1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

প্রজাতির মতো ভাষারাও বিপন্ন

ওরাং ওটাং কিংবা চীনের জায়ান্ট পান্ডাদের বাঁচানোর নানা প্রচেষ্টা চলেছে৷ ঐতিহাসিক ঘরবাড়ি ধ্বংস হতে দিতে সকলেরই দ্বিধা৷ কিন্তু পৃথিবী থেকে অনেক ভাষা যে ধীরে ধীরে লুপ্ত হচ্ছে, তা নিয়ে ক’জন ভাবে?

ভাষারাও যে একটা সাংস্কৃতিক সম্পদ, তা যেন মানুষ খেয়ালই করে না৷ তার কারণ, সংগীত কিংবা নৃত্যের মতোই ভাষা অমূর্ত, কায়াহীন, তাকে ধরাছোঁয়া যায় না৷ এ কথা বলেছেন জার্মানির কোলোন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাতত্ত্বের অধ্যাপক নিকোলাউস হিম্মেলমান৷ হ্যানোভারে ‘‘ভাষার নথিবদ্ধকরণ'' নিয়ে এ মাসে যে আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়, প্রফেসর হিম্মেলমান ছিলেন তার যুগ্ম সভাপতি৷

ইংরিজিতে ‘ডোব্স' কথাটি যে সব শব্দের আদ্যক্ষর নিয়ে গঠিত হয়েছে, সেগুলি হলো: ‘‘ডকুমেন্টেশন অব এন্ডেঞ্জার্ড ল্যাংগুয়েজেস'' বা ‘বিপন্ন ভাষাসমূহের নথিবদ্ধকরণ'৷ বলতে কি, যে কোনো ভাষাকে বাঁচিয়ে রাখার প্রথম পদক্ষেপই হলো তাই৷ হ্যানোভারের ডোব্স সংক্রান্ত সম্মেলনে এসেছিলেন প্রায় ১৮০ জন ভাষাতত্ত্ববিদ৷ তাঁরা শোনান সুদূর সাইবেরিয়া, কি কলম্বিয়ার আর্দ্র বনাঞ্চলে, কি হিমালয়ের পর্বতাঞ্চলে তাদের রোমাঞ্চকর অভিযানের বৃত্তান্ত৷ – ডোব্স সম্পর্কে এটুকুও বলে নেওয়া দরকার যে, জার্মানি তথা বিশ্বের সুবিখ্যাত মোটরগাড়ি নির্মাণ সংস্থা ফোক্সভাগেন ২০০০ সালে এই প্রকল্প শুরু করে৷

Symbolbild Beziehungen Deutschland Frankreich Wörterbuch

ভাষারাও যে একটা সাংস্কৃতিক সম্পদ, তা যেন মানুষ খেয়ালই করে না (প্রতীকী ছবি)

ডোব্স সম্মেলনের যে ভবিষ্যদ্বাণীটি আমাদের সকলকে চমকে দেওয়ার মতো, সেটি হলো: চলতি শতাব্দী শেষ হওয়ার আগেই বিশ্বায়ন ও নগরায়নের চাপে পড়ে পৃথিবীর সাড়ে ছ'হাজারের বেশি ভাষার অর্ধেক বিলুপ্ত হবে৷ উপজাতিক সংখ্যালঘুরা অনেক ক্ষেত্রেই সমাজের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের ভাষা শেখে ও আপন করে নেয়, যার ফলে তাদের নিজেদের ভাষা ধীরে ধীরে বিলুপ্ত হয়৷

আদিম ভাষাকে বাঁচাতে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি

যেহেতু অধিকাংশ ‘বিপন্ন ভাষার' কোনো লিপি নেই, ডোব্স-এর গবেষকরা প্রধানত অডিও রেকর্ডার, ভিডিও ক্যামেরা, স্টিল ক্যামেরা ও নোটের খাতার মাধ্যমেই সেই সব ভাষা ধরে রাখার চেষ্টা করেন৷ গবেষকদের সংগৃহীত তথ্য যায় নেদারল্যান্ডসের নিমেগেন শহরের ‘দ্য ল্যাংগুয়েজ আর্কাইভ' বা টিএলএ-তে৷ এটি হলো জার্মানির ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক গবেষণা সমিতির একটি প্রতিষ্ঠান৷ বস্তুত ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট অব সাইকোলিঙ্গুয়িস্টিক্স-এর অঙ্গ৷ টিএলএ-র কাজ হলো পৃথিবীর ভাষাসম্পদকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সংগ্রহ করে রাখা৷

বাঁচানো প্রয়োজন কেন?

হ্যানোভারের সম্মেলনে তার দু'টি উদাহরণ দেওয়া হয়েছে৷ ভাষা যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে, তার একটি প্রমাণ হলো অস্ট্রেলিয়ার অ্যাবরিজিনাল বা আদিম উপজাতির মানুষেরা৷ জমি নিয়ে মামলার ক্ষেত্রে কোনো অ্যাবরিজিনাল সম্প্রদায় যদি প্রমাণ করতে পারে যে, তাদের ভাষায় বহু গাছগাছালির নাম আছে, যেগুলো শুধু ঐ অঞ্চলে পাওয়া যায়, তাহলে তাদের দাবি আদালতে মেনে নেওয়া হয়ে থাকে৷

দ্বিতীয় দৃষ্টান্ত: লাইপজিগের ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর এভোলিউশনারি অ্যানথ্রোপোলজির ভাষাতত্ত্ববিদ ফ্রাংক সাইফার্ট গত ১৫ বছর ধরে নিয়মিত অ্যামাজন নদীর উত্তর-পশ্চিমের জঙ্গলাকীর্ণ এলাকায় ইন্ডিও-দের দু'টি ভাষা, বোরা ও রেসিগারো, নথিবদ্ধ করার চেষ্টা করছেন৷ তিনি বলেন, সেখানকার তরুণ জনতাও স্প্যানিশই বলে৷

‘‘ওরা নিজেদের ভাষাকে সেকেলে ও দৈনন্দিন জীবনে কোনো কাজের নয় বলে মনে করে৷ অথচ ওদের জ্ঞান ও সংস্কৃতির বিপুল ভাণ্ডার দিয়ে গোটা লাইব্রেরি ভরে দেওয়া যায়'', বলেছেন সাইফার্ট৷

ডোব্স ঠিক সেই দিকেই এগোচ্ছে৷

এসি/ডিজি (ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন