1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ফার্নিচার যখন গাছে ফলে

গাছপালা থেকে যদি আসবাবপত্র তৈরি করা যায়, তাহলে আসবাবপত্রের আকারেই বা গাছপালা গজানো যাবে না কেন? এই অদ্ভুত ধারণাটা আসে ইংল্যান্ডের ডার্বিশায়ার কাউন্টির এক ডিজাইনারের মাথায়৷

ব্রিটেনের ডার্বিশায়ার কাউন্টির এই বাগানটি হল গেভিন মনরো-র ছুতোরের দোকানের কেন্দ্রবিন্দু৷ গেভিন আসবাবপত্র ডিজাইন করে থাকেন৷ তাঁর আসবাবপত্র ‘গজায়' এই বাগানে! গাছপালা আসবাবপত্রের আকারে বেড়ে ওঠে! গেভিন বললেন: ‘‘কোনো কোনো গাছ চেয়ারের পেছন দিকটা তৈরি করার জন্য ভালো৷ যেখানে আর একটু বেশি জায়গা আছে, যেমন এই গাছটা, এটা দিয়ে একটা টেবিল তৈরি হতে পারে৷ আসলে ডিজাইনটা খুঁজে নিতে হয়৷''

তক্তা কাটা বা আঠা দিয়ে পাত জোড়া দেওয়ার মতো কোনো ব্যাপার নেই এখানে৷ গেভিন তাঁর চেয়ার-টেবিল টাটকা শাকসবজির মতো বাগান থেকেই তুলে আনেন৷ যেন তাঁর ছোটবেলার স্বপ্ন সফল হয়েছে৷ গেভিন বলেন, ‘‘আইডিয়াটার শুরু বোধহয় আমি যখন খুব ছোট ছিলাম আর মা পেছনের বাগানে বনসাই গাছ লাগাতেন, তখন৷ সেরকম একটা গাছ ছাঁটা হয়নি বলে বড় হয়ে গিয়ে সিংহাসনের মতো দেখাচ্ছিল৷ সেই ছবিটা আমার মাথায় রয়ে গিয়েছিল৷ এটা সেইরকম একটা ছবি৷ আমি হয়তো এইরকম কিছু একটা ভাবছিলাম বেশ অনেকদিন ধরে৷''

গেভিনের বাগানে আজ চারশো গাছ, মানে চারশো নানা ধরনের আসবাবপত্র গজিয়ে উঠছে৷ তার আর প্লাস্টিকের ফর্ম দিয়ে গেভিন গাছগুলোকে আকৃতি দেন৷ এইভাবেই দেয়ালে টাঙানোর আয়না বা ল্যাম্পশেড গজে ওঠে৷ এ কাজের জন্য উইলো কাঠ ভালো৷ গাছ কাটার পর এক বছর শুকাতে দিতে হয়৷ তারপর ওয়ার্কশপে নিয়ে গিয়ে পালিশ করতে হয়৷ গেভিন শুধু একক সব আসবাব তৈরি করে থাকেন৷ কেননা প্রত্যেকটি গাছ একটি নির্দিষ্ট প্যাটার্ন অনুযায়ী বেড়ে উঠছে৷ গেভিন জানালেন, ‘‘এটা শুরু হয়েছিল একটা আর্ট প্রোজেক্ট হিসেবে৷ ভেবেছিলাম, কয়েকটা জিনিস তৈরি করে দেখা যাক, কি করা যেতে পারে৷ এখন সেটাই একটা ম্যানুফ্যাকচারিং প্রক্রিয়া হয়ে উঠতে শুরু করেছে, এমন একটা প্রণালী, যেটা রিপিট করা যায়, বিক্রি করা যায়৷ কাজেই এর মধ্যে সব কিছু এসে পড়ছে: আর্ট, গার্ডেনিং, ডিজাইন৷''

জানুয়ারি মাসে গেভিনের প্রথম টেবিল ‘পেকে উঠবে', গাছ লাগানোর পাক্কা দশ বছর পরে!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়