1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘পুলিশ, ডাক্তার, প্রকৌশলী ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা মাদকাসক্ত’

বাংলাদেশে মাদকাসক্তদের নিয়ে আতকে ওঠার মতো তথ্য দিয়েছেন ঢাকা রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি মোখলেসুর রহমান৷ বুধবার ঢাকায় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, পুলিশ ও প্রশাসনের একশ্রেণির কর্মকর্তা, ডাক্তার এবং প্রকৌশলীরা মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছেন৷

default

মাদকের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে ফেনসিডিল, হেরোইন, প্যাথেড্রিন ও গাজা

নিজ কার্যালয়ে মোখলেসুর রহমান বলেন, এই মাদকাসক্তির ফলে পুরো প্রশাসন এবং সেবা কাঠামোতে এক ধরনের অস্বাভাবিক অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে৷ তিনি জানান, ডাক্তারদের কেউ কেউ নাকি ফেনসিডিল খেয়ে রোগীর অপারেশন করছেন৷ আর পুলিশ ফেনসিডিল খেয়ে অপরাধীদের ধরতে যাচ্ছে৷ ফলত এতে, কি পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে তা সহজেই অনুমান করা যায়৷

ডিআইজি মোখলেসুর রহমান বলেন, বর্তমানে অপরাধ দমন অনেক কঠিন হয়ে পড়েছে৷ এর কারণ, অপরাধ প্রবণতা এখন সবখানে৷ বিশেষ করে পর্নোগ্রাফি এখন এক ভয়াবহ সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ আর আধুনিক মোবাইল ফোন এক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে বলে জানিয়েছেন তিনি৷

Cover Dokumentarfilm Porno Unplugged

বিশ্লেষকদের কথায়, মাদকের সঙ্গে পর্নোগ্রাফির সম্পর্ক রয়েছে

পুলিশই যদি মাদকাসক্ত হয় এবং অপরাধে জড়িয়ে পড়ে, তাহলে অপরাধ দমনের কি হবে জানতে চাইলে ডিআইজি বলেন, পুলিশের একার পক্ষে এখন আর অপরাধ দমন সম্ভব নয়৷ তাই তিনি পুলিশে শুদ্ধি অভিযান এবং কাউন্সিলিংয়ের কথা বলেন৷

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে মাদক একটি ভয়াবহ সমস্যা হযে দাঁড়িয়েছে৷ বিশেষ করে তরুণ সমাজ ক্রমশই মাদকের দিক ঝুঁকছে৷ গবেষণায় দেখা গেছে মাদকাসক্তদের ৮০ ভাগই ১৭ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে৷ এছাড়া, আসক্তদের ১২ থেকে ১৫ ভাগ তরুণী বা মহিলা৷ আর এই সংখ্যা দিন-দিনই বাড়ছে৷

মাদকের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে ফেনসিডিল, হেরোইন, প্যাথেড্রিন ও গাজা৷ বিশ্লেষকরা বলছেন, মাদকের সঙ্গে পর্নোগ্রাফির সম্পর্ক রয়েছে৷ তাই পর্নোগ্রাফিও বাড়ছে৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ