1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

প্রাচীন নক্ষত্রের সন্ধান, মহাবিশ্ব সৃষ্টির নতুন তথ্য

বিগ ব্যাং ঠিক কত বছর আগে হয়েছিল, অর্থাৎ মহাবিশ্বের সৃষ্টি ঠিক কত কোটি বছর আগে – এটা নিয়ে আছে নানা জল্পনা কল্পনা৷ অস্ট্রেলীয় বিজ্ঞানীদের নতুন নক্ষত্রের সন্ধান এই পথে কিছুটা আলো দেখাতে পারে৷

অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি রিসার্চ স্কুলের প্রধান গবেষক ড. স্টেফান কেলার রয়টার্সকে বলেছেন, তাঁরা মহাবিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন নক্ষত্রের সন্ধান পেয়েছেন৷ প্রায় ১১ বছর অনুসন্ধানের পর মহাবিশ্বের প্রথম নক্ষত্রের রাসায়নিক ফিঙ্গারপ্রিন্ট পায় তাঁর দল৷ স্প্রিং অবজারভেটরি থেকে স্কাইম্যাপার টেলিস্কোপের মাধ্যমে এর দেখা পান তাঁরা৷

কেলার জানান, ‘‘১৩.৭ বিলিয়ন বছর আগে বিগ ব্যাং হওয়ার ঠিক পরেই এই নক্ষত্রের জন্ম৷ বিশ্বব্রহ্মাণ্ড সৃষ্টির রহস্য সম্পর্কে এটি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে দিতে পারে৷ এর ফলে আমাদের জীবন ধারণের জন্য উপযোগী যে সব পদার্থ আশপাশে রয়েছে সেগুলো কোথা থেকে এলো, এ সম্পর্কতেও ধারণা পাওয়া যেতে পারে৷''

পৃথিবী থেকে এই নক্ষত্রের দূরত্ব প্রায় ৬,০০০ আলোকবর্ষ৷ কেলার জানান, ‘‘আমরা এটি বিশ্লেষণ করে যেসব উপাদান পেয়েছি, তা থেকে এটা নিশ্চিত এটি প্রথম প্রজন্মের নক্ষত্র৷ আর এর ভর সূর্যের ভরের ৬০ গুন৷''

ধারণা করা হত মহাকাশে লৌহের দূষণের কারণে বিস্ফোরণের মাধ্যমে নক্ষত্রের মৃত্যু হত৷ কেলার জানালেন, ‘‘এই নক্ষত্রের ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে সেই দূষণ খুব কম মাত্রায় হয়েছে৷ হালকা মাত্রার উপাদান অর্থাৎ কার্বন বা ম্যাগনেসিয়াম দ্বারা দূষিত হয়েছে, যেখানে আয়রন বা লৌহের কোন উপাদান পাওয়া যায়নি৷ এর অর্থ প্রথম দিককার নক্ষত্রগুলো কেবল বিশুদ্ধ হাইড্রোজেন এবং হিলিয়ামের তৈরি৷''

কেলার আরও জানান, ‘‘এই নক্ষত্রের আবিষ্কারের ফলে আরও কয়েকটি জিনিস জানা গেছে৷ এক একটি নক্ষত্র পেয়াঁজের মত৷ অর্থাৎ এর ভেতরে নানা স্তর রয়েছে৷ আর আয়রন-এর মত ভারী পদার্থ থাকে একদম ভেতরে৷ তাই সুপারনোভার সময় কেবল বাইরের স্তরে থাকা কার্বন আর অল্প পরিমাণ ম্যাগনেসিয়াম নিঃসৃত হয়৷'' ‘নেচার' জার্নাল-এর সবশেষ সংস্করণে এই গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে৷

এপিবি/এসবি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন