1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

প্রার্থীদের হলফনামা নিয়ে ফেসবুকে আলোচনা

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচন নিয়ে রাজনীতির মাঠ সরগরম হয়ে উঠছে৷ আগ্রহী প্রার্থীদের হলফনামায় দেয়া তথ্য নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা চলছে৷

Narayanganj City Corporation Wahlen Flash-Galerie

(ফাইল ফটো)

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে হলফনামাগুলো প্রকাশ করা হয়েছে৷ এর মধ্যে ঢাকা উত্তরে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের সমর্থিত প্রার্থী আনিসুল হকের হলফনামার তথ্য প্রসঙ্গে সামাজিক মাধ্যমে অনেকে মন্তব্য করেছেন৷

আনিসুল হক তাঁর নামে বাড়ি, গাড়ি না থাকার কথা হলফনামায় উল্লেখ করেছেন৷ এ ব্যাপারে প্রথম সারির একটি দৈনিককে তিনি বলেন, ‘‘আমার ২২টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে৷ প্রতিষ্ঠানের নামে বেশ কিছু গাড়ি আছে৷ সেগুলোই আমি ব্যবহার করি৷'' নিজের নামে বাড়ি/অ্যাপার্টমেন্ট না থাকলেও স্ত্রী রুবানা হকের নামে তা রয়েছে বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন আনিসুল হক৷

এ প্রসঙ্গে সুপ্রীতি ধর ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘ব্যবসায়িক নেতা আনিসুল হকের বাড়ি-গাড়ি নেই৷ তাহলে বনানীর ওই সুন্দর, আলিশান বাড়িটি আসলে কার? মানুষ এতো মিথ্যা কী করে বলে? আর সেগুলো জায়েজও করে কতিপয় লোকজন৷'' সুপ্রীতির এই স্ট্যাটাসের নীচে মন্তব্য করেছেন দেলোয়ার জালালী৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘যত দোষ আমাদের বোকা রাজনীতিকদের৷ কিন্তু এই সব সাদা মনের ব্যবসায়ীরা অনেক কিছুই গোপন করেন যা আমরা ভাবতেও পারিনা৷'' কাজী নাজিয়া মুস্তারি বলছেন, ‘‘এরা হচ্ছে কোটিপতি ফকির, এদের যত হয়, তত ফকিন্নিপনা বাড়ে, বাড়তে বাড়তে তারা হয় বিশাল দেশপ্রেমিক এরপর হয় মন্ত্রী৷''

Narayanganj City Corporation Wahlen Flash-Galerie

প্রার্থীদের হলফনামা নিয়ে ভোটাররা পড়েছেন ভাবনায় (ফাইল ফটো)

আনিসুল হকের হলফনামায় দেয়া তথ্যকে ‘জোকস অফ দ্য ইয়ার' বলে আখ্যায়িত করেছেন ফারাহ জাবিন শাম্মী৷ শহিদুল ইসলাম শ্যামল লিখেছেন, ‘‘ফাজলামির একটা সীমা থাকা উচিত...৷'' রশিদ শিশির বলছেন, ‘‘আনিসুল হকের কোনো... গাড়ি নেই ..শুরুতেই প্রতারণা ..জয়ী হলে কী করবে...৷'' শহীদ জামান আনিসুল হককে ‘তথ্য চোর' বলেছেন৷

মুহাম্মদ গোলাম সারোয়ার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘...পত্রিকায় পড়লাম মোট ২৭ কোটি টাকার মালিক একজন মেয়র প্রার্থী তাঁর নিজের কোনো বাড়ি নেই এবং পরিবারের জন্যে কোনো গাড়ি নেই৷ শুনে বেশ ভালো লাগলো৷ ভালো লাগলো এইজন্যে যে বাংলাদেশে ‘কোটিপতি'রা কাঙ্গাল এ পরিণত হচ্ছেন৷ প্রতারকেরাই বাংলাদেশের রাজনীতি দখল করেছে, এর চাইতে ভালো প্রমাণ আর কি হতে পারে?''

প্রার্থীদের হলফনামা দেখে সবাকের মনে হয়েছে, বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট মেয়র প্রার্থীর চেয়ে তাঁর বাৎসরিক আয় বেশি! ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, ‘‘প্রিন্স মুসার ছেলে মেয়র প্রার্থী ববি হাজ্জাজেরও তেমন কিছু নাই৷''

ববি হাজ্জাজের হলফনামা দেখে আশ্চর্য হয়েছেন রাশাত রহমান জিকো'ও৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘প্রিন্স মুসার ছেলের কিছু নাই৷ মুরগি ছদকা দিলে মুরগিটা তারে দিও৷'' বন্দনা কবীর লিখেছেন, ‘‘ভাবছিলাম ঢাকা সিটি করপোরেশন ইলেকশন নিয়ে কিছু বলবোনা৷ যা ইচ্ছা হউক, আমার কি? হুদাই... যখন শুনলাম ২৫/২৬টা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক আনিসুল হকের নাকি কিছু নাই, গাড়ি-বাড়িও নাই, মাসে তার মাত্র ৬০ হাজার টাকা রোজগার হয়, কোনোমতে জিভ চুলকালেও, তখনো চুপ ছিলাম৷ কিন্তু আর পারলাম না... আজকে এটা কি শুনলাম?! ‘প্রিন্স' মুসার ছেলেরও নাকি কিচ্ছু নাই তেমন! এদের যদি ‘কিচ্ছু' না থাকে তাইলে আম্রার মতন লোকেরা তো ফুটা পয়সার ফকির!''

এদিকে, প্রার্থীদের হলফনামা কতটা বিশ্বাসযোগ্য, তা নিয়ে বিবিসি বাংলা একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷

সংকলন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়