1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

পৃথিবীতে বসেই মঙ্গলগ্রহে রোবট চালানোর স্বপ্ন

মঙ্গল আরও দূরের কোনো গ্রহে মহাকাশযান পাঠানো আজ আর কোনো বিস্ময়কর ঘটনা নয়৷ কিন্তু পৃথিবীতে বসেই রোবট চালনার ক্ষমতা এখনো পুরোপুরি রপ্ত হয় নি৷ ইউরোপীয় মহাকাশ সংস্থা রাশিয়ার সঙ্গে সহযোগিতায় এমন পরীক্ষা চালাচ্ছে৷

নেদারল্যান্ডস উপকূলে ইউরোপীয় মহাকাশ সংস্থা এসা-র গবেষণা কেন্দ্রে রোবটের হাত নড়াচড়া করছে৷ প্রায় ৫০০ কিলোমিটার দূর থেকে এক বিজ্ঞানী মোবাইল টেলিফোন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে তাকে চালাচ্ছেন৷ লক্ষ্য, অদূর ভবিষ্যতে কয়েক লক্ষ কিলোমিটার দূর থেকেও এটা সম্ভব করা৷ এমন এক যন্ত্রের সাহায্যে ভবিষ্যতে দূরের কোনো গ্রহে পৃথিবী থেকেই রোবট চালনা করা যাবে৷

২০১৬ সালে আগামী মঙ্গলগ্রহ অভিযান শুরু হবে৷ মানুষের জন্য মঙ্গলগ্রহ তেমন দূর নয়৷ এমন যাত্রা রোবটের জন্য কিছুই নয়৷ কিন্তু তাকে চালনা করতে হবে৷ তবে মঙ্গল যাত্রা শুরুর আগে কিছু বাধা দূর করতে হবে৷ ক'দিন আগে অ্যামেরিকানরা এই প্রকল্প ছেড়ে চলে গেছেন৷

এখন ইউরোপীয়রা রাশিয়ার রসকসমস সংস্থার সঙ্গে কাজ করছেন৷ ইউক্রেন সংকট শুরু হওয়ার পর বিষয়টি বেশ বিতর্কিত হয়ে পড়েছে৷ কিন্তু রাশিয়ানদের কাছে রকেট ও অর্থ – দুটোই রয়েছে৷ এসটেক-এর ফ্রাংকো ওনগারো বলেন, ‘‘তারা খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ কেউই অপরিহার্য নয়৷ ধরুন আপনারা দু'জন বেড়াতে যাচ্ছেন৷ অন্যজন পিছিয়ে এলে সব খরচ আপনার কাঁধে এসে পড়বে৷ তাই এর একটা আর্থিক দিক রয়েছে৷''

রোবট ল্যাবের পাশেই মঙ্গলগ্রহের ভূ-পৃষ্ঠের মডেল তৈরি করা হয়েছে৷ সেখানেই রোভার-কে নিয়ে পরীক্ষা চলছে৷ মঙ্গলগ্রহে একবার নামার পর কোনোরকম ভুলত্রুটি হলে চলবে না, যেমনটা এখানে ঘটছে৷ অভিযানের আগে অনেক ছোট-বড় সমস্যার সমাধান করতে হবে৷ কিন্তু গবেষকরা আসলে কী চান? এক্সোমার্স প্রকল্পের খর্খে ভাগো বলেন, ‘‘লক্ষ্য হলো বৈজ্ঞানিক উপায়ে প্রাণের সন্ধান করা৷ মাটির ঠিক এক-দুই মিটার নীচের অংশই খোঁজ চালানোর আদর্শ জায়গা৷''

ইউরোপীয় মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রে যে কাজ চলছে, তার আর্থিক ব্যয়ভার কত? চাই নিত্যনতুন হাইটেক যন্ত্রপাতি৷ যেমন এক মহাকাশ সিমুলেটর৷ তাতে ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশ ভরা হয়েছে, যা পরে মঙ্গলগ্রহে পাঠানো হবে৷ বায়ুশূন্য পরিবেশ, বিকিরণ ও তাপমাত্রার বিশাল রদবদল সহ্য করা সেগুলির জন্য কতটা কঠিন?

এই প্রকল্পের বর্তমান ব্যয়ভার প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে ১০০ কোটি ইউরো ছুঁয়েছে৷ খর্খে ভাগো বলেন, ‘‘এই বিনিয়োগ ভবিষ্যতের জন্য বিনিয়োগ৷ তাছাড়া এটা এমন কোনো বড় বিনিয়োগ নয়৷ ইউরোপের প্রত্যেক নাগরিকের জন্য বছরে একটি সিনেমা টিকিট কিনতেই এত অর্থ লাগে৷ বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে প্রাণের প্রথম চিহ্ন পেতে এমন ধরনের অভিযানের জন্য এটা চাই৷''

ফেরা যাক রোবট হাত পরীক্ষার বিষয়ে৷ ডার্মস্টাট শহরে বসে ইঞ্জিনিয়ার ৫০০ কিলোমিটার দূরে একটি যন্ত্রাংশ বসাবেন৷ কিন্তু সিগনাল পৌঁছতে কয়েক সেকেন্ড দেরি হওয়ায় হাত ফসকে গেল৷ এটা কি ইঞ্জিনিয়ারদের আকাশকুসুম পরিকল্পনা?

পরীক্ষা সফল হয়েছে৷ মোবাইল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে রোবটের হাত নড়েছে৷ এটা সাফল্য বৈকি৷ একেবারে বিফল হলে সেটা খুবই লজ্জার বিষয় হতো৷

রিমোট কন্ট্রোল নিয়ে আরও গবেষণা চলছে৷ এর পরের পরীক্ষায় রেডিও তরঙ্গের মাধ্যমে রোবটের হাত চালানো হবে৷ কারণ সবাই জানে, মঙ্গলগ্রহে তো আর মোবাইল নেটওয়ার্ক নেই!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক