1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পোশাক শিল্পের সংকট কাটাতে উদ্যোগ

রানা প্লাজা ধসের পর তৈরি পোশাক শিল্প সংকটের মুখে রয়েছে৷ সংকট কাটাতে নেয়া হচ্ছে নানারকম ব্যবস্থা৷ এর মাধ্যমে পোশাক কারাখানার কাজের পরিবেশ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি যেসব ভবনের ত্রুটি রয়েছে তা বন্ধ করে দেয়া হবে৷

সাভারের রানা প্লাজায় মোট পাঁচটি পোশাক কারখানা ছিল৷ এসব কারখানায় সাড়ে তিন হাজারেরও বেশি পোশাক শ্রমিক কাজ করতেন৷ বিজিএমইএ যে তালিকা তৈরি করেছে তাতে শ্রমিকের সংখ্যা ৩,৬১৯ জন৷ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ধ্বংসস্তূপ থেকে মোট ৯৭৬টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে৷ আর এসব লাশের অধিকাংশই পোশাক শ্রমিকদের৷

ভবন ধস বা আগুন লেগে পোশাক শ্রমিকদের মৃত্যু নিয়ে অনেক কথা হলেও এ পর্যন্ত কাজের কাজ কিছুই হয়নি৷ গত ১১ বছরে রানা প্লাজার হিসেব ধরে বাংলাদেশে ১,৭০০ পোশাক শ্রমিক নিহত হয়েছেন আগুন অথবা ভবন ধসে৷ রানা প্লাজার আগে তাজরীন ফ্যাশানস-এ আগুন, ফিনিক্স ভবন ধসেও গার্মেন্টম শ্রমিক নিহত হন৷ কিন্তু পরে এর বিরুদ্ধে কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হয়নি৷



তবে এবার আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়েছে বাংলাদেশ৷ ইউরোপীয় ইউনিয়ন যত দ্রুত সম্ভব আন্তর্জাতিক শ্রম আইন মেনে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কারখানার ভবনসহ কাজের পরিবেশ এবং শ্রমিক নিরাপত্তার মান উন্নয়নের তাগিদ দিয়েছে৷ শুধু তাই নয়, ইন্ডাস্ট্রি গ্লোবাল ইউনিয়ন আগামী ১৫ই মে'র মধ্যে বাংলাদেশের পোশাক কারখানার ভবনসহ মান উন্নয়নের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করার জন্য বলেছে৷ এদিকে আন্তর্জাতিক পোশাক ক্রেতা ওয়াল্ট ডিজনি বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ তারা বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর ৪০ কোটি ডলারের পোশাক কিনতো৷ যা বাংলাদেশি টাকায় ৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা৷

এই অবস্থা মোকাবেলায় সরকার, বিজিএমইএ কাজ শুরু করেছে৷ পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী জানিয়েছেন যে, তারা ইতিমধ্যেই ঢাকায় ১৬টি এবং চট্টগ্রামে দুটি সহ মোট ১৮টি পোশাক কারখানার ভবনে ত্রুটি পেয়েছেন৷ এই কারাখানাগুলো বন্ধ করে দেয়া হবে৷ তিনি জানান, আগামী ৩ মাসের মধ্যে সরকারের গঠিত টাস্কফোর্স দেশের সব পোশাক কারখানা পরিদর্শন করে রিপোর্ট চূড়ান্ত করবে৷ আর তাতে যেসব ত্রুটিপূর্ণ ভবন পাওয়া যাবে সেসব ভবনকে সংক্ষিপ্ত সময় দেয়া হবে৷ সেই সময়ের মধ্যে যদি তারা ত্রুটি দূর করতে না পারেন তাহলে সেই পোশাক কারখানা বন্ধ করে দেয়া হবে৷

বিজিএমইএ-র সভাপতি আতিকুল ইসলাম জানান, তাদের টাস্কফোর্সও কাজ শুরু করেছে৷ সারা দেশের পোশাক কারখানার ভবনসহ শ্রমিক নিরাপত্তা এবং কাজের পরিবেশ দেখবেন তারা৷ এই কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে৷ তিনি জানান, রানা প্লাজার পাঁচটি পোশাক কারাখানার শ্রমিকদেরও বেতন দেয়া শুরু করেছেন তারা৷ আর নিহত শ্রমিকদের পরিবার মোট ৭ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ পাবে৷ এছাড়া, পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন কিভাবে চালু করা যায়, তা নিয়েও কাজ চলছে বলে জানা গেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন