1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

প্লাস্টিকের বদলে কাগজের ব্যাগ, পরিবেশ সুরক্ষার উপায়

উগান্ডার তরুণ অ্যান্ড্রু মুপুইয়া ভারতে কী ভাবে কাগজের ঠোঙা তৈরি করা হয়, তা ইউটিউবে দেখে রাজধানী কাম্পালা-য় ইয়েলি পেপার ব্যাগস নামের একটি কোম্পানি খোলেন৷ এভাবেই শুরু হয় তাঁর সফল যাত্রা৷

উগান্ডায় প্লাস্টিকের ব্যাগ বহুদিন আগেই নিষিদ্ধ করা হয়েছে, কিন্তু রাজধানী কাম্পালা-র শহরতলিতে এখনও তা সর্বত্র পড়ে থাকে৷ ২১ বছর বয়সী অ্যান্ড্রু মুপুইয়া এই পরিস্থিতি বদলাতে চান – সে জন্য পাঁচ বছর আগেই তিনি তাঁর ব্যবসা চালু করেন৷ ১৫ জন কর্মী নিয়ে কাগজের ঠোঙা তৈরির ব্যবসা করেন মুপুইয়া৷ ধনী পরিবারের সন্তান তিনি নন, নিজের রোজগার থেকে আসে ব্যবসার পুঁজি৷ মুপুইয়া বলেন, ‘‘আমি প্রথমে প্লাস্টিকের বোতল কুড়োতে শুরু করি৷ স্কুলের সহপাঠীদের সঙ্গে মিলে ৭০ কিলো-র বেশি বোতল কুড়িয়ে রিসাইক্লিং-এর জন্য নিয়ে যাই৷ আমার কাজকর্ম দেখে মানুষজন তখন ভেবেছিল, আমি পাগল হয়ে গেছি৷ কিন্তু আমি জানতাম, আমি ঠিক কী করছি৷''

মাত্র ১২ ডলার পুঁজি নিয়ে শুরু

ইতিমধ্যে মুপুইয়া-র ‘ইয়েলি পেপার ব্যাগ' সারা উগান্ডায় বিক্রি হচ্ছে৷ বিভিন্ন সুপারমার্কেট, ছোট বিপণী, ওষুধের দোকান, এরাই কেনে মুপুইয়া-র কাগজের ব্যাগ৷ খদ্দেরের সংখ্যা বেড়েই চলেছে৷ আজ মুপুইয়া-র কোম্পানি সপ্তাহে বিশ হাজার কাগজের ব্যাগ তৈরি করে – শুধু হাতে তৈরি, কোনোরকম যন্ত্র ছাড়াই৷

সহজ ব্যাগগুলো তৈরি করার প্রক্রিয়া হল নয় ধাপের; জটিল ব্যাগগুলো তৈরি হয় ৩২ ধাপে৷ মুপুইয়ার মেশিন কেনার সামর্থ্য নেই৷ ঠোঙা তৈরির কাগজ কেনেন কেনিয়া থেকে৷ তাঁর কারখানার কর্মীরা সব কাজ নিজেরাই শিখে নিয়েছে৷ অনেকটা মালিক মুপুইয়া-র মতোই৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি ইউটিউব-এর ভিডিও-তে দেখেছি, ভারতে মানুষজন কীভাবে কাগজের ঠোঙা তৈরি করে – এবং সেটাই শিখেছি৷ তারপর আমি একটা নমুনা তৈরি করে এখানকার সব সুপারমার্কেট ও দোকানে দেখিয়েছি৷ তারা আগ্রহ করে আমাকে অর্ডার দিয়েছে৷''

ব্যবসায়ী এবং ছাত্র

মুপুইয়া যখন তাঁর কাগজের ঠোঙা তৈরির ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত থাকেন না, তখন তিনি কাম্পালা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি পড়েন৷ এখানেই সতীর্থ-সহপাঠীদের মধ্য থেকে কোম্পানির নতুন কর্মী খুঁজে নেন৷

উগান্ডায় তাঁর মতো করিৎকর্মাদের এখন অনেক সুযোগ রয়েছে, বলে তাঁর ধারণা৷ তিনি বলেন, ‘‘নিজের ব্যবসা বা কোম্পানি খোলাটা উগান্ডায় এখনো একটা নতুন ব্যাপার৷ আমরা ধীরে ধীরে তাতে অভ্যস্ত হয়ে উঠছি বলে আমার ধারণা৷ তবে একাধারে ইউনিভার্সিটির পড়াশুনো আর সেই সঙ্গে একটি ব্যবসা গড়ে তোলা যে সহজ কাজ নয়, তা তো জানাই৷''

অথচ মুপুইয়া সাহসে বুক বেঁধে তা'ই করেছেন এবং ইতিমধ্যে বহু পুরস্কারও লাভ করেছেন৷ তাঁর ভবিষ্যতের স্বপ্ন কম উচ্চাভিলাষী নয়৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি বিশ্বের সবচেয়ে বড় কাগজের ব্যাগ নির্মাতা হতে চাই৷ আমি আমার কোম্পানিকে বাড়াতে চাই৷ সেভাবে আমি অনেক বেশি ব্যাগ উৎপাদন করতে পারব, সারা বিশ্বে সেগুলো বিক্রি করতে পারব৷ এবং আমি সেটা পারব বলেই আমার ধারণা৷''

উগান্ডায় কাগজের ব্যাগের সুবিশাল বাজার পড়ে রয়েছে – বহু সুপারমার্কেট এবং দোকানে এখনও কাগজের ব্যাগের চল হয়নি৷ ইয়েলি পেপার ব্যাগস-এর এমনই চাহিদা যে, মুপুইয়ার কোম্পানি তা সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে৷ অ্যান্ড্রু মুপুইয়া ইতিমধ্যেই কথাবার্তা বলছেন: তিনি বিদেশ থেকে কাগজের ব্যাগ তৈরির মেশিন কিনতে চান৷ অবশ্য ব্যাংক থেকে প্রয়োজনীয় ঋণ পেলে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক