1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

প্রাচীন প্রত্নতাত্ত্বিক নির্দশন উদ্ধারের ডাক দিল মিশর

লুট হয়ে যাওয়া প্রাচীন প্রত্নতাত্ত্বিক নির্দশন উদ্ধার করতে সকলকে একসঙ্গে কাজ করার জন্য আহ্বান জানিয়েছে মিশর৷

default

মিশরের একটি প্রত্নতাত্ত্বিক নির্দশন

মিশরের প্রধান প্রত্নতত্ত্ববিদ জাহি হাওয়াস দেশের বাইরের থেকে পুনরুদ্ধারকৃত প্রাচীন হাতিয়ারের ওপর আয়োজিত এক আর্ন্তজাতিক সম্মেলনে এই ডাক দেন৷ হাওয়াস বলেন, ‘‘আমাদের পরস্পরকে সহায়তা করা উচিৎ, আর এরজন্যই আমাদের দেশগুলোর একাত্রীকরণ প্রয়োজন''৷ কায়রোয় অনুষ্ঠিত এই সম্মেলনে যোগ দেন ২১টি দেশের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের কর্মকর্তা, উপ- সংস্কৃতি মন্ত্রী এবং জাদুঘরের মহাপরিচালক৷

হাওয়াস বলেন, ‘‘প্রতিটি দেশই লড়ছে, প্রতিটি দেশই ভুগছে আর বিশেষ করে ভুগছে মিশর''৷ তিনি বলেন, আমাদের একসাথে লড়তে হবে, হয়ত আমরা জীবিতকালে পূর্ণ সাফল্য পাব না, কিন্তু আমাদের যেতে যেতেই হবে৷

মিশরীয় সুপ্রিম কাউন্সিল অব এন্টিকুইটিস (এসসিএ) এর প্রধান হাওয়াস সম্মেলনে আসা প্রতিনিধিদের নির্দেশ দিয়েছেন হারানো আর লুট হয়ে যাওয়া প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের তালিকা তৈরি করতে৷ যেগুলো বিদেশি সব জাদুঘরগুলোতে প্রদর্শিত হচ্ছে৷

গ্রিস সাংস্কৃতিক হেরিটেজের প্রধান এলিনা করকা বলেন, দেশগুলোর একসাথে কাজ করার জন্য এই সম্মেলন ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ ৩০ বছর ধরে এথেন্স লন্ডনের সাথে লড়ছে ব্রিটিশ মিউজিয়ামে প্রদর্শিত তাদের এলগিন মার্বেলের জন্য৷ আর মিশর লড়ছে ব্রিটেনে থাকা রোসেটা স্টোন এবং জার্মানিতে থাকা নেফারতিতির আবক্ষমুর্তির জন্য৷

১৯৭০ সালে জাতিসংঘের ইউনেস্কোর ঘোষণা করে রপ্তানি করে আনা বা চুরি করে আনা কোন প্রত্নত্ত্বাতিক নিদর্শন ব্যক্তিগতভাবে রাখা যাবে না৷ ঐ ঘোষণানুযায়ী, ১৯৭০ সালের পর যে সব প্রত্নতাত্ত্বিক নির্দশন পাচার হয়েছে তা ফিরিয়ে আনাও এই সম্মেলনের মূল লক্ষ্য৷

চলতি বছরের মার্চ মাসে ব্রিটেন মিশরের পচিঁশ হাজার প্রত্নতাত্ত্বিক নির্দশন ফেরত দিয়েছে৷ এর মধ্য রয়েছে দুই লক্ষ বছর আগের এক্স পাথর এবং সপ্তম শতাব্দের কিছু মৃৎশিল্প৷ তবে, হাওয়াস ব্রিটিশ মিউজিয়ামে প্রদর্শিত দু'শো বছর আগের রোসেটা স্টোন এবং জার্মানির বার্লিনে নয়েস জাদুঘরে রাখা তিন হাজার চারশ বছর আগের নেফারতিতির আবক্ষমুর্তি ফেরত পাবার আশা করছেন৷ ২০০২ সালে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রধান হওয়ার পর থেকে হাওয়াস মিশরের ৩১,০০০ টি নিদর্শন বিভিন্ন দেশ থেকে ফিরিয়ে এনেছেন৷

সম্মেলনে ৩০টি দেশের প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানানো হলেও ২১টি দেশের প্রতিনিধিরা এতে অংশ নেন৷ দেশগুলো হচ্ছে- অস্ট্রিয়া, বলিভিয়া, চিলি, চীন, সাইপ্রাস, ইকুয়েডর, গ্রিস, গুয়েতেমালা, হন্ডুরাস, ভারত, ইটালি, লুবিয়া, মেক্সিকো, নাইজিরিয়া, পেরু, পোল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া, স্পেন, শ্রীলংঙ্কা, সিরিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র৷

প্রতিবেদক : আসফারা হক

সম্পাদনা : সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়