1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ফলাফল আসবে না জেনেও কানকুনে চলছে জলবায়ু সম্মেলন

গত বছরের ডিসেম্বরে কোপেনহেগেনে অনুষ্ঠিত হয়েছিল জলবায়ু সম্মেলন৷ কিন্তু উষ্ণায়ন রোধে চুক্তি সম্পাদন তীব্র মতবিরোধের কারণে ভেস্তে যায়৷ কিন্তু এবার কানকুনে কি হচ্ছে?

default

মেক্সিকোর কানকুনে চলছে জলবায়ু সম্মেলন

১২ দিন ব্যাপী কানকুন সম্মেলনের ফলাফল আসবে, এ নিয়ে তেমন আশাবাদী নন অনেকেই৷ তারা মনে করছেন, এই সম্মেলনে কার্বন নিঃসরণ কমানোর লক্ষ্যে সিদ্ধান্তে পৌঁছতে বড় ধরণের কোনো সাফল্য আসবে না৷ তবে উন্নয়নশীল দেশগুলোর সহায়তায় ‘সবুজ তহবিল' গঠনের ক্ষেত্রে এ সম্মেলনে সাফল্য আসতে পারে বলেই মত তাদের৷ আগামী ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে ১৬ তম এই সম্মেলন৷

গত শতাব্দীর শেষ দিকে বিজ্ঞানীরা দেখলেন যে পৃথিবীর উষ্ণতা ক্রমেই বাড়ছে৷ পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা গত একশ বছরে বৃদ্ধি পেয়েছে শূন্য দশমিক সাত চার ডিগ্রি সেলসিয়াস৷ এই উষ্ণতা বৃদ্ধি বিভিন্নভাবে পৃথিবীর আবহাওয়া ও জীববৈচিত্র্যের উপর মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব ফেলছে৷

জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ দূষণের ফলে জলবায়ু পরিবর্তন হবার কারণে পৃথিবীর ২০ থেকে ৩০ শতাংশ গাছপালা ও প্রাণী রয়েছে সর্বোচ্চ হুমকির মুখে৷ বলা হচ্ছে, বিশ্বের তাপমাত্রা যদি ১ দশমিক ৫ হতে ২ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি পায়, তাহলে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ গাছপালা ও পশু-পাখির জীবনের উপর ভয়াবহ ঝুঁকির সম্ভাবনা বিদ্যমান৷ অদূর ভবিষ্যতে পৃথিবীতে গ্রিন হাউস গ্যাসের প্রভাবে আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে অনাবৃষ্টি, অতিবৃষ্টি, ঝড়ঝঞ্ঝা, খরা, বন্যা, বরফ গলে পানির উচ্চতা বৃদ্ধি ও পানি সংকট দেখা দিতে পারে৷

তথ্যানুযায়ী যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি উদ্বেগের কারণ, তাহলো ২০৮০ সালের মধ্যে ১১০ থেকে ৩০০ কোটি মানুষ ভয়াবহ পানি সংকটে পড়বে এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোতে জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে পড়বে৷

আগেই বলেছি, এই সম্মেলনের প্রধান আলোচ্য বিষয় জলবায়ু তহবিলের বণ্টন৷ তাপমাত্রা না বাড়াতে কোন দেশ কী অঙ্গীকার করবে, তা নিয়েও এখানে কথা হচ্ছে৷ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে কার্বন নিঃসরণের পরিমাণ কমানো ও বনায়নের মাধ্যমে কার্বন ধরে রাখার মাধ্যমে বিশ্বে কার্বন নিঃসরণে ভারসাম্য নিয়ে আসার বিষয়ও আলোচনায় গুরুত্ব পাচ্ছে৷ সেখানে উপস্থিত আছেন বাংলাদেশের অক্সফামের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা এবং জলবায়ু বিশেষষজ্ঞ জিয়াউল হক মুক্তা৷ তিনি জানালেন, এই সম্মেলনে বড় ধরণের ফলাফল না আসলেও অনেক ক্ষেত্রেই অগ্রগতি হবে বলে তারা মনে করছেন৷

গত বছর ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেনে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশের রাষ্ট্রপ্রধান যোগ দিয়েছিলেন৷ কানকুনে তেমনটি হচ্ছে না৷ মেক্সিকো জানিয়েছে, সবাইকে আমন্ত্রণও জানানো হয়নি৷ জানা গেছে, গত মঙ্গলবার হঠাৎ করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ইউরোপের কয়েকটি দেশ ও লাতিন আমেরিকার কয়েকজন রাষ্ট্রপ্রধানকে আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়েছে৷ তবে এই নেতারা ঐ সম্মেলনে যোগ দেবেন কি না তা এখনও নিশ্চিত নয়৷

১৯৯৫ সালে জার্মানির বার্লিনে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন৷ এবার আশা করা হচ্ছে, আগামী বছর ব্রাজিলে অনুষ্ঠেয় সম্মেলনে বিশ্ববাসী এ নিয়ে নতুন এক চুক্তি দেখতে পাবেন৷ যে চুক্তির আলোকে বাঁচানো যাবে এই সুন্দর পৃথিবীকে৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক