1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

প্রেসিডেন্ট সালেহ সরে দাঁড়াতে রাজি

বিচারমুক্তির শর্তে তিনি কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ক্ষমতা পরিত্যাগ করতে সম্মত৷ কিন্তু বিক্ষোভকারীরা বলছেন, সেটা না ঘটা অবধি তারা রাজপথেই থাকবেন৷

default

ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট আলি আবদুল্লাহ সালেহ

তিউনিশিয়ার পর মিশর, তার পরই ইয়েমেন৷ উত্তাল আরব বিশ্বে তৃতীয় নেতা হিসেব গদি ছাড়তে চলেছেন আলি আবদুল্লাহ সালেহ৷ মাত্র দু'কোটি ত্রিশ লক্ষ মানুষের দেশ ইয়েমেন হল আরব বিশ্বে দরিদ্রতম৷ ৩৩ বছর ধরে এখানে শাসন চালিয়েছেন সালেহ৷ ক্ষমতায় এসেছিলেন ১৯৭৮ সালে৷ ১৯৯০ সালে উত্তর এবং দক্ষিণ ইয়েমেনের একীকরণের হোতাও ছিলেন তিনি৷ সম্প্রতি কয়েক বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র হয়ে উঠেছিলেন আল-কায়েদার বিরুদ্ধে সংগ্রামে৷ অপরদিকে দেশের উত্তরে শিয়া বিদ্রোহী এবং দেশের দক্ষিণে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বিরুদ্ধেও যুদ্ধ চালিয়ে গেছেন৷ কিন্তু তিউনিশিয়া থেকে মিশর হয়ে বিক্ষোভের ঢেউ ইয়েমেনের তরুণ সমাজকেও উদ্বুদ্ধ করে৷ এখানেও মাসের পর মাস ধরে আন্দোলন চলছে, প্রাণ হারিয়েছে ১৩০ জনের বেশী বিক্ষোভকারী৷

সালেহ বস্তুত ক্ষমতা ছাড়লেন শক্তিশালী প্রতিবেশী সৌদি আরব এবং সুদূর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চাপে৷ তবে উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদকেও সংশ্লিষ্ট করা হয়েছে৷ সালেহ বিরোধীদের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করার এক মাস পরে তাঁর উপ-রাষ্ট্রপ্রধানের হাতে ক্ষমতা তুলে দেবেন, এই পরিকল্পনা এসেছে উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ জিসিসি'র তরফ থেকে৷ পরিবর্তে সালেহ, তাঁর পরিবার এবং সহযোগীরা বিচারের হাত থেকে মুক্তি পাবেন৷ প্রেসিডেন্ট এবং শাসক জিপিসি দল পরিকল্পনাটি পুরোপুরি মেনে নিয়েছে৷ বিরোধী জোট বলছে, তারা পরিকল্পনাকে স্বাগত জানাচ্ছে - কিন্তু তারা কোনো জাতীয় ঐক্যের সরকারে যোগ দিতে রাজি নয়৷

Jemen Proteste Demonstrationen gegen die Regierung

ইয়েমেনে গণবিক্ষোভ

অপরদিকে হোয়াইট হাউস ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছে যে, তারা দ্রুত শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর দেখতে চায়৷ সে লক্ষ্য অর্জিত হবে কি না, এই মুহূর্তে বলা যায় না৷ বিরোধীরা এখনও সন্দেহ করছে, ক্ষমতা হস্তান্তরের অর্থ সালেহ'র পদত্যাগ নয়৷ এই শনিবারেও সালেহ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলেছেন, তিনি নির্বাচনের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে সরে দাঁড়াবেন, কোনো অভ্যুত্থানের কারণে নয়, ইত্যাদি৷ বস্তুত চব্বিশ ঘণ্টা আগেও তিনি ২০১৩ সালে তাঁর কর্মকাল শেষ হবার পরেই বিদায় নেওয়ার কথা বলছিলেন৷ এখন শোনা যাচ্ছে ৬০ দিনের মধ্যে নতুন রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার কথা৷ মোট কথা, ইয়েমেন জুড়ে বিক্ষোভ এবং অসহযোগ অব্যাহত রয়েছে: এডেন বন্দরে অথবা আবিয়ান কি লাহজ প্রদেশে৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম