1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

প্লেয়াররা ক্লাব ছাড়েন কেন: এটো’, দি মারিয়া

চারবার আফ্রিকার প্লেয়ার অফ দ্য ইয়ার স্যামুয়েল এটো’ গেলেন চেলসি এবং তাদের কোচ জোসে মুরিনিও-কে ছেড়ে এভারটনে৷ ওদিকে আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার আনখেল দি মারিয়া রেয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে এলেন ম্যান ইউ-তে৷ কিন্তু কেন?

স্যামুয়েল এটো' যেমন একদিকে ইউরোপীয় ফুটবলে একটি পরিচিত নাম, তেমনই আন্তর্জাতিক ফুটবলে তিনি তাঁর স্বদেশ ক্যামেরুন-এর অবয়ব৷ এই খেলোয়াড়টির আজ ৩৩ বছর বয়স হয়েছে – কিন্তু তাই নিয়ে চেলসির ম্যানেজার জোসে মুরিনিও ঠাট্টা করতে গেলেন কোন দুঃখে? অথচ দু'জনে এককালে ইন্টার মিলান-এও একসঙ্গে ছিলেন৷ যাই হোক, মুরিনিও-র ঠাট্টা নিয়ে দু'জনের মনোমালিন্যের কথা বাজারে শোনা যাচ্ছিল৷

কিন্তু বুধবারের একটি সাংবাদিক সম্মেলনে সে প্রসঙ্গ উঠলে এটো' বলেন, ‘‘জোসে মুরিনিও সম্পর্কে আমার একমাত্র যা বলার আছে, তা হলো: আমি তাঁকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি৷ তাঁর জন্যেই আমি প্রিমিয়ার লিগে গৃহীত ও অন্তর্ভুক্ত হবার সুযোগ পেয়েছি এবং আমি তাঁকে সেজন্য আমার ধন্যবাদ জানাতে চাই৷'' আগামী শনিবার তিনি তাঁর নতুন ক্লাব এভারটন-এর হয়ে পুরনো ক্লাব চেলসির বিরুদ্ধে খেলবেন কিনা, এ প্রশ্নের উত্তরে এটো' বলেন: ‘‘আসল কাজটা হলো আমার নতুন দলীয় সতীর্থদের খেলার ধরনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়া৷'' খুবই পেশাদার সুলভ উত্তর৷

Fussball - Real Madrid Angel di Maria

আনখেল (বানানভেদে আনহেল) দি মারিয়া

দি মারিয়ার জন্য দশ কোটি ডলার

এটো' ঐ সাংবাদিক সম্মেলনে আরো বলেন যে, তিনি তাঁর ক্যারিয়ারের শেষ দিকে পৌঁছাতে চলেছেন এবং এমন জায়গায় যোগ দিতে চান, যেখানে তাঁর অবদানকে মূল্য দেওয়া হবে৷'' বিশ্বকাপের গোড়ার দিকে লিওনেল মেসির বিশ্বস্ত সহযোগী আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার আনখেল (বানানভেদে আনহেল) দি মারিয়ার বয়স এখন ‘মাত্র' ২৬৷ এবং তাঁকে রেয়াল মাদ্রিদ থেকে আনার জন্য তাঁর নতুন ক্লাব যে মূল্য দিয়েছে, তা থেকে ম্যান ইউ-তে দি মারিয়ার মূল্যায়ন সম্পর্কে কারো কোনো সন্দেহ থাকে না: প্রায় ছ'কোটি পাউন্ড কিংবা দশ কোটি ডলার কিংবা সাড়ে সাত কোটি ইউরো৷

এখন প্রশ্ন হলো, দি মারিয়া স্বেচ্ছায় গেলেন, না তাঁকে মাদ্রিদ থেকে ‘তাড়ানো' হয়েছে৷ রেয়াল-এর কোচ কার্লো আঞ্চেলটি গত সপ্তাহে বারংবার বলেছেন যে, দি মারিয়া মাদ্রিদ ছাড়তে চেয়েছিলেন৷ দি মারিয়া এই ইঙ্গিতের বিরোধিতা করেছেন, কিন্তু এ-ও বলেছেন যে, তাঁর রেয়াল ছাড়ার মূল কারণ হলো এই যে, তাঁকে কোনো ‘ইমপ্রুভ্ড কনট্র্যাক্ট' দেওয়া হয়নি৷ কাজেই দি মারিয়া এবার মাদ্রিদের ক্রীড়া দৈনিক ‘মার্সা'-কে লেখা খোলাচিঠিতে স্পষ্টাস্পষ্টি বলেছেন: ‘‘দুঃখজনকভাবে আজ আমাকে (মাদ্রিদ) ছাড়তে হবে৷ কিন্তু আমি স্পষ্ট করে দিতে চাই যে, আমি নিজে তা কখনো চাইনি৷''

তিনি নাকি দশম ইউরোপীয় কাপ (চ্যাম্পিয়নস লিগ) জয়ের পর স্বদেশ আর্জেন্টিনার হয়ে বিশ্বকাপ খেলতে গিয়েছিলেন এই আশা নিয়ে যে, রেয়াল-এর পরিচালক মণ্ডলীর কাছ থেকে কোনোরকম প্রস্তাব আসবে৷ কিন্তু ‘‘ওরা অনেক কিছু বলে, অনেক মিথ্যে কথা৷ ওরা ক্লাব পরিত্যাগ করার দায়িত্বটা আমার কাঁধেই চাপাতে চেয়েছিল৷'' তিনি যেভাবে ফুটবল খেলেন, তা নাকি অনেকের মনমতো নয়৷ অপরদিকে তাঁর কাছে মাইনে ছাড়াও আরো বহু জিনিসের দাম আছে৷ কিন্তু রেয়াল-এর প্রেসিডেন্ট ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ যখন দশ কোটি ডলার খরচ করে বিশ্বকাপের দুই তারকা খামেস রদ্রিগেজ ও টোনি ক্রোসকে কিনলেন, তখন দি মারিয়া দেখলেন যে, বের্নাবেউতে তাঁর পংক্তি এখন উপরোক্তদেরও তলায় হবে৷

তখন তাঁর আর রেয়াল না ছেড়ে উপায় কি, বলুন? তাছাড়া ম্যান ইউ তো দি মারিয়ার ট্রান্সফার ফি'তেই দেখিয়ে দিয়েছে, তাদের ক্যাডারে দি মারিয়ার স্থান ঠিক কোথায়৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন