1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পুলিশের প্রতি সহিংসতা, মনোভাবের পরিবর্তন দরকার

বাংলাদেশে গত এক বছরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে পুলিশ সদস্যরাই সবচেয়ে বেশি সহিংসতার শিকার হয়েছেন৷ পুলিশ সদর দপ্তরের হিসাব অনুযায়ী, নিহত হন ১৫ জন পুলিশ৷ এছাড়া যাঁরা আহত হন, তাঁদের অনেকেই পঙ্গু হয়ে গেছেন সারা জীবনের জন্য৷

নিহত ১৫ জন পুলিশ সদস্যদের মধ্যে প্রায় সবাই রাজনৈতিক সহিংসতার শিকার হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন৷ তাঁদের হত্যা করা হয়েছে টার্গেট করে৷ পিটিয়ে অথবা বোমা ও পেট্রোল বোমা ছুড়ে হত্যা করা হয়েছে তাঁদের৷ এক বছরে সহিংসতার শিকার হয়ে আহত হয়েছেন ২,৮০০ পুলিশ সদস্য৷ তাঁদের মধ্যে ১৫০ জন গুরুতর আহত হয়েছেন এবং এখনও তাঁরা রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিত্‍সা নিচ্ছেন৷ এমনকি, কেউ কেউ সারা জীবনের জন্য পঙ্গু হয়ে গেছেন৷

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার বেনজীর আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, এই পুলিশ সদস্যদের টার্গেট করে হত্যা করা হয়েছে৷

Bombenanschlag in Dhaka Bangladesch ARCHIVBILD 2011

প্রশ্ন হলো, শুধুই কি নিজ দায়িত্ব পালন করেছে পুলিশ?

যাঁরা হরতাল বা অবরোধে দায়িত্ব পালন করেছেন, তাঁরাই হামলার শিকার হয়েছেন৷ জামাত-শিবিরের লোকজন যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায়ের পর পুলিশকেই টার্গেট করে৷ তিনি বলেন, পুলিশ চেষ্টা করেছে জনজীবন সচল রাখতে৷ এভাবে তাঁরা শুধুমাত্র পেশাগত দায়িত্ব পালন করেছেন৷ বেনজীর আহমেদের কথায়, ঢাকায় মোট তিনজন পুলিশ সদস্য নাশকতার শিকার হয়ে নিহত হয়েছেন৷ তাঁদের মধ্যে এস. আই. ফেরদৌস খলিলকে নভেম্বর মাসে বাংলামোটর এলাকায় পেট্রোল বোমা ছুড়ে হত্যা করা হয়৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, পুলিশের প্রতি নাগরিকদের মানসিকতার পরিবর্তন আনতে হবে৷ মনে রাখতে হবে বাংলাদেশের পুলিশ ঔপনিবেশিক পুলিশ নয়৷ স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমেই বাংলাদেশ পুলিশের জন্ম হয়েছে৷

রাজারবাগ পুলিশ লাইন থেকেই প্রথম সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়েছিল৷ তাই তিনি বলেন, পুলিশকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার বন্ধ করতে হবে৷ এই রাজনৈতিকভাবে ব্যবহারের জন্য রাজনীতিবিদরাই দায়ী৷ তাঁর কথায়, সরকারে যাঁরা থাকেন তাঁরা তাঁদের ক্ষমতা এবং প্রভাবের জন্য পুলিশকে ব্যবহার করেন৷ আর যাঁরা বিরোধী দলে থাকেন তাঁরাই পুলিশকে প্রতিপক্ষ বিবেচনা করে তাঁদের ওপর হামলা চালান৷ ফলে নিজেদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে নাশকতার শিকার হন পুলিশরা৷ প্রাণ দেন, যা খুবই দুঃখজনক৷

এদিকে এই নাশকতার হাত থেকে বাঁচতে পুলিশ বাহিনীর জন্য কিছু আধুনিক সরঞ্জাম আনার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার৷ তার মধ্যে সর্বাধুনিক বুলেট প্রুফ ভেস্ট, ভিডিও হেলমেট, ক্রিস সাব মেশিন গান এবং আধুনিক ওয়্যারলেস সিস্টেম অন্যতম৷ ইতিমধ্যে তাঁদের জন্য যুক্ত করা হয়েছে মোবাইল ওয়াচ টাওয়ার৷ তাছাড়া, নাশকতার শিকার পুলিশ সদস্য ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের জন্য ক্ষতিপূরণ বাড়ানো এবং সরকারি খরচে দেশে-বিদেশে উন্নত চিকিত্‍সার ব্যবস্থার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন