1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

প্রাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের পরিণতি

প্রায় ৮০ শতাংশ ছাত্রী জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার কালে কোন না কোন সময় তারা সবাই মুখোমুখি হয়েছিল যৌন হয়রানির৷ এবং তা ঘটে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই৷

default

ফ্রাঞ্জ কাফকার শহর প্রাগ

সম্প্রতি চেক প্রজাতন্ত্রের রাজধানী প্রাগে মেয়েদের ওপর যৌন হয়রানির বিষয়টি নিয়ে একটি জরিপ চালানো হয় ৷ একটি গবেষক দল প্রাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের যৌন হয়রানির বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করে৷

লেঙ্কা একজন ছাত্রী৷ সে বলল, যৌন বিষয়ক কৌতুক বা তা নিয়ে হাসাহাসি করা প্রাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে নিত্যদিনের ঘটনা, এমন অভিযোগ ছাত্রীদের৷ অধ্যাপকরাই এ ব্যাপারে আগ্রহ দেখান বেশি৷ লক্ষ্য, ক্লাসকে আরো আকর্ষণীয় করা৷

Deutschland Tschechien Dominika Huzvarova zur Miss EM gewählt

সুন্দরীদের দিকে হাত বাড়াচ্ছেন অধ্যাপকরা

লেঙ্কার বয়স ২৫, সমাজবিজ্ঞান বিষয় নিয়ে সে পড়ছে৷ অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢোকার আগে সম্পূর্ণ অন্য এক চিত্র ছিল তাঁর মনে৷ ছাত্রীদের লক্ষ্য করে অধ্যাপকদের নোংরা মন্তব্য কোন অবস্থাতেই লেঙ্কা আর সহ্য করতে পারছে না৷ লেঙ্কা আরো বলল, আমি এবং আমার বেশ কিছু বান্ধবী ঠিক করেছি কয়েকজন প্রফেসরের ক্লাসে আর যাব না৷ সোজা বয়কট৷ কারণ আমরা মনে করি যে সব নোংরা কথা তারা বলেন আর কটুক্তি করেন তা আমাদের জন্য অপমান ছাড়া আর কিছুই না৷ পর পর কয়েকটি অশ্লীল কৌতুক বা ঘন্টায় ঘন্টায় নোংরা কটুক্তি - সত্যিই বিরক্তিকর৷

টিউশন ফি বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে লেঙ্কা আর তাঁর বান্ধবীরা ক্লাশ বয়কট করছে কিনা তা-ও খতিয়ে দেখা হয়েছে৷ কিন্তু সেটা মোটেও কোন কারণ ছিল না৷ গবেষকদের দল শুধু প্রাগের কার্লস বিশ্ববিদ্যালয় নয় আরো বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে এই জরিপ চালিয়েছে৷ জরিপে অংশগ্রহণ করেছে প্রায় সাড়ে আটশ ছাত্রী৷ সবাইকে মুখোমুখি হতে হয়েছিল অপ্রিয় একটি প্রশ্নের৷ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যৌন হয়রানির শিকার তারা হয়েছিল কি না৷ প্রায় ৭৮ শতাংশের উত্তর ছিল ‘হ্যাঁ'৷ তারা নিজেরাই এর শিকার অথবা তাদের চোখের সামনে এ ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে৷ পাঠ্য বিষয় সম্পর্কে পরামর্শ দেয়ার অজুহাতে অধ্যাপক ছাত্রীকে বাড়িতেও আমন্ত্রণ জানান৷ ইরিনা স্মেটাচকোভা বললেন, প্রায়ই দেখা যায় ছাত্রীদের বাড়িতে আমন্ত্রণ জানিয়েছে প্রফেসররা৷ এবং বেশ স্বাভাবিকভাবেই, সরাসরি৷ কোন লুকোচুরি নেই৷ বিশেষ করে ইমেল বা এসএমএস- এর মাধ্যমে এই আমন্ত্রণগুলো আসে অনেক বেশি৷ অনেক ছাত্রীই তখন বুঝে উঠতে পারে না কি বলবে, জবাব কি হতে পারে ! অনেকে ভীষণ ভয় পায় এই ভেবে যে যদি প্রফেসরের বাড়িতে না যায় তাহলে হয়তো পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেবে৷

Besucher in historischen Kostümen in Tschechien

ছাত্র-ছাত্রীরা গ্রীষ্মের আনন্দ উৎসবে

ক্যাটারিনা কোলারোভা এই জরিপ চালানোর মূল উদ্যোক্তা৷ তিনি জানান, এর চেয়েও অনেক নিকৃষ্ট ঘটনা ঘটে থাকে৷ তিনি জানান, কোন কোন প্রফেসর ছাত্রীদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করতে চান৷ শুধু তাই নয়, কোন্ বিশেষ বিশেষ আসন ব্যবহার করে তারা ভোগ করতে চায় সেকথাও তারা স্পষ্টভাবে ছাত্রীদের জানান৷ এর বিনিময়ে ছাত্রীরা পাবে সেই নির্দিষ্ট বিষয়ে তাদের কাংখিত নম্বর৷

প্রশ্ন উঠতে পারে এজন্য কোন প্রফেসর কি তাঁর চাকরি হারাতে পারেন ? তাঁকে কি জবাবদিহি করতে হতে পারে ? বিশ্ববিদ্যালয় বোর্ড কি তা জানে ? সমাজবিজ্ঞানী স্মেটাচকোভা জানালেন, এদেশে কোন পুরুষ যদি কোন মহিলাকে যৌন হয়রানি করে তাহলে তা খুব একটা গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয় না৷ এমন কি রাজনীতিকরাও এ বিষয় নিয়ে তেমন কোন কথা বলেন না৷ সবাই মনে করে এ ধরণের ঘটনা খুবই স্বাভাবিক৷ অনেকের কাছে এসব ঘটনা যেন বিনোদনের মত৷ তারা বুঝতে চায় না বা পারে না যে এর ফলে ছাত্রীদের ওপর মানসিক চাপ কি প্রচন্ড রকমের হতে পারে৷

তবে সবকিছুর পরিবর্তন দেখতে চান স্মেটাচকোভা৷ প্রাগের এই সমাজবিজ্ঞানী বিভিন্ন প্রচারপত্র বিতরণ করছেন, জানিয়ে দিচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ে কিভাবে চলতে হবে, ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে সম্পর্ক কেমন হতে হবে৷ কিন্তু শুধু এই প্রচারপত্র বিতরণই যথেষ্ঠ নয়৷ তিনি জানান, শুধু এই সব লিফেলেট নয়, অন্যভাবেও বিশ্ববিদ্যালয় সংক্রান্ত আইনের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়া হবে৷ সেক্ষেত্রে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টরের দায়িত্ব হবে সে অনুযায়ী কাজ করা৷ আমরা কোন অবস্থাতেই ছাত্রীদের ওপর কোন রকম যৌন হয়রানি মেনে নেব না৷

এর কিছুটা ফল পেতে শুরু করেছে প্রাগ বিশ্ববিদ্যালয়৷ গত নভেম্বর মাসে একজন ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অপরাধে এক অধ্যাপক তাঁর চাকরি হারান৷ ছাত্রীকে অধ্যাপক জোর করে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান, জোর করে ছাত্রীর কাপড় খোলার চেষ্টা করেন তিনি৷ ভয়ে ছাত্রীটি দুই বছর কাউকে কিছু জানায়নি৷ কৃত অপরাধের জন্য শাস্তি পেতে দু বছর অপেক্ষা করতে হয়েছিল অধ্যাপকটির৷

প্রতিবেদক: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদক: আবদুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়