1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগওয়াচ

প্রতিবাদের নামে উল্টে ফেলা হলো ভাস্কর্য

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সব ভাস্কর্য উল্টে ফেলে রাখা হয়েছে৷বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা মনে করছেন এ ঘটনায় শিক্ষার্থীরাই জড়িত৷ তবে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নানা ধরনের মন্তব্য চলছে৷

সোমবার রাতের আঁধারে কে বা কারা যেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সব ভাস্কর্য ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ফেলে৷ ভাস্কর্য বিভাগের শিক্ষকদের কার্যালয়ও বন্ধ করে দেয় তারা৷

খবরটি প্রকাশের পরই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে মন্তব্য আর বিশ্লেষণে মেতে ওঠেন অনেকে৷

টুইটারে সাংবাদিক অঞ্জন রায় লিখেন, ‘‘রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালযের চারুকলা অনুষদের উল্টে থাকা ভাস্কর্যগুলো চাপাতির কোপে মরা মানুষের মতোই মুখ থুবড়ে পড়ে আছে৷'' 

মোহাম্মদ মাইনুদ্দীন মনে করেন, এর পেছনে বড় কোনো ষড়যন্ত্র কাজ করছে৷ সেই ধারণা থেকেই তিনি টুইটারে লিখেছেন, ‘‘রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে যে ঘটনা ঘটেছে, আমি মনে করি তা সরকারের সাথে ইসলামি সংগঠনগুলোর বিবাদ তৈরির ষড়যন্ত্র, কৌশল৷''

তবে নাজমুল হক লিখেছেন, ‘‘ছাত্ররাই তছনছ করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা ইন্সটিটিউটের পাঁচ শতাধিক ভাস্কর্য৷''

অধিকাংশ সংবাদমাধ্যমেও এমন খবরই আসছে৷

বাংলা ট্রিবিউনের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, ভাস্কর্য উল্টানোর ঘটনায় চারুকলার সাত শিক্ষার্থী জড়িত বলে শিক্ষকরা জানিয়েছেন৷ শিক্ষকরা জানান, ঘটনায় জড়িতদের সবাই স্নাতকোত্তর শ্রেণির শিক্ষার্থী৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাস্কর্য বিভাগের মাস্টার্সের দুই শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের জানান, তারা ৩০-৪০ জন মিলে এই কাজ করেছেন৷ ভাস্কর্যগুলো সংস্কারের দাবি জানাতে এমনটি করেছেন বলে দাবি তাদের৷

সাংবাদিক হারুন উর রশীদ স্বপন প্রশ্ন রেখেছেন, ‘‘এবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার শিক্ষার্থীরা ভাস্কর্যের যে অবমাননা করল, তার কী শাস্তি হবে?''

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়