1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

প্রথমবারের মত নাবিক পেশায় ১৩ বাংলাদেশি নারী

চলতি মাসেই বাংলাদেশের নারীরা বাণিজ্যিক জাহাজে নাবিক হিসেবে কাজ শুরু করবেন৷ এর আগে বিমানের পাইলট, পুলিশ ও সশস্ত্রবাহিনীতে নারীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হলেও বাণিজ্যিক জাহাজে নারী নাবিকের কাজ বাংলাদেশে এই প্রথম৷

Kreuzfahrtschiff MS Delphin

প্রতীকী ছবি

প্রথম ব্যাচে মোট ১৩ জন নাবিক যোগ দিচ্ছেন বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের বিভিন্ন জাহাজে৷ গত ডিসেম্বরে তাঁরা বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি থেকে ক্যাডেট হিসেবে তাদের প্রশিক্ষণ শেষ করেছেন৷ তারা জাহাজে মেরিন অফিসার হিসেবে যোগ দিচ্ছেন৷

বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমোডর মকসুমুল কাদের ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাণিজ্যিক জাহাজে নারীদের মেরিন অফিসার হিসেবে চাকরি বাংলাদেশে নতুন এক ইতিহাস৷ বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের প্রতিটি জাহাজে দু'জন করে নারী মেরিন অফিসার নিয়োগ দেয়া প্রক্রিয়া শুরু করেছে৷ মেরিন একাডেমি থেকে প্রশিক্ষণ শেষ করে ১৩ জন নারী মেরিন ক্যাডেট জাহাজে চাকরির জন্য আবেদন করেছেন৷ তাদের আবেদন বিবেচনা করা হচ্ছে৷''

তিনি জানান, তাদের নিয়োগ চূড়ান্ত হতে আরো এক বছর লাগবে৷ এখন তাঁরা ক্যাডেট হিসেবে শিপিং কর্পোরেশনে যোগ দিয়ে এক বছরের প্রশিক্ষণ নেবেন৷ তারপর বিভিন্ন জাহাজে তাদের নিয়োগ দেয়া হবে৷

জানা গেছে, সমুদ্রগামী জাহাজে নাবিক পদে বিশ্বের প্রথম নারী হিসেবে ১৯৪৫ সালে যোগ দিয়েছিলেন সুইডিশ এক নারী৷ পরবর্তী সময়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রায় আড়াই জাহাজে অফিসার পদে যোগ দিলেও এত দিন বাংলাদেশি নারীদের কোনো সুযোগ ছিল না৷

মেরিন প্রশিক্ষণে নারী ক্যাডেট সংখ্যা বাড়ানোর জন্য ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অরগানাইজেশন (আইএমও) নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করায় ২০১২ সালে মেরিন প্রশিক্ষণ শুরু হয়৷ গত ডিসেম্বরে বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি থেকে নটিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং দুই শাখায় মোট ১৩ জন নারী ক্যাডেট প্রশিক্ষণ শেষ করেন৷ আর বর্তমানে দ্বিতীয় ব্যাচে তিনজন নারী ক্যাডেট রয়েছেন৷

বাংলাদেশ মেরিন একাডেমির কমান্ড্যান্ট ড. সাজিদ হোসাইন বলেন, ‘‘বিভিন্ন বাধা-বিঘ্ন অতিক্রম করে এ দেশে প্রথমবারের মতো নারী মেরিন অফিসার সমুদ্রগামী জাহাজে যোগ দিতে যাচ্ছেন৷ বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন এসব নারী মেরিন অফিসারকে চাকরির সুযোগ করে দিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করল৷''

জাহাজে নারীদের চাকরির সুযোগ প্রসঙ্গে ভারতের উদাহরণ দিয়ে ড. সাজিদ বলেন, ‘‘এই পেশায় নারীদের উত্‍সাহিত করতে ভারত নারীদের জন্য প্রশিক্ষণ ফি ৫০ ভাগ কমিয়েছে আর বয়স দুই বছর শিথিল করেছে৷ ফলে ভারতে ক্ষেত্রে নারী ক্যাডেটের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে৷''

তিনি জানান, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নারী নাবিকরা আগে থেকেই কাজ করছেন৷ এবার বাংলাদেশও সেই তালিকায় স্থান করে নিচ্ছে৷

এদিকে নারী নেত্রী এ্যাডভোকেট এলিনা খান নাবিক পেশায় প্রথম যোগ দিতে যাওয়া নারীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘‘তাদের দেখে বাংলাদেশের নারীরা আরো এগিয়ে যাবেন৷''

তবে তিনি মনে করেন, তাদের নিরাপত্তার বিষয়ে শিপিং কর্পোরেশনসহ সরকারকে খেয়াল রাখতে হবে৷ তৈরি করতে হবে প্রয়োজনীয় নীতিমালা৷ আর কর্মক্ষেত্রে তারা যেন জেন্ডার বৈষম্যের শিকার না হন৷ আর নারী নাবিকদেরও মনে রাখতে হবে তারা নাবিক৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন