1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

প্রাচীন মানবের প্রথম পূর্ণাঙ্গ জিন বিশ্লেষণ

গ্রিনল্যান্ডের এক আদি বাসিন্দার চুল থেকে সম্ভব হল প্রাচীন মানবের প্রথম পূর্ণাঙ্গ জিন বিশ্লেষণ৷ প্রায় ৪,০০০ বছর আগে গ্রিনল্যান্ডের পশ্চিম উপকূলে বসবাস করতো ওই মানুষ৷ এ গবেষণা জিন প্রযুক্তির অনেক নতুন পথ উন্মোচন করেছে৷

default

জিন প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণারত এক বিজ্ঞানী

কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মর্টেন রাসমুসেন এবং অধ্যাপক এসকে ভিলারস্লাভের নেতৃত্বে গবেষকরা প্রাচীন মানবের চুলের ডিএনএ থেকে এই জিন বিশ্লেষণ করেন৷ গ্রিনল্যান্ডের পশ্চিম উপকূলের কেকারতাসুসুকে বরফের মধ্যে জমে থাকা অবস্থায় ওই মানুষটির চারটি চুল পাওয়া গিয়েছিল৷ ১৯৮৬ সালে অন্যান্য প্রাচীন বর্জ্যের সঙ্গে ওই চুলগুলো উদ্ধারের পর তা ডেনমার্কের জাতীয় জাদুঘরে সংরক্ষিত ছিল৷

বিজ্ঞানীরা গত বছর ‘নিয়ানডার্থাল' মানুষ বা প্রায় ৩০ হাজার বছর আগে বিলীন হয়ে যাওয়া প্রাচীন মানবগোষ্ঠীর এক সদস্যের জিন গবেষণায় সক্ষম হন৷ এর আগে প্রাচীন হাতি বা ম্যামথের শুকিয়ে যাওয়া চুলের ডিএনএ গবেষণাও হয়েছে৷ কিন্তু কোনো প্রাচীন মানুষের পূর্ণাঙ্গ জিন বিশ্লেষণ এই প্রথম৷ আর পূর্ণাঙ্গ জিন বিশ্লেষণ হয়েছে মানব ইতিহাসে এমন নবম ব্যক্তির মর্যাদা পেলেন গ্রিনল্যান্ডের ওই আদি মানব৷ কেননা, জানামতে এখন পর্যন্ত বর্তমান মানব প্রজাতির মাত্র আট জনের পূর্ণাঙ্গ জিন বিশ্লেষণ হয়েছে৷

এই গবেষণা থেকে নতুন ধারণা পাওয়া গেছে সুমেরু অঞ্চল এবং উত্তর অ্যামেরিকায় প্রাচীন মানুষের অভিবাসন সম্পর্কেও৷ আশ্চর্যের বিষয় হল এই মানুষের আদি বসতি ছিল সাইবেরিয়ায় এবং আধুনিক গ্রিনল্যান্ডের মানুষদের সঙ্গে তাঁর কোনো যোগসূত্রই ছিল না৷ নেচার সাময়িকীতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে গবেষকরা জানিয়েছেন, ‘‘এ থেকে প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, প্রায় ৫,৫০০ বছর আগেই সাইবেরিয়া থেকে নতুন বিশ্বের দিকে অভিবাসন করেছিল মানুষরা৷ যা কিনা আধুনিক আদি অ্যামেরিকান এবং ইনুয়িট'দের উত্থান থেকে স্বতন্ত্র৷''

গ্রিনল্যান্ডের এই বাসিন্দা ছিলেন প্যালেও-এস্কিমো সংস্কৃতির মানুষ যাদেরকে প্রত্নতত্ত্ববিদরা ‘সাক্কাক' বলে অভিহিত করে থাকেন৷ এই মানবের ‘জেনোম' বা জিন সঙ্কেতকে ভিত্তি হিসেবে ধরে বিজ্ঞনীরা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, ‘সাক্কাক'দের নিকটতম জীবিত জ্ঞাতিগোষ্ঠী হচ্ছে সাইবেরিয়ার সবচেয়ে পূর্ব উপকূলে বসবাসকারী সম্প্রদায় ‘চুকচিস'রা৷

বিজ্ঞানীরা বলছেন, তাঁর পূর্বপুরুষরা ৫,৫০০ বছর আগে ‘চুকচিস' সম্প্রদায় থেকে আলাদা হয়ে যান এবং উত্তর অ্যামেরিকার আর্কটিক অঞ্চল পেরিয়ে কোনো এক সময়ে গ্রিনল্যান্ডে পৌঁছান৷

30.09.2009 DW-TV Fit & Gesund gene und gewicht2

মানব দেহের জিন বিন্যাস এখনও কৌতুহলের বস্তু

গবেষক দলের অন্যতম সদস্য ক্যানসাস বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং মেরু অঞ্চলের জনবসতি বিষয়ক বিশেষজ্ঞ মাইকেল এইচ ক্রফোর্ড জানান উত্তর আমেরিকায় সাক্কাক জনগোষ্ঠীর কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি৷ অর্থাৎ সাইবেরিয়া থেকে আসা ‘চুকচিস'রা বেরিং প্রণালীর সেই সময়ের ‘ভূমিসেতু' বা সংযুক্ত ভূখণ্ড দিয়ে উত্তর আমেরিকার আলাস্কা উপকূলে আসেননি৷ তারা হয়তো শীতকালীন বরফের ওপর দিয়ে কিংবা মাছ ধরার নৌকো দিয়ে সুমেরু অঞ্চল পেরিয়ে গ্রিনল্যান্ডে গিয়েছেন৷

এই সাক্কাক মানবের জিন সঙ্কেত এতোটাই সম্পূর্ণ যে, ডেনিশ গবেষকরা তাঁর একটা সম্ভাব্য মুখচ্ছবিও নির্মাণ করতে পারছেন৷ তাঁর শরীরের রোগ সম্পর্কেও ধারণা পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা৷ তারা বলছেন, সম্ভবত বাদামি রঙের চোখ ছিল এই মানুষটির৷ কেননা, জিন বিন্যাসের যে চারটি উপাদান থাকার কারণে পূর্ব এশীয় মানুষদের বাদামি চোখ হয় তারও জিন বিন্যাস সেই রকম৷ এছাড়া তার শরীরে পাওয়া গেছে ‘ইএডিআর' নামের এক ধরণের জিন৷ যা থাকার কারণে পূর্ব এশীয়দের চুল মোটা হয়ে থাকে, যেমনটা সাধারণ ইউরোপীয় বা আফ্রিকানদের মধ্যে দেখা যায় না৷

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই গবেষণার মধ্য দিয়ে ব্যক্তিগত জিন ইতিহাসের জগতে কিছুটা হলেও প্রবেশ করতে পেরেছেন তারা৷ তারা বলছেন, এই সাক্কাক মানবের সম্ভবত চুলপড়া রোগ ছিল এবং তিনি হয়তো অল্প বয়সেই টেকো হয়ে গিয়েছিলেন৷

এই গবেষণার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের স্যান ডিয়েগোর প্রতিষ্ঠান ইলুমিনার তৈরি অগ্রসর প্রযুক্তির ডিএনএ সিকোয়েন্সিং পদ্ধতি ব্যবহার করেছেন বিজ্ঞানীরা৷ আর প্রাচীন মানুষের ডিএনএ সিকোয়েন্সিংয়ের ক্ষেত্রে যে ঝুঁকিটি সবসময়ই থাকে তা হল সংক্রমণের ঝুঁকি৷ অর্থাৎ, গবেষক বা অন্য কোনো আধুনিক মানুষের সংস্পর্শে ডিএনএ নমুনায় সংক্রমণের ঝুঁকি৷ কিন্তু বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই গবেষণায় এমন কিছু হয়নি বলে নিশ্চিত তারা৷ কেননা শুরু থেকেই এ নিয়ে অত্যন্ত সচেতন ছিলেন তারা৷

প্রতিবেদন : মুনীর উদ্দিন আহমেদ

সম্পাদনা : আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়