1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ফাঁসি রোধে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের বিবৃতি, সমালোচনা

মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ যুদ্ধাপরাধী কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত করে এ মামলার সুষ্ঠু পর্যালোচনার দাবি জানিয়েছে৷ সামাজিক মাধ্যমে এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে৷

নিউইয়র্কভিত্তিক সংস্থাটি জানিয়েছে জাতিসংঘের বিবৃতি অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ডের বিধান আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের লঙ্ঘন৷ তাই অবিলম্বে বাংলাদেশে মৃত্যুদণ্ড স্থগিতের আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি৷

হ্রিতোহ্রি মেঘলা টুইটারে লিখেছেন, ‘‘হিউম্যান রাইটস ওয়াচ তোমরা জানো, বিএনপি জামায়াতের ছোড়া আগুনে নিহত হয়েছে ১৪৫ জনেরও বেশি মানুষ৷ তখন তোমরা চুপ করে ছিলে, আর এখন যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ নিচ্ছ!'' এ বিষয়ে আরও একটি টুইট করেছেন তিনি৷ লিখেছেন, ‘‘যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ নেয়া বন্ধ কর৷ মানবতা মানুষের জন্য হওয়া উচিত, যুদ্ধাপরাধীদের জন্য নয়৷''

মো. সাইদুল ইসলাম লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়া বেশ খোলামেলা এবং সুষ্ঠু৷ দণ্ডিত অপরাধীরা তাদের নিরপরাধ প্রমাণ করার সুযোগ পেয়েছিল, কিন্তু প্রমাণ করতে পারেনি৷''

রায়হান জামিল লিখেছেন, ‘‘ধিক্কার এইচআরডাব্লিউ৷ আদালত বলেছে যুদ্ধাপরাধীদের কর্মকাণ্ড নাৎসিদেরও হার মানিয়েছে৷''

পিনাকী ভট্টাচার্য ফেসবুকে জামায়াতের একটি মন্তব্য উল্লেখ করে সে ব্যাপারে তাঁর নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘জামাতে ইসলামী বলেছে, কামারুজ্জামান রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার৷ সময়ের ব্যবধানে প্রতি ফোঁটা রক্তের জবাব কড়ায়-গণ্ডায় আদায় করা হবে৷... আমাদেরও তো কড়ায় গণ্ডায় হিসাব নিতে বাকি আছে, আমাদের রক্ত অবশ্য ফোঁটায় ফোঁটায় ঝরেনি৷ রক্তের সাগর হয়েছিল একাত্তরে৷ কোন প্রতিশোধ নিতে নয়, পূর্বপুরুষদের উপরে চালানো গণহত্যার বিচার চাই, সভ্য মানুষের মতো৷ এটা ইতিহাসের দায়৷''

মনিকা রায় ডেইলি স্টারের একটি ভিডিও প্রতিবেদন শেয়ার করেছেন, যেখানে কামারুজ্জামানের রায়ের পর জনগণের প্রতিক্রিয়া উঠে এসেছে৷ উঠে এসেছে অবিলম্বে ফাঁসি কার্যকরের দাবি৷

দেওয়ার জাহিদ লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশের তরুণ সমাজের দীর্ঘদিনের দাবি ১৯৭১ সালের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমে তার নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছেন৷''

সংকলন: অমৃতা পারভেজ

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়