1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

প্রাথমিক শিক্ষা অবৈতনিক হলো ভারতে

ভারতের স্বাধীনতার ৬০ বছর পেরিয়ে গেছে৷ এত বছর পরেও সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি৷ ২০১০ সালের ১লা এপ্রিল নতুন আইন প্রণয়ন করা হয়েছে৷ ছয় থেকে ১৪ বছরের প্রতিটি ছেলেমেয়ের জন্য প্রাথমিক স্কুল শিক্ষা অবৈতনিক করা হয়েছে৷

Students, Jagriti, centre, school, Magadi, India, ভারত, মাগাদি, স্কুল, শিক্ষার্থী, প্রাথমিক

ভারতের মাগাদিতে একটি আবাসিক স্কুলের শিক্ষার্থীরা (ফাইল ছবি)

শিশু অধিকার নিয়ে যে সব সংস্থা কাজ করে যাচ্ছে তারা আশংকা প্রকাশ করে বলছে, সব শিশুকে হয়তো স্কুলে পাঠানো সম্ভব হবে না৷ ভারতে প্রায় ৮০ লক্ষ শিশু স্কুলে যাচ্ছে না৷ স্কুলে না যাওয়া শিশুদের মধ্যে মেয়েদের সংখ্যা বেশি৷ দারিদ্র, এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় চলে যাওয়া, স্কুলের অনুপোযোগী পরিবেশকেই – স্কুলে না যাওয়া এবং স্কুল শিক্ষায় অনীহার মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ এখন প্রশ্ন উঠেছে, নতুন আইন কি পারবে প্রতিটি শিশুকে স্কুলমুখী করতে ?

মহারাষ্ট্রের মেয়ে মনীষা খান্দাভাল৷ ছোট একটি ঘরে সে তার বাবা-মাকে নিয়ে থাকে৷

মনীষা তাঁর ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলছে, তার বাবা-মা কাজে৷ তারা ইটের ভাটায় ইট তৈরি করে৷ থালা-বাসন ধুয়ে মনীষা ঘর গোছাতে লেগে যায়৷ গত দু'বছর ধরে মনীষা ঘরের কাজ দেখাশোনা করছে৷ প্রতিদিন সকালে বাবা-মায়ের সঙ্গেই ঘুম থেকে উঠতে হয় তাকে৷ সকালের খাবার তৈরি করতে হয়৷ তারপর সে নিজে তৈরি হয় স্কুলে যাওয়ার জন্য৷ বেসরকারি সংস্থা ইন্ডিয়া স্পনসরশিপ কমিটি একটি স্কুল চালাচ্ছে৷ মনীষা সেখানে সেলাই এবং হাতের বিভিন্ন কাজ শিখছে৷ সত্যিকার স্কুল বলতে যা বোঝায় এটা তা নয়৷ দু' বছর আগে মনীষা স্কুলে যেত৷ হঠাৎ করেই স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়৷ ভাগ্যকে মেনে নিয়েছে মনীষা৷ মনীষা জানাল, ‘আমি স্কুলে যেতে চাই৷ কিন্তু সেখানে প্রচুর খরচ৷ আমাকে আমার ছোট ভাই-বোনের দেখাশোনা করতে হয়৷ এছাড়া বাড়িতে অনেক কাজ, সেগুলোও আমাকে করতে হয়৷'

এর বাইরেও মনীষা কাজের অন্ত নেই৷ সে তার বাবা-মাকেও ইঁট তৈরিতে সাহায্য করে৷প্রতিদিন দুই থেকে তিন ঘন্টা ইটের ভাটায় সে সময় কাটায়৷ ক্লান্ত মনীষার কন্ঠ,‘ প্রতিদিন সাড়ে চারটা পর্যন্ত আমাকে ইঁটের ভাটায় কাজ করতে হয়৷ বালির মণ্ড প্রস্তুত রাখতে হয় পরদিন ইঁট তৈরি করার জন্য৷'

সূর্যের তাপ বাড়ছে, তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেছে৷ প্রচন্ড তীব্র এই রোদে কাজ থেমে থাকছে না৷ ইঁট তৈরির কাজ এগিয়ে যাচ্ছে৷ দুপুর দু'টার মধ্যে সাজানো ইঁট পোড়ানোর জন্য ভাটায় ভরে দিতে হয়৷

মনীষা এবং তার মা এখানে কাজ করে৷ মনীষার মা প্রতিদিন ১৭ রুপি করে পায়৷ ১৭ রুপি জার্মানিতে ৩০ সেন্টের কাছাকাছি৷ মনীষার বাবা-মা খুব ভাল করেই জানে যে শিশুশ্রম আইনত নিষিদ্ধ৷ মনীষার স্কুলে যাওয়া উচিৎ৷ কিন্তু অভাবের দরুণ তাকে কাজ করতে হচ্ছে৷ তার মা সারিতা খান্দাভাল বললেন, ‘স্কুল অনেক দূরে৷ প্রতিদিন নিয়ে যাওয়া, নিয়ে আসা একটি সমস্যা৷ এছাড়া স্কুলের খরচ চালানোর মত যথেষ্ট টাকা-পয়সা আমাদের নেই৷ আমাদের প্রতিদিন খাবার জোটানোর জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যেতে হয়৷ স্কুলের জন্য প্রয়োজন ইউনিফর্ম, বই-খাতা, জুতো, পেন্সিল, কলম আরো কত কী ! এসব আমাদের সামর্থ্যের বাইরে৷'

নতুন আইন অনুযায়ী ১লা এপ্রিল ২০১০ থেকে প্রাথমিক শিক্ষা অবৈতনিক করে দেওয়া হয়েছে৷ কিন্তু মনীষার পরিবার তা জানে না৷ সরকারি স্কুলগুলো মনে করছে, এই আইনের খবর এখনো সবাই জানে না৷ তাই স্কুলগুলো এখনো প্রতিবছর ভর্তির সময় টিউশন ফি নিচ্ছে যা প্রায় ১০ ইউরো অর্থাৎ ৬১০ রুপির সমান৷ এছাড়া প্রতি মাসে প্রতিটি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৩ ইউরো অর্থাৎ প্রায় ১৮১ রুপি নেওয়া হচ্ছে৷

মনীষার পরিবার মাসে যা উপার্জন করে তা ইউরোর হিসেবে ৩২ ইউরো অর্থাৎ ১৯ শ রুপির বেশি হবেনা৷এই অর্থ দিয়ে পুরো মাস পরিবারকে চলতে হয়৷ এই স্বল্প অর্থ দিয়ে স্কুলের বিশাল ব্যয় বহন করা সম্ভব না৷ তাই মনীষার বাবা-মা সিদ্ধান্ত নিয়েছে মনীষা কাজ করবে, তার উপার্জিত অর্থ দিয়ে অন্য তিনটি সন্তান পড়াশোনা করবে – যতদিন সম্ভব৷

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: আবদুল্লাহ আল-ফারূক