1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

প্রয়াত লোকি শ্মিটকে হামবুর্গবাসীদের বিনত শ্রদ্ধা

সাবেক জার্মান চ্যান্সেলর হেলমুট শ্মিটের স্ত্রী সদ্যপ্রয়াত লোকি শ্মিট-এর সম্মানে বন্দর নগরী হামবুর্গের পৌরভবনে পতাকা অর্ধনমিত৷ লাইনে দাঁড়ানো মানুষ শোকপুস্তকে প্রকাশ করেছেন এই ব্যতিক্রমী নারীর প্রতি তাঁদের অকৃত্রিম শ্রদ্ধ

Loki Schmidt

প্রয়তা লোকি শ্মিট

১৯৮০ সাল থেকেই লোকি শ্মিট বছরের সেরা একটি ফুল নির্বাচন করে এসেছেন৷ ২০১১ সালের সেরা ফুলটিও তিনি পছন্দ করে গেছেন - এক বিশেষ জাতের লিলি ফুল, জার্মানরা বলে ‘ম্যোরলিলি'৷ উদ্ভিদবিজ্ঞানের পরিভাষায় এর নাম ‘নারথেসিউম অসিফ্রাগুম'৷ এখবর দিয়েছে লোকি শ্মিট ফাউন্ডেশন৷ কিন্তু তিনি নিজে আর নেই৷ প্রয়াত হলেন ৯১ বছর বয়সে৷

প্রাক্তন জার্মান চ্যান্সেলর হেলমুট শ্মিটের স্ত্রী হিসেবেই নিজের অস্তিত্বকে সীমিত রাখেননি লোকি৷ শ্মিটের সঙ্গে সেই ১৯৪২ সাল থেকে তাঁর ৬৮ বছরের সংসারের বাইরেও ছিল তাঁর নিজের এক জগৎ৷ একেবারে অল্প বয়স থেকেই নিজের দায়দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন ছিলেন তিনি৷ সাধারণ নিম্নবিত্ত পরিবারের মেয়ে হিসেবে ভাইবোনের দেখাশোনা করতে হয় তাঁকে৷ সব কাজ সেরে রাতের বেলা স্কুলের পড়া তৈরি৷ স্মৃতিচারণ করে একবার বলেছিলেন, ‘‘ঠিক ঐ সময় বাবা আমায় এক কাপ কফি করে দিতেন৷ তারপর পিরিচের ওপর একটা সিগারেট রাখতেন৷ আস্তে করে পিরিচটা ঠেলে দিতেন আমার দিকে৷''

Helmut Schmidt Loki Schmid

স্বামী হেলমুট শ্মিটের সঙ্গে লোকি

হেলমুট শ্মিট আর তিনি স্কুলের সাথী৷ দশ বছর বয়সে দুজনের একসঙ্গে সিগারেট খাওয়া শুরু৷ স্কুল জীবনের সখ্য একদিন রূপ নেয় ভালবাসার৷ বিয়ে করেন তাঁরা৷ লোকি শ্মিট শুরু করেন স্কুল শিক্ষয়ত্রীর জীবন৷ যুদ্ধ ফেরত হেলমুটকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা নিতে সংসারের দায়িত্ব তুলে নেন নিজের কাঁধে৷ এক সময় শুরু হয় হেলমুট শ্মিটের রাজনৈতিক জীবন৷ বনে অর্থ ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন৷ তারপর জার্মানির চ্যান্সেলর নির্বাচিত হন তিনি৷ শৃঙ্খলা আর দায়িত্বের বোধের কারণে চ্যান্সেলর পত্নী হিসেবে সব দায়িত্ব সুচারুভাবে পালন করতে লোকির অসুবিধা হয়নি৷ তবে তার পাশাপাশি চলেছে তাঁর নিজের জগৎটিও৷ বিপন্ন গাছগাছালি ও ফুল সুরক্ষায় তৎপর হয়েছেন৷ বই লিখেছেন গাছপালা নিয়ে৷ পেয়েছেন পুরস্কার৷

চ্যান্সেলর পদ ছাড়ার পর থেকে শ্মিট ও লোকি হামবুর্গে বাস করেছেন৷ লোকির ইচ্ছা ছিল, স্বামীর সঙ্গে তাঁদের বিয়ের ৭০ তম বার্ষিকী পালন করবেন৷ তাঁর পরিপূর্ণ জীবনে সেই ইচ্ছাটি অপূর্ণ রয়ে গেল৷

প্রতিবেদন: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়