1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পূর্ব ইউক্রেনে যুদ্ধবিরতি টিকছে; পিছিয়েছে বৈঠক

রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে যুদ্ধে ফ্রন্ট বরাবর ‘‘নিঃশব্দতার দিন'' ঘোষণা করেছে কিয়েভ: মঙ্গলবার সে যুদ্ধবিরতি টিকছে৷ তবে এ দিন মিনস্ক-এ যে আলাপ-আলোচনা হবার কথা ছিল, তা অন্তত শুক্রবার পর্যন্ত পিছিয়ে যাচ্ছে৷

সিঙ্গাপুরে একটি প্রকাশ্য ভাষণে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরোশেঙ্কো বলেছেন: ‘‘দেড় ঘণ্টা আগে আমরা একটি নতুন যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করি৷ (সে'যাবৎ) একটিও গুলি চলেনি, একজন সৈন্যও নিহত হয়নি৷'' ইউক্রেন সামরিক বাহিনীর ফেসবুক অ্যাকাউন্টেও এই যুদ্ধবিরতির উল্লেখ করা হয়েছে, কিয়েভ সরকার যাকে ‘‘নিঃশব্দতার দিন'' বলে ঘোষণা করেছেন৷

এএফপি সংবাদ সংস্থার রিপোর্টাররা জানিয়েছেন যে, বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকার মুখ্য শহর দোনেৎস্ক-এ ভোর নাগাদ দু'পক্ষের গোলাবর্ষণ বন্ধ হয় – এবং সে'যাবৎ একটিও গোলার আওয়াজ শোনা যায়নি৷ এই ‘‘নিঃশব্দতার দিন''-এর পর দু'পক্ষের রণাঙ্গণ থেকে ভারী অস্ত্রশস্ত্র সরানোর কথা – অবশ্য যদি বিচ্ছিন্নতাবাদীরা অস্ত্রসম্বরণ করতে রাজি থাকে৷ নয়ত সোমবার রাত্রেও তীব্র যুদ্ধ চলেছে: সরকারি সেনাবাহিনী এবং বিদ্রোহীরা নাকি দোনেৎস্ক-এর বিধ্বস্ত শিল্পাঞ্চলের দু'পাশ থেকে পরস্পরের দিকে রুশ গ্রাড রকেট নিক্ষেপ করেছে৷

ওদিকে বেলারুশের মিনস্ক-এ আলাপ-আলোচনা মঙ্গলবারের পরিবর্তে শুক্রবার – কিংবা তারও পরে অনুষ্ঠিত হবে৷ দৃশ্যত দু'পক্ষের ‘‘কনসালটেশনস'' চলেছে, বলে কিয়েভের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে৷ মিনস্ক বৈঠক পিছনোর দাবি দৃশ্যত বিদ্রোহীদের৷ তাদের এক নেতা ডেনিস পুশিলিন এএফপি সংবাদ সংস্থাকে টেলিফোনে বলেছেন: ‘‘আমরা আলাপ-আলোচনায় অংশ নেব৷ কিন্তু তা আরো বেশি সফল হবার জন্য ঐ আলাপ-আলোচনা শুক্রবার অনুষ্ঠিত হওয়া আবশ্যক৷''

আর একটি ভালো খবর হল এই যে, ইউক্রেন গত জুন মাস যাবৎ এই প্রথম রুশ প্রাকৃতিক গ্যাসের সরবরাহ পেয়েছে – এই শীতে যা কিনা বিশেষ করে প্রয়োজন৷ রাশিয়া থেকে গ্যাস আমদানি নাকি নির্দিষ্ট সময়ের দু'দিন আগেই শুরু হয়েছে, বলে জানিয়েছে ইউক্রেনের গ্যাস পরিবহণ কোম্পানি উক্রট্রান্সগ্যাজ৷ গ্যাসের অভাবে ইউক্রেনকে এ'বছর স্কুল খোলার দিন এবং বসতবাড়িতে ‘উইন্টার হিটিং' চালু করার দিন এক মাস পিছিয়ে দিতে হয়েছে৷

সবশেষের খবরটি নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ: রাশিয়ার সমালোচনায় জার্মানি সাধারণত সংযত; কিন্তু জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল এবার রাশিয়ার ব্যাপক সমালোচনা করেছেন এই বলে যে, ক্রমেই আরো বেশি বিচ্ছিন্ন ক্রেমলিন পূর্ব ইউরোপের স্থিতি হানি করার চেষ্টা করছে এবং এই অঞ্চলের দেশগুলিকে ইইউ-এর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়া থেকে বিরত করার চেষ্টা করছে৷ যুগপৎ তিনি রাশিয়ার বিরুদ্ধে ব্রাসেলস এবং ওয়াশিংটনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থার সপক্ষে যুক্তি রাখেন৷

এসি/জেডএইচ (এএফপি, এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়