1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কারে লেজার প্রযুক্তির প্রয়োগ

অতীতের সভ্যতার হারানো নিদর্শন আবার ফিরে পাবার আশা এতকাল অবাস্তব মনে হতো৷ এবার আধুনিক লেজার প্রযুক্তির সাহায্যে সেই রহস্য উন্মোচনের কাজ অনেক সহজ হয়ে উঠেছে৷ রোমান আমলে নির্মিত এক বিশাল এলাকা আবার জীবন্ত হয়ে উঠছে৷

অতীতের রহস্য সমাধানের লক্ষ্যে গবেষকরা আকাশে পাড়ি দিচ্ছেন৷ আধুনিক লেজার প্রযুক্তির কল্যাণে সেখান থেকে অচেনা নির্মাণ কাঠামো চিহ্নিত করা সম্ভব৷ লেজার স্ক্যানার গাছপালা, ঝোপঝাড়, ঘাসের আড়ালে জমি দেখতে পায়৷ সেটাই হলো কৌশল৷

এই পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে ইউরোপের একদা সবচেয়ে বড় নির্মাণের নিদর্শন নতুন করে খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল৷ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে লাইমেস-এ রোমান আমলের সেই সীমান্ত প্রাচীর অনেক জায়গায় অদৃশ্য হয়ে পড়েছিল৷ প্রত্নতাত্ত্বিক মার্টিন শাইখ বলেন, ‘‘সাধারণ মানুষের চোখে পড়ে না, এমন ফ্ল্যাট চিহ্নও ফুটে ওঠে৷ লেজার স্ক্যানের মাধ্যমে অবশ্য তা অত্যন্ত স্পষ্ট দেখা যায়৷ অবশিষ্ট অংশ চোখে পড়ে৷ হয়তো মাটির ১০ সেন্টিমিটার উপরে থাকা সত্ত্বেও তা জঙ্গলে ঢেকে যায়৷ তার উপর দাঁড়ালে এমনকি বিশেষজ্ঞও সেটি চিনতে পারেন না৷''

কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে বড় এলাকা স্ক্যান করা যায়৷ আলোর গতিতে যন্ত্র মাটি থেকে দূরত্ব পরিমাপ করে৷ সেই তথ্য বিশ্লেষণ করে বোঝা যায়, সাধারণ গাছপালার নীচে বড় আকারের কোনো কাঠামো আছে কিনা৷ মার্টিন বলেন, ‘‘লাইমিস নিয়ে গবেষণার ১০০ বছরেরও বেশি পুরানো দীর্ঘ ইতিহাস আছে৷ কেউ ভাবে নি, যে নতুন কিছু পাওয়া যাবে৷ তা সত্ত্বেও নতুন টাওয়ার, রক্ষীদের টাওয়ার, কাঠের বাড়িঘরের চিহ্ন উদ্ধার হয়েছে৷ ছোট কিছু দুর্গও আবিষ্কার করা গেছে৷ অর্থাৎ এই তথ্য ঘেঁটে নতুন কিছু পাবার সম্ভাবনা রয়েছে৷''

২,০০০ বছর আগে প্রায় ৫৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ এই বিশাল কাঠামো তৈরির কাজ শেষ হয়েছিলো৷ প্রায় ৯০০ রক্ষীর চৌকি ছাড়াও সেখানে ছিল ১২০টি ছোট-বড় চত্বর৷ এই কাঠামো বহিরাগতদের হামলা মোকাবিলার জন্য নির্দিষ্ট ছিল৷ প্রকৃতি তার প্রায় পুরোটাই গ্রাস করে নিয়েছে৷

লেজার স্ক্যানারের তথ্য না থাকলে তা জানা যেত না৷ তার ভিত্তিতে অচেনা রক্ষীদের টাওয়ার আবার ভার্চুয়াল উপায়ে নির্মাণ করা সম্ভব৷ ধ্বংস হয়ে যাওয়া টাওয়ার অবিকল আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা যেতে পারে৷ গবেষকদের জন্য এ একেবারে নতুন এক অভিজ্ঞতা৷ যেমন এভাবে রোমান সাম্রাজ্যের প্রতিরক্ষা বলয়ের উপর নতুন করে আলোকপাত করা সম্ভব৷ মার্টিন শাইখ বলেন, ‘‘টাওয়ারগুলির মধ্যে যোগাযোগ, কে কোন এলাকার দায়িত্ব পেয়েছিল – আমাদের কাছে যে থ্রিডি তথ্য রয়েছে, তা থেকে এ সব স্পষ্ট হয় যায়৷ সেই তথ্য দিয়ে প্রত্নতত্ত্বের কাজ আরও গভীরভাবে করার রোমাঞ্চই আলাদা৷

লেজার-ভিত্তিক বিশ্লেষণ লাইমেস-এর দীর্ঘদিনের রহস্য উন্মোচন করেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক