ফরাসি ফার্স্ট লেডির বিরুদ্ধে লাখো মানুষের পিটিশন | বিশ্ব | DW | 07.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফ্রান্স

ফরাসি ফার্স্ট লেডির বিরুদ্ধে লাখো মানুষের পিটিশন

ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁর স্ত্রীকে ফার্স্ট লেডি হিসেবে আনুষ্ঠানিক পদ দেয়ার বিপক্ষে আবেদন করেছেন দেশটির জনগণ, যাতে স্বাক্ষর করেন ১ লাখ ৮০ হাজার মানুষ৷

নির্বাচিত হওয়ার তিন মাসের মধ্যে প্রেসিডেন্টের জনপ্রিয়তাও ক্রমাগত নিম্নগামী৷

দুই সপ্তাহ আগে এই অনলাইন পিটিশন শুরু করে একটি প্ল্যাটফর্ম, যার নাম চেঞ্জ ডট অর্গ (change.org)৷ সেখানে দাবি জানানো হয়, প্রেসিডেন্টের স্ত্রীকে ফার্স্ট লেডি হিসেবে ভূমিকা পালনের জন্য যেন জনগণের তহবিল থেকে ব্যয় না করা হয়৷ মে মাসে নির্বাচনি প্রচারণা চালানোর সময় মাক্রোঁ স্ত্রী ব্রিগিটেকে আনুষ্ঠানিক পদ দেয়ার অঙ্গীকার করেছিলেন৷ আবেদনে বলা হয়েছে, ‘বর্তমানে ব্রিগিটে মাক্রোঁর একটি টিম রয়েছে, যেখানে তাঁর দুই থেকে তিনজন সহযোগী, দু'জন সহকারী এবং দু'জন নিরাপত্তা এজেন্ট রয়েছে৷ এগুলোই যথেষ্ট৷’

ফ্রান্সে প্রেসিডেন্টের স্ত্রী বা ফার্স্ট লেডির জন্য কোনো আনুষ্ঠানিক পদ নেই৷ প্রেসিডেন্টের স্ত্রীরা কেবল সৌজন্য ভূমিকা পালন করেন, বিশেষ করে প্রেসিডেন্টের আনুষ্ঠানিক সফরগুলোতে৷

৩৯ বছর বয়সি মাক্রোঁর স্ত্রী ব্রিগিটের বয়স ৬৪ বছর৷ মাক্রো বরাবরই বলে আসছেন যে, তাঁর স্ত্রীর জন্য যে পদ সৃষ্টি করা হবে, তা কোনো পাবলিক ফান্ড বা জন-তহবিল থেকে খরচ করা হবে না৷ চেঞ্জ ডট অর্গ বিশেষ করে পিটিশনে উল্লেখ করেছে, জাতীয় পরিষদে একটি নতুন আইন পাস হয়েছে, যেখানে এমপিদের পরিবারের সদস্যদের সহযোগী হিসেবে দায়িত্বে না রাখার উপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে৷ পার্লামেন্ট সদস্যদের বিভিন্ন দুর্নীতির কেলেঙ্কারির পর এই আইনটি পাস হয়৷ যদিও সেখানে প্রেসিডেন্টের কথা উল্লেখ ছিল না৷

এদিকে, পার্লামেন্টে মাক্রোঁর বিরোধী দল এই ঘটনাকে ইস্যু করে বিক্ষোভের পরিকল্পনা করছে৷ তাদের অভিযোগ মাক্রোঁ সেনাখাতসহ অন্যান্য খাতে বাজেট কমিয়ে স্ত্রীর জন্য ব্যয় করছেন৷

শ্রমিক আইন সংস্কার এবং সেনাবাহিনীর বাজেট হ্রাসের কারণে নির্বাচিত হওয়ার তিন মাসেরও কম সময়ের মধ্যে মাক্রোঁর জনপ্রিয়তায় ধস নেমেছে৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়