1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পেগিডার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ বাড়ছে

জার্মানির রাজনৈতিক মঞ্চে সাম্প্রতিকতম আবির্ভাব হলো ‘পেগিডা’ নামধারী এক অভিবাসন বিরোধী আন্দোলন, যার সূচনা পুবের ড্রেসডেন শহরে৷ কিন্তু পেগিডা-ই যেন জার্মানদের ‘‘সাইলেন্ট মেজরিটি’’-কে সোচ্চার করে তুলেছে৷

শিল্প-বাণিজ্যের নেতৃবৃন্দ থেকে শুরু করে রাজনীতিক মহল এবং – সবচেয়ে বড় কথা – সাধারণ জার্মানরা পেগিডা-র অভিবাসন বিরোধী মনোভাবের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ যাবৎ এ দেশে যে মূল্যবোধ গড়ে উঠেছে, এবং বিদেশে এ দেশের যে ভাবমূর্তি সৃষ্টি হয়েছে, পেগিডা-র মতো আন্দোলন তাকে বিপন্ন করছে, বলে পেগিডা-বিরোধীদের বক্তব্য৷

পাল্টা ব়্যালি এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় আন্দোলন চালিয়ে এই জার্মানরা জানান দিচ্ছেন যে, পেগিডা-ই জার্মানির প্রতিভূ নয়৷ পেগিডা বা ‘‘প্রতীচ্যের ইসলামিকরণের বিরুদ্ধে দেশপ্রেমী ইউরোপীয়বর্গ'' বিগত দশ সপ্তাহ ধরে ড্রেসডেনে তাদের মিছিল ও জনসভা করে আসছে৷ জার্মানির রাজনীতিক মহল তথা প্রধান দু'টি গির্জার কর্মকর্তারা তাদের অবস্থান স্পষ্ট করে দিয়েছেন৷ যেমন ক্যাথলিক, তেমনই প্রটেস্টান্ট গির্জার প্রধান ও বিশপবর্গের বক্তব্য হলো: যিশুখ্রিষ্ট স্বয়ং উদ্বাস্তুর সন্তান ছিলেন, কাজেই শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়াটা একটি খ্রিষ্টান কর্তব্য৷

অপরদিকে চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল থেকে শুরু করে অপরাপর রাজনীতিকরা প্রধানত বিদেশে জার্মানির ভাবমূর্তি মলিন হতে পারে, এমন আশঙ্কা দেখছেন৷ প্রেসিডেন্ট ইওয়াখিম গাউক জাতির প্রতি তাঁর বড়দিনের ভাষণে রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীদের প্রতি বিশেষ সহানুভূতির ডাক দিয়েছেন৷

এমনকি ম্যার্কেল মন্ত্রীসভার প্রবীণ অর্থমন্ত্রী ভোলফগাং শয়েবলে, যিনি পেগিডা-র বক্তব্য অন্তত শুনে দেখার সপক্ষে, তিনিও বলেছেন: ‘‘আমাদের সমৃদ্ধির কথা ভাবলে, আমরা কী ধরনের জাতি হব, যদি আমরা উদ্বাস্তুদের প্রত্যাখ্যান করি?''

তবে পেগিডা-র বিরুদ্ধে সবচেয়ে জোরালো বক্তব্য রেখেছেন জার্মান শিল্প সমিতির সভাপতি উলরিশ গ্রিলো৷ ডিপিএ সংবাদ সংস্থার সাক্ষাতকারে গ্রিলো বলেছেন, ইউরোপের সেরা অর্থনীতি হিসেবে জার্মানিকে প্রতিযোগিতার উপযোগী থাকতে হলে, তার অভিবাসীদের প্রয়োজন পড়বে৷ জার্মানির জনসংখ্যাগত বিকাশধারার পরিপ্রেক্ষিতে অভিবাসন অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করবে, বলেন গ্রিলো৷

ফেসবুক ও টুইটারে পেগিডা-র বিরুদ্ধে ঝড় বয়ে গেছে৷ বার্লিনে ছাত্র-ছাত্রীরা একটি ওয়েবসাইট শুরু করেছেন, যেখানে তাঁরা উদ্বাস্তুদের সঙ্গে তাঁদের ফ্ল্যাট শেয়ার করার প্রস্তাব দিচ্ছেন৷

এসি/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন