1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পোশাক শিল্পে মজুরি চূড়ান্ত হবে সোমবার

বাংলাদেশে তৈরি পোশাক শিল্পে শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি চূড়ান্ত হয়নি৷ এ নিয়ে মালিক-শ্রমিক একমত না হওয়ায়, কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই বৃহস্পতিবার বৈঠক শেষ হয়েছে৷ মালিকরা ৪,৫০০ টাকা মজুরি দিতে রাজি হলেও শ্রমিকরা তাঁদের অবস্থানে অনড়৷

বাংলাদেশে তৈরি পোশাক শিল্পে শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি এখন ৩,০০০ টাকা৷ তাজরীন ফ্যাশানস-এ আগুন এবং রানা প্লাজা ধসে শ্রমিক নিহত হওয়ার পর, চরম সমালোচনার মুখে পড়ে এই শিল্প৷ বিশেষ করে শ্রমিক নিরাপত্তা এবং মজুরি নিয়ে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়ে পোশাক শিল্প৷

সরকার শেষ পর্যন্ত শ্রমিকদের মজুরি বাড়াতে মজুরি বোর্ড গঠন করে৷ মজুরি বোর্ড গঠন করার পর, মালিকরা ন্যূনতম মজুরি মাত্র ৬০০ টাকা বাড়িয়ে ৩,৬০০ টাকা করার প্রস্তাব করেন৷ কিন্তু শ্রমিকরা দাবি করেন ৮,০০০ টাকা৷ এ নিয়ে কয়েকটি বৈঠকে আলোচনা হলেও সমঝোতা হয়নি৷ বৃহস্পতিবার এই ন্যূনতম মজুরি চূড়ান্ত হওয়ার কথা থাকলেও, শেষ পর্যন্ত তা হয়নি৷

Bildnummer: 60521244 Datum: 24.09.2013 Copyright: imago/Xinhua (130924) -- DHAKA, Sept. 24, 2013 (Xinhua) -- A garment worker mourns during a protest rally in front of the National Press Club in Dhaka, Bangladesh, Sept. 24, 2013. Relatives of the missing garment workers of the Rana Plaza collapse staged a demonstration demanding proper compensation five months after the accident on April 24 leaving at least 1,130 workers dead. (Xinhua/Shariful Islam) BANGLADESH-DHAKA-COLLAPSE-RALLY PUBLICATIONxNOTxINxCHN xns x0x 2013 quer 60521244 Date 24 09 2013 Copyright Imago XINHUA Dhaka Sept 24 2013 XINHUA a Garment Worker during a Protest Rally in Front of The National Press Club in Dhaka Bangladesh Sept 24 2013 Relatives of The Missing Garment Workers of The Rana Plaza Collapse staged a Demonstration demanding Proper Compensation Five MONTHS After The accident ON April 24 leaving AT least 1 130 Workers Dead XINHUA Shariful Islam Bangladesh Dhaka Collapse Rally PUBLICATIONxNOTxINxCHN xns x0x 2013 horizontal

রানা প্লাজা ধসের পর স্বজন হারিয়ে শ্রমিকরা...

বিজিএমইএ-র সহ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান জানান যে, তারা সর্বোচ্চ ৪.৫০০ টাকা ন্যূনতম মজুরি দিতে সম্মত হয়েছেন৷ এর বেশি তাদের পক্ষে আর দেয়া সম্ভব নয়৷ তিনি বলেন, তারা দক্ষ শ্রমিকদের ভালো বেতন দিতে চান এবং তা দেনও৷ তাঁর কথায়, অনেকের ধারণা পোশাক কারখানায় শ্রমিকদের মজুরি কম৷ কিন্তু বাস্তবে দেখা যায় অন্য চিত্র৷ দক্ষ শ্রমিকরা ভালো বেতন পান৷ ন্যূনতম মজুরি প্রাথমিকভাবে কাজ নেয়া অদক্ষ শ্রমিকদের জন্য৷

এদিকে গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম রনি ডয়চে ভেলেকে জানান, মালিকপক্ষ বৈঠকে কোনো যুক্তি ছাড়াই একগুঁয়েমি করছে৷ তাঁরা শ্রমিকদের যে ন্যূনতম মজুরি দিতে চান, তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়৷ বর্তমান বাজার দরের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করতে হবে৷ তাঁরা দেখেছেন যে, একজন শ্রমিকের খাবার এবং বাসা ভাড়াসহ অন্যান্য খরচ মিলিয়ে কোনোভাবেই ৮,০০০ টাকার নীচে চলে না৷

তবুও তাঁরা যৌক্তিক আলোচনার মাধ্যমে মজুরি নির্ধারণে রাজি আছেন৷ কিন্তু মালিক পক্ষের অযৌক্তিক প্রস্তাব তাঁরা কিছুতেই মেনে নেবেন না৷ ৪ঠা নভেম্বর সোমবার যদি গ্রহণযোগ্য মজুরি নির্ধারণ না করা হয়, তাহলে পোশাক শ্রমিকরা তাঁদের দাবি আদায়ে আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবেন৷

ওদিকে মজুরি বোর্ডের সভায় নিরপেক্ষ প্রতিনিধি ন্যূনতম মজুরি ৫,০০০ টাকা করার প্রস্তাব করেন৷ তবে সেই প্রস্তাবও গ্রহণযোগ্য নয় বলে জানান শ্রমিক নেতা সিরাজুল ইসলাম৷

মজুরি বোর্ডের বৃহস্পতিবারের বৈঠকের সময় শ্রমিকদের বিভিন্ন সংগঠন মজুরি বোর্ডের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন৷ তাঁরা ন্যূনতম মজুরি ৮,০০০ টাকা করার দাবি জানান৷ অন্যথায়, তাঁরা কঠোর আন্দোলনে যাবার হুমকি দেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়