1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

প্রাণ হারালেন সত্যেন্দ্র, পরিবার পেল আশ্বাস, টাকা

এই হিন্দু পরিবারের এক সদস্য প্রাণ হারিয়েছেন৷ প্রাণের বিনিময়ে টাকা পেয়েছে সেই পরিবার, তবে হামলাকারীদের কোনো শাস্তি হয়েছে কিনা, তা তাদের অজানা৷ হামলার দিন ও পরের এক বছরে কী হয়েছে শুনুন এক ভুক্তভোগীর সাক্ষাৎকারে৷

২০১৪ সালে বিশ্বের কোন দেশের মানুষ কেমন ধর্ম পালনের সুযোগ পেয়েছে, কোন দেশের সংখ্যালঘুরা কেমন অধিকার ভোগ করেছে সে বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র সরকার৷ ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরিও উপস্থিত ছিলেন প্রতিবেদন প্রকাশের অনুষ্ঠানে৷ প্রতিবেদনের শিরোনাম ‘ইন্টারন্যশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডম ইন ২০১৪'৷ তাতে মিয়ানমার, ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তানসহ দক্ষিণ এশিয়ার সব দেশের পরিস্থতিই উঠে এসেছে৷

বুধবার ওয়াশিংটন থেকে প্রকাশিত এ প্রতিবেদনে বাংলাদেশ প্রসঙ্গে মূলত তিনটি বিষয় বলা হয়েছে – এক, বাংলাদেশের আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলো ২০১৪ সালে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দেয়ার কাজে দক্ষতার পরিচয় দেয়নি৷ দুই, হামলার ঘটনা তদন্তে সরকারি প্রশাসনকে অনিচ্ছুক বলে মনে হয়েছে৷ এবং তিন, পুলিশ হামলা প্রতিরোধে অনেক ক্ষেত্রে আগাম ব্যবস্থা তো নেয়নি, হামলার পর অনেক জায়গায় তারা মামলাও নেয়নি৷

অডিও শুনুন 04:53

সাম্প্রদায়িক হামলার শিকার এক পরিবারের কথা

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত হিন্দুদের প্রায় ২৬ লক্ষ একর জমি অর্পিত সম্পত্তি আইনের আওতায় দখল হয়েছে৷ দশ লক্ষেরও বেশি মামলা হয়েছে৷ কিন্তু একটি মামলারও নিষ্পত্তি হয়নি৷

বাংলাদেশের কয়েকটি প্রথম সারির মানবাধিকার সংস্থার তথ্য ও প্রতিবেদনের ভিত্তিতে তৈরি এই বার্ষিক প্রতিবেদনে কিছু চাঞ্চল্যকর ঘটনারও উল্লেখ রয়েছে৷ ২০১৪ সালের মে মাসে ১২ বছর বয়সি এক হিন্দু মেয়েকে জোর করে মুসলমান বানানো হয়৷ মেয়েটির পরিবার থানায় গিয়েছিল অভিযোগ দায়ের করতে৷ কিন্তু পুলিশ তাদের ফিরিয়ে দেয়৷

অনেক সময় রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক কারণেও সংখ্যালঘু, বিশেষত হিন্দুদের ওপর ব্যাপক হামলা-নির্যাতন হয় – এমন তথ্যও রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে৷ দৃষ্টান্ত হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে ২০১৪ সালেরই আরেকটি ঘটনা৷ ৫ই জানুয়ারি একটি নির্বাচনি এলাকায় দুই হিন্দু নারীকে ধর্ষণ করা হয়৷ ধর্ষণে জড়িত সন্দেহে দু'জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, নির্বাচনের কারণেই হিন্দু পরিবারগুলোর ওপর হামলা চালানো হয়েছে৷ ২০১৪ সালে ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই সংখ্যালঘুদের ওপর সবচেয়ে বেশি হামলা হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে৷

অডিও শুনুন 05:43

নিঃস্ব পরিবারটির প্রাপ্তি মাত্র আড়াই হাজার টাকা!

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চিকইকাচদহ গ্রামের এই পরিবারটির ওপরও ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের দিনেই হামলা হয়েছিল৷ একটি ভোটকেন্দ্রের কাছেই এক হিন্দু পাড়ায় তাদের বাড়ি৷ ভোট কেন্দ্রে শুরু হওয়া সংঘর্ষের রেশ অকারণেই এসে পড়ে হিন্দু পাড়ায়৷ অসুস্থ সত্যেন্দ্রনাথ বর্মন তখন নিজের বাড়িতে বসেছিলেন৷ লাঠিসোঁটা নিয়ে ছুটে আসা কিছু লোকের হামলায় তিনি আহত হন৷ হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান সত্যেন্দ্র৷

নিহত সত্যেন্দ্র নাথ বর্মনের ছোট ভাইয়ের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলে জানা গেল, হামলার পর পুলিশ তাঁদের আশ্বাস দিয়েছিল, মামলা করা হবে, হামলাকারীদের শাস্তিও দেয়া হবে৷ কিন্তু গত দেড় বছরেরও বেশি সময়ে কোনো মামলা হয়েছে কিনা, তা পরিবারটির জানা নেই৷

অডিও সাক্ষাৎকারটি শুনে অনুমান করুন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনের তথ্যগুলো কতটা সঠিক, গাইবান্ধার এক প্রত্যন্ত অঞ্চলের কিছু হিন্দু পরিবার আসলে কেমন আছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়