1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আলাপ

‘প্রতিরক্ষা শব্দটিই যেন ধরাছোঁয়ার বাইরে’

প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা খাতে দুর্নীতির সূচকে বাংলাদেশকে ‘উচ্চ ঝুঁকি’ ক্যাটাগরিতে রেখেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল, টিআই৷ এই খাত দু’টির তথ্য গোপন রাখার প্রবণতা এর কারণ বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক এই সংস্থা৷

টিআই এর যুক্তরাজ্য শাখার প্রকাশিত ‘গভর্নমেন্ট ডিফেন্স অ্যান্টি-করাপশন ইনডেক্স ২০১৫'-তে বাংলাদেশকে ‘ব্যান্ড ডি'-তে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে৷ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রতিরক্ষা খাতের অবস্থান বিবেচনায় নিয়ে দেশগুলোকে এ, বি, সি, ডি, ই এবং এফ – এই ছয় ক্যাটাগরিতে স্থান দেয়া হয়েছে৷ বাংলাদেশের চেয়েও খারাপ অবস্থা বিরাজ করছে ‘ই' আর ‘এফ', অর্থাৎ ‘অতি উচ্চ ঝুঁকি' ও ‘সংকটাপন্ন' ক্যাটাগরিতে থাকা দেশগুলোতে৷

সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান বোঝাতে গিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ বা টিআইবি-এর নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘বাংলাদেশে প্রতিরক্ষা ব্যয় দিন দিন বাড়ছে৷ কিন্তু সেই তুলনায় এই খাতে স্বচ্ছতা আর জবাবদিহিতার ঘাটতি রয়েছে৷ জনগণের জন্য জনগণের অর্থে প্রতিরক্ষা খাত পরিচালিত হলেও জনগণের কাছে তথ্য প্রকাশের বিষয়টি খুবই দুর্বল৷''

অডিও শুনুন 09:43

‘তথ্য যত গোপন করা হয় তত বেশি দুর্নীতির ঝুঁকি থাকে’

তিনি বলেন, ‘‘তথ্য যত গোপন করা হয়, তথ্য যত প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকে, তত বেশি দুর্নীতি বা অনিয়মের ঝুঁকি থাকে বলে ধারণা করা হয়৷ বাজেট বক্তৃতায় শুধু গত বছর প্রতিরক্ষা খাতে বাজেট কত ছিল, আর এবার সেটা কত হয়েছে, তা জানানো হয়৷ এর বেশি কোনো তথ্য প্রকাশিত হয় না৷'' অবশ্য ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘‘টিআই-এর প্রতিবেদন বলছে না যে, এখানে দুর্নীতি হচ্ছে, যেটা বলছে যে, দুর্নীতির ঝুঁকি সৃষ্টি হচ্ছে৷''

বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা খাত সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে তথ্য অধিকার আইনের বাইরে রাখা হয়েছে৷ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘বিশ্বের যেসব দেশে তথ্য অধিকার আইন রয়েছে সেগুলোর প্রতিটিতেই একটি ‘অব্যাহতি তালিকা', অর্থাৎ আইনের বাধ্যবাধকতা বহির্ভূত একটি তালিকা থাকে৷ বাংলাদেশের বেলায়ও সেটি আছে৷ কিন্তু বিষয়টি হচ্ছে আমাদের তালিকাটা দীর্ঘ৷ এ ব্যাপারে নাগরিক সমাজ সবসময় উদ্বেগ প্রকাশ করে এসেছে৷''

টিআইবি-র এই কর্মকর্তা মনে করেন, বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে প্রতিরক্ষা খাত সংশ্লিষ্ট তথ্য জানার অধিকার জনগণের রয়েছে৷ আর সেটি নিশ্চিত করার সর্বোচ্চ মাধ্যম হলো জাতীয় সংসদ৷ ‘‘সেই জাতীয় সংসদের কতখানি এক্তিয়ার রয়েছে, কতখানি পর্যবেক্ষণের চর্চা রয়েছে, সেটা কিন্তু নিরূপণ করে দেয় প্রতিরক্ষা খাত কতখানি জনগণের কাছে জবাবদিহিতা করছে৷ আমাদের বেলায় যেটা দেখা যাচ্ছে, আমাদের একটি প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটি আছে, কিন্তু সেই কমিটির বাস্তবে খুব কার্যকারিতা আছে বলে কেউ মনে করেন না৷ এই বিষয়টিরও প্রতিফলন ঘটেছে টিআই এর প্রতিবেদনে'', বলেন ড. ইফতেখারুজ্জামান৷

সংসদীয় কমিটির এমন হাল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘প্রতিরক্ষা শব্দটিই যেন ধরাছোঁয়ার বাইরে৷ এই যে একটি সংস্কৃতি, সেটা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি এখনও৷'' তবে এই পরিবেশ পরিবর্তনের সুযোগ আছে এবং সরকারই সেই সুযোগ তৈরি করেছে বলে জানান তিনি৷ ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘‘সরকারের একটি ‘জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল' আছে৷ এর মধ্যে যেসব প্রতিষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত আছে সেখানে প্রত্যক্ষভাবে প্রতিরক্ষা খাত না তাকলেও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এই শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নের জন্য একটি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে, যা একটি সুসংবাদ৷''

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের ইউকে চ্যাপ্টার বেশ কয়েকবছর ধরে প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা খাতে দুর্নীতি বিষয়ে সূচক প্রকাশ করছে৷ তবে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশকে দু'বার সম্পৃক্ত করে এই সূচক প্রকাশিত হয়েছে৷ সবশেষটি প্রকাশ হয় ২০১৫ সালের নভেম্বর মাসে৷ বাংলাদেশের মতো একই ক্যাটাগরিতে আছে ভারত, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন্স, রাশিয়া, পর্তুগাল, দক্ষিণ আফ্রিকা, তুরস্কের মতো দেশ৷ আর বাংলাদেশের চেয়েও খারাপ অবস্থায় আছে শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, মিয়ানমার, কম্বোডিয়া, চীন ও থাইল্যান্ড সহ অন্যান্য দেশ৷

ড. ইফতেখারুজ্জামানের এই সাক্ষাৎকারটি আপনার কেমন লাগলো? নীচের ঘরে জানান আপনার মতামত৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়