1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

পৃথিবীতেই এলিয়েন!

এলিয়েন অর্থাৎ ভিন গ্রহের প্রাণীদের নিয়ে আমাদের পৃথিবীবাসীর আগ্রহ অনেক৷ তাই তাদের নিয়ে হয়েছে অনেক গল্প লেখা, বানানো হয়েছে অনেক বিশ্বখ্যাত সিনেমাও৷ কিন্তু এবার বিজ্ঞানীরা বলছেন পৃথিবীতেই নাকি এলিয়েন থাকতে পারে!

default

এলিয়েন অর্থাৎ ভিন গ্রহের প্রাণীদের নিয়ে হয়েছে অনেক সিনেমা

সম্প্রতি এক জরিপে দেখা গেছে, বিশ্বের প্রতি পাঁচজনের একজন বিশ্বাস করে যে, এলিয়েনরা পৃথিবীতেই আছে৷ তারা আমাদের মধ্যেই মানুষের ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে৷ প্রায় ২২টি দেশের ২৩ হাজার প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মধ্যে জরিপটি চালানো হয়েছে৷

জরিপ থেকে পাওয়া এই ধারণা কী সত্যি হতে যাচ্ছে? অন্তত: বিজ্ঞানীরা এধরণের একটা সম্ভাবনার কথা বলছেন৷ আর বিজ্ঞানীরা যখন একটা কথা বলেন তখন ধরেই নিতে হবে সেটার মধ্যে একটা যুক্তি আছে৷

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া লেকে সম্প্রতি এক ধরণের ব্যাকটিরিয়ার সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা৷ যেটা আর্সেনিক খেয়ে বেঁচে থাকতে পারে৷ আর এতেই বেশ পুলকিত বিজ্ঞানীরা৷ কারণ আর্সেনিক প্রাণীদেহের জন্য বিষাক্ত একটা জিনিস৷ কিন্তু ঐ ব্যাকটিরিয়াটি সেই বিষাক্ত খাবার খেয়েই বেঁচে থাকতে পারছে৷ এছাড়া এতদিন পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা বলে এসেছেন, পৃথিবীতে বাস করা প্রাণীর দেহ ছয়টি উপাদান দিয়ে তৈরি৷ এগুলো হলো নাইট্রোজেন, অক্সিজেন, হাইড্রোজেন, কার্বন, সালফার এবং ফসফরাস৷ এই তালিকায় আর্সেনিকের নাম নেই৷

২০০৯ সালে প্রকাশিত মার্কিন তিন বিজ্ঞানীর এক প্রবন্ধে প্রথমবারের মতো এক ধরণের প্রাণীর কথা বলা হয় যারা ফসফরাসের পরিবর্তে আর্সেনিক ব্যবহার করে থাকে৷ এক বছর পর গবেষণার সেটা প্রমাণ করে দেখালেন তাঁরা৷ বিজ্ঞান সাময়িকী ‘সায়েন্স'এর সর্বশেষ সংখ্যায় তাঁদের গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে৷ ঐ বিজ্ঞানী দলের নেতৃত্ব দেন ওল্ফ সাইমন৷ মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার ফেলো হিসেবে কাজ করেন তিনি৷ নাসা এই গবেষণায় আর্থিক সহ সব ধরণের সহায়তা দিয়েছে৷ আর বাকি দু'বিজ্ঞানী হলেন, অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটির অ্যারিয়েল আনবার ও পল ডেভিস৷ গবেষণা সম্পর্কে সাইমন বলেন, ‘‘বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের আর কোথায় আর কী কী থাকার সম্ভাবনা আছে, তা জানার দরজাটা আমরা হুট করে খুলে ফেলেছি''৷

ক্যালিফোর্নিয়ার যে লেকে ব্যাকটিরিয়াটি পাওয়া গেছে সেটি বেশ লবণাক্ত এবং সেখানে আর্সেনিক সহ অন্যান্য খনিজ পদার্থের বেশ উপস্থিতি রয়েছে৷ লেকের একেবারে তলা থেকে জিএফএজে-১ নামের ঐ ব্যাকটিরিয়াটি সংগ্রহ করা হয়৷ এরপর ল্যাবরেটরীতে নিয়ে একটি বোতলে রাখা হয়৷ ঐ বোতলে ছিল কিছু ফসফরাস আর ছিল অনেকখানি আর্সেনিক৷ কিন্তু দেখা গেল ব্যাকটিরিয়াটি ঐ পরিবেশে বেঁচে গেল৷ একবার নয় বার বার করা হয় পরীক্ষাটি৷ আর সববারই পাওয়া যায় একই ফলাফল৷ আর তাতেই বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত হন যে এটা হয়তো কোনো সাধারণ প্রাণী নয়৷

বিজ্ঞানীদের ধারণা ছিল, কিছু কিছু ব্যাকটিরিয়া শক্তি সংগ্রহের জন্য আর্সেনিক ব্যবহার করে থাকতে পারে, যেমনটা মানুষ করে থাকে অক্সিজেন সংগ্রহের মাধ্যমে৷ কিন্তু পরীক্ষায় দেখা গেল এই ব্যাকটেরিয়াটি বেঁচে থাকার জন্যই আর্সেনিকের উপর নির্ভরশীল৷

গবেষণা দলের অন্যতম বিজ্ঞানী ডেভিস বলেন, তাঁদের এই আবিস্কার বিজ্ঞানীদের জন্য নতুন এক দুয়ার খুলে দিল৷ কারণ তাঁর ধারণা, আর্সেনিক নির্ভর প্রাণী পৃথিবীতে নিশ্চয় একটাই থাকার কথা নয়৷ ভবিষ্যতে এরকম আরও অনেক প্রাণীর অস্তিত্ব পাওয়া যাবে বলে তিনি মনে করেন৷

লিডস মেট্রোপলিটন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক জন ইলিয়ট, যিনি বহুদিন থেকে এসব বিষয়ে গবেষণা করছেন, তিনি এই আবিস্কারকে একটা অনেক বড় আবিস্কার বলে মন্তব্য করেছেন৷ তিনি বলেন, এর ফলে এটাই প্রমাণ হলো যে, বিশ্বের প্রাণীকূল শুধু নির্দিষ্ট কতগুলো সত্যের ওপরই বেঁচে থাকে, তা বোধ হয় ঠিক নয়৷ তিনি এই আবিস্কারকে দেয়াল থেকে একটা ইঁট সরিয়ে আনার সঙ্গে তুলনা করেছেন৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়