1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের রহস্য

পৃথিবীকে শুধু বায়ুমণ্ডল ঘিরে রাখেনি, আছে আরও একটি বর্ম, যা খালি চোখে দেখা যায় না৷ সেটা হলো চৌম্বক ক্ষেত্র৷ জটিল ও অদৃশ্য এই বলয় সম্পর্কে জানতে নতুন একটি উদ্যোগ শুরু করেছেন বিজ্ঞানীরা৷

পৃথিবীর উপর আঘাত হেনে চলেছে কসমিক পার্টিকল বা মহাজাগতিক কণা৷ সূর্য থেকে সেই কণা ধেয়ে চলেছে মহাকাশের দিকে৷ আমাদের গ্রহের চৌম্বক ক্ষেত্র সেই ধাক্কা সামলাচ্ছে৷ এই বলয় না থাকলে পৃথিবীতে প্রাণের অস্তিত্বই থাকতো না৷

অদৃশ্য এই বর্ম পরীক্ষা করতে পাঠানো হয়েছে তিনটি যমজ স্যাটেলাইট৷ মিশনের নাম ‘সোয়ার্ম'৷ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রকৃতি কীভাবে বদলায়, এই প্রথম তা পরীক্ষা করা হচ্ছে৷ জার্মান ভূ-গবেষণা কেন্দ্রের হ্যারমান ল্যুয়র বলেন, ‘‘কোনো স্যাটেলাইট পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র নিখুঁতভাবে পরিমাপ করতে চাইলে যন্ত্রটি এমন জায়গায় রাখতে হবে, যাতে কোনো ব্যাঘাত না ঘটে৷''

SWARM-Mission der ESA

মিশনের নাম ‘সোয়ার্ম'

সে কারণে এই স্যাটেলাইট দেখতে অনেকটা রুশ ‘বালালাইকা' গিটারের মতো৷ সংবেদনশীল যন্ত্রগুলি তার মাস্তুলে বসানো রয়েছে – অর্থাৎ স্যাটেলাইটের নিজস্ব ইলেকট্রনিক যন্ত্রগুলো থেকেও দূরে৷ পৃথিবীর বর্ম দুর্বল হয়ে পড়ছে৷ কেন? সোয়ার্ম অভিযান তা জানার চেষ্টা করছে৷ আসলে আমাদের গ্রহে মোট তিনটি চৌম্বক ক্ষেত্র রয়েছে, যা ছড়িয়ে রয়েছে ভূ-পৃষ্ঠের নীচে ও পৃথিবীর কাছাকাছি মহাকাশ পর্যন্ত৷ ভূ-পৃষ্ঠের ঠিক নীচে সবচেয়ে শক্তিশালী চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয়৷ ভূতত্ববিদ ও ভূ-পদার্থবিদদের কাছে এই স্তরের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে৷

দ্বিতীয় চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয় পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে৷ সেখানে ইলেকট্রিক স্রোত বইতে থাকে৷ সেগুলিই অসাধারণ ‘পোলার লাইট' বহন করে, যা ক্ষতিকারক নয়৷ কিন্তু এই স্রোত স্যাটেলাইটগুলির জন্য বিপজ্জনক হতে পারে৷ ইলেকট্রনিক যন্ত্র বিকল করে দিতে পারে, ন্যাভিগেশন সংকেতে গোলযোগ সৃষ্টি করতে পারে৷ হ্যারমান ল্যুয়র বলেন, ‘‘পৃথিবীর মহাসাগরগুলিও তাদের ঢেউয়ের মাধ্যমে এক চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি করে৷ তবে সেটা খুবই ছোট আকারের৷ তবে তার নিখুঁত পরিমাপ করতে চাই আমরা৷''

এটা করলে সামুদ্রিক স্রোত কত বড় ও তার মাধ্যমে কতটা উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে, তা আরও স্পষ্ট করে জানা যাবে৷ এই সব তথ্যের সাহায্যে গবেষকরা জলবায়ু সম্পর্কে আরও ভালো পূর্বাভাষ দিতে পারবেন৷

সোয়ার্ম মিশনের মেয়াদ ধরা হয়েছে পাঁচ বছর৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক