সেটা যে কত শক্তিশালী ছিল, তা এখন পরিষ্কার হচ্ছে৷ মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷

হাইয়ানের আগমনী বার্তা পাওয়ার পর থেকেই সরকার তা মোকাবিলা করার জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল৷ নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নেয়া হয়েছিল প্রায় সোয়া লক্ষ মানুষকে৷ কিন্তু তারপরও এর ভয়াল আঘাত থেকে হাজারো মানুষকে রক্ষা করা গেল না৷

ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৩৭৯ কিলোমিটার বেগের বাতাস প্রবাহিত করা হাইয়ান বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ের একটি, বলে জানিয়েছেন জেফ মাস্টার্স৷ তিনি মার্কিনওয়েদার আন্ডারগ্রাউন্ড' সংস্থার একজন পরিচালক৷ তবে মাস্টার্স বলছেন, ভূমিতে আঘাত হানার ক্ষেত্রে হাইয়ান- সবচেয়ে শক্তিশালী৷

রাজধানী ম্যানিলা থেকে প্রায় ৬০০ কিলোমিটার দূরের সামার দ্বীপের উপকূলে আঘাত হানার পর হাইয়ান ক্রমেই সমতলে ঢুকে পড়ে৷

Taifun Haiyan Philippinen Wirbelsturm Naturereignis

বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৩৭৯ কিলোমিটার!

ফলে তার আঘাতে হালকা উপকরণ দিয়ে তৈরি ঘরবাড়ি নিমিষেই মাটিতে শুয়ে পড়ে৷ আর একটু শক্তি ভবনগুলোর ছাদ গেছে উড়ে৷

১৯ বছরের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী জেসা আলজিবে বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন তার বাড়ির চারপাশে থাকা সব কলাগাছ নুয়ে পড়েছে৷

সংখ্যা আরও বাড়বে

ইতিমধ্যেই অন্তত ৩০০ মৃতদেহ উদ্ধার করে হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এপি৷ দুর্গত এলাকায় যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না এখনও৷ সেখানকার আসল পরিস্থিতি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাচ্ছে না সেসব এলাকায় বিদ্যুৎ টেলিফোন সংযোগ চলে যাওয়ায়৷ তাই সরকারের পক্ষ থেকে নিহতের সংখ্যা আরো বাড়বে বলে জানানো হয়েছে৷

মার্কিন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞ মাস্টার্স বলছেন গুইইয়ুয়ান নামের একটি এলাকায় ঘূর্ণিঝড়টি প্রথম আঘাত হানার কথা৷ ফলে সেখানে থাকা প্রায় ৪০ হাজার অধিবাসীর অবস্থা করুণ হতে পারে৷ শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এলাকার মানুষের কপাল কি ঘটেছে তা জানা যায়নি৷

দায়ী জলবায়ু পরিবর্তন?

ফিলিপাইন্স সরকার কয়েকজন বিজ্ঞানী মনে করেন জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেই ঘূর্ণিঝড়ের মাত্রা দিন দিন বাড়ছে৷ তবে হাইয়ানের জন্য জলবায়ু পরিবর্তন দায়ী কিনা তা নির্ধারণের সময় এখনও আসেনি৷

জেডএইচ/ডিজি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়