1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

পোপ ফ্রান্সিসের ফুটবল প্রীতি

পোপ ফ্রান্সিস হলেন বুয়েনস আইরেসের ‘সান লোরেঞ্জোর সন্ত’রা’ ফুটবল টিমের ফ্যান ও ক্লাবটির সদস্য৷ ভ্যাটিকানে অধিষ্ঠিত হবার পর তিনি অনেক ফুটবল টিম ও তারকাদের সঙ্গে মিলিত হন৷ এবার দর্শনার্থী ছিলেন ফিফা-প্রধান ইওসেফ ব্লাটার৷

পোপের অভিষেকের সময়েই তাঁর প্রিয় ফুটবল দলের মানুষজন সেন্ট পিটার্সের চত্বরে ভিড় করেছিল৷ সেইন্টস অফ সান লরেঞ্জোর জার্সি ছাড়াও পোপের সংগ্রহে ইতিমধ্যে আর্জেন্টিনা এবং ইটালির জাতীয় দলের জার্সি সহ নানান জার্সি এসে জড়ো হয়েছে৷

পোপ ফ্রান্সিস গত আগস্ট মাসের মাঝামাঝি ভ্যাটিকানে লিওনেল মেসিকে ‘অডিয়েন্স' দেওয়ার সময় বলেন: অ্যাথলিটরা হলেন রোল মডেল বা আদর্শ, বিশেষ করে ছোটদের জন্য, তা তাঁরা সেটা চান আর না-ই চান৷ কাজেই অ্যাথলিটদের তাঁদের এই প্রভাব দায়িত্বশীলভাবে ব্যবহার করা উচিত৷

অন্যদিকে পোপ সাবধান করে দেন যে, ফুটবল একটা ব্যবসা হয়ে উঠছে৷ কাজেই সকলকে সাবধান হতে হবে, ফুটবল যেন তার খেলাধুলার প্রকৃতি না হারিয়ে ফেলে৷ পোপ নিজে ছোটবেলায় তাঁর বাড়ির লোকজনদের সঙ্গে ফুটবল ম্যাচ দেখতে যেতেন৷ এবং ভবিষ্যতেও ফুটবল স্টেডিয়ামে সে ধরনের পরিবারদের দেখা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি৷

কথাগুলো তিনি বলছিলেন আর্জেন্টিনা এবং ইটালির জাতীয় দলের প্লেয়ারদের সামনে৷ তাঁদের প্রতি পোপের আরো একটি অনুরোধ ছিল: তাঁরা যেন পোপের জন্যও প্রার্থনা করেন৷ বলেন, ‘‘ঈশ্বর আমাকে মাঠে খেলতে নামিয়েছেন, আমি সেখানে যাতে আমাদের সকলের কল্যাণের জন্য একটি সৎ ও সাহসী খেলা খেলতে পারি৷''

গত শুক্রবার ভ্যাটিকানে পোপের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন ফিফার প্রেসিডেন্ট ইওসেফ ব্লাটার, যিনি সেপ ব্লাটার নামেই পরিচিত৷ ব্লাটার পরে বলেন: ‘‘আমরা একই ভাষায় কথা বলি, আর সেটা ছিল ফুটবলের ভাষা৷ এটা ছিল দু'জন খেলোয়াড় আর ফুটবল ফ্যানের মধ্যে একটি সাক্ষাৎ৷'' পোপ দৃশ্যত ফিফাকে রিও ডি জেনিরো-র ‘ফাভেলা' বা বস্তিগুলোতে সাহায্য করতে বলেছেন৷ ব্লাটার তাঁর উত্তরে বলেন, ‘‘আমরা যথাসাধ্য করব৷'' – পরে অবশ্য সাংবাদিকদের কাছে তাঁর মন্তব্য: ‘‘আমরা (অর্থাৎ ফিফা) তো আর সব কিছু করতে পারি না৷''

তবে ব্লাটার নিজের অজান্তেই ফুটবলকে জনপ্রিয়তার এক নতুন শিখরে তুলে দেন – অন্তত পরিসংখ্যানের হিসেবে – যখন তিনি পোপকে বলেন, বিশ্বে যাঁরা ফুটবল খেলেন এবং তাঁদের পরিবারবর্গ ইত্যাদিকে ধরলে বিশ্বব্যাপী ফুটবলমোদীদের সংখ্যা একশো বিশ কোটি৷ উত্তরে পোপ নাকি বলেন, ‘‘আমার (ক্যাথলিক) একশো কোটির বেশি নই৷''

এসি/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন