1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

পোশাক শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি, নাকি ব্যবসা বাড়ানো?

বাংলাদেশে পোশাক শ্রমিকদের বেতন নিয়ে আলোচনা বহু পুরনো৷ প্রায়ই শ্রমিক-মালিক দ্বন্দ্ব লেগে থাকে৷ সম্প্রতি, শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন বাড়ানো হয়েছে৷ তবে কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের অধিকার এখনও ঠিকমত সংরক্ষিত হচ্ছেনা বলে অভিযোগ৷

default

জার্মানির হামবুর্গে হয়ে হলো একটি সেমিনার

আর এসব বিষয় নিয়েই, সম্প্রতি জার্মানির হামবুর্গ শহরে প্রবাসী বাংলাদেশীদের উদ্যোগে হয়ে গেল একটি সেমিনার৷

বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের শতকরা ৭৮ ভাগ আসে পোশাক শিল্প থেকে৷ এই সাফল্যের পেছনে অনেকগুলো কারণ রয়েছে৷ তার মধ্যে একটা সস্তা শ্রম৷ সারা বিশ্বের মধ্যেই বাংলাদেশি শ্রমিকরা সবচেয়ে কম বেতন পান৷ সম্প্রতি শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন বাড়িয়ে তিন হাজার টাকা করা হয়েছে৷ যদিও তাদের দাবি ছিল পাঁচ হাজার টাকা৷ কারণ তারা বলছে, এত অল্প টাকায় তাদের সংসার চলেনা৷ কিন্তু মালিকরা বলেছেন, বেতন আর বাড়ানো সম্ভব নয়৷ কারণ তাহলে পোশাকের দাম বেড়ে যাবে৷ ফলে ক্রেতা হারাতে হবে৷ অর্থাৎ ব্যবসা কমে যাবে৷ কিন্তু আসলেই কি পাঁচ হাজার টাকা দেয়া সম্ভব নয়? ব্যবসায়ীরা যে ব্যবসা কমে যাওয়ার কথা বলছেন, সেটা কী ঠিক? এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সেমিনারের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক ও আয়োজক ‘বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরাম'এর চেয়ারম্যান আদেল কাজী দুপক্ষের স্বার্থই দেখার কথা বললেন৷ পাশাপাশি শ্রমিকদের পাঁচ হাজার টাকা দিয়েও ব্যবসা ঠিক রাখা যাবে বলে মন্তব্য করেন৷ কাজী বলেন, ‘‘আমাদের ব্যবসায়ীদের স্বার্থটাও দেখতে হবে, যেন বেশি বেতন দেয়ার জন্য ব্যবসা চলে না যায়৷ তবে কারখানাগুলোর মান বাড়ানো গেলে কম খরচে পোশাক তৈরি সম্ভব হবে৷ সেক্ষেত্রে শ্রমিকদের বেশি বেতন দেয়া যাবে৷ এতে শ্রমিকরা ভাল ভাল খাবার খেতে পারবে৷ এছাড়া তাদের মনও ভাল থাকবে৷ যেটা তাদের ভাল কাজ করতে উৎসাহিত করবে৷ এর মাধ্যমেও কারখানাগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা বাড়বে৷''

আদেল কাজী যেমন শ্রমিকদের উৎসাহ দেয়ার কথা বললেন সে ব্যাপারে বেশ জোরালো মনে হলো ‘ক্লিন ক্লথস ক্যাম্পেইন' বা সিসিসি'র ইরমগার্ড বুজেমানকে৷ সিসিসি ইউরোপের একটি বেসরকারি সংস্থা৷ বুজেমান এই সংস্থার হামবুর্গ শাখায় কাজ করেন৷ তিনি বলেন, বাংলাদেশে নারী শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় কাজ করে যাচ্ছে তাঁর সংস্থা৷ পাশাপাশি যেসব জার্মান কোম্পানি বাংলাদেশ থেকে কাপড় আমদানি করে, তাদেরও বিভিন্ন বিষয়ে সচেতন করার কাজ করছে সিসিসি৷ যেমন বাংলাদেশের যেসব কারখানা আন্তর্জাতিক শ্রম আইন মানছেনা, তাদেরকে যেন কোন কাজের অর্ডার দেয়া না হয়, সে ব্যাপারে জার্মান কোম্পানিগুলোকে অনুরোধ করা হয়েছে৷ শুধু কোম্পানিই নয়, ক্রেতাদেরও সচেতন করার কাজ করে যাচ্ছে সিসিসি৷

সেমিনারে উপস্থিত কয়েকজন জার্মান নাগরিক বাংলাদেশি শ্রমিকদের এই দুরবস্থা শুনে বিস্ময় প্রকাশ করলেন৷ সেইসঙ্গে শ্রমিকদের বেতন আরও বাড়ানো উচিত বলে মন্তব্য করেন৷ তবে বাংলাদেশি এক গার্মেন্টস ব্যবসায়ী, যিনি কয়েকবছর ধরে জার্মানিতে থেকেই ব্যবসা করে যাচ্ছেন, তিনি বললেন বাংলাদেশের কারখানায় শ্রমিকদের এই হাল নিয়ে জার্মান কোম্পানিগুলো চিন্তিত নয়৷ তাঁর কথা হলো, বেশিরভাগ কোম্পানিই চায় কম দামে কাপড় কিনতে৷ সেটা তারা যেখানে পাবে, সেখান থেকেই কিনবে৷ তাই কীভাবে সেটা উৎপাদিত হচ্ছে, তা নিয়ে তাঁরা চিন্তিত নন৷ এ ব্যাপারে একটি উদাহরণ দিলেন তিনি৷ আগামী কয়েকদিনের মধ্যে একজন শীর্ষস্থানীয় জার্মান আমদানিকারক বাংলাদেশে যাচ্ছেন৷ উদ্দেশ্য তাঁর সেখান থেকে কাপড় কেনা৷ এর আগে তিনি যেটা করতেন চীন থেকে৷ কিন্তু সেখানে শ্রমমূল্য বেড়ে যাওয়ায় কাপড়ের দাম বেড়ে গেছে৷ তাই সস্তায় কাপড় কিনতে তিনি যাচ্ছেন বাংলাদেশে৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়