1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘পুলিশের কোনো শিক্ষা হয়নি'

গত বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফার্গুসন শহরে পুলিশের গুলিতে মাইকেল ব্রাউন নামের এক তরুণ নিহত হয়৷ সারা দেশ উত্তাল হয়ে ওঠে৷ এক বছর পরেও বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ দূর হয়নি৷ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতিরও উন্নতি হয়নি৷

ফার্গুসন – এক বছর আগে এবং পরে৷ অনেকেই পরিস্থিতির মধ্যে বিশেষ পার্থক্য দেখতে পাচ্ছেন না৷ আজকের অ্যামেরিকা, প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার অ্যামেরিকায় যে বর্ণবাদের এমন জোরালো অভিযোগ বার বার উঠতে পারে, তা মেনে নিতে অনেকেরই কষ্ট হচ্ছে৷ একদিকে তীব্র আবেগের ফোয়ারা, অন্যদিকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা পরিস্থিতি শান্ত করার বদলে উত্তেজনা আরও বাড়িয়ে তুলছে৷ ঘটনাস্থল থেকেই মানুষ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম, যেমন টুইটারের মাধ্যমে নিজেদের বক্তব্য ছড়িয়ে দিচ্ছেন৷

যাজক কোরি বুশ মরিয়া হয়ে লিখেছেন, ‘‘চারিদিক বন্ধ করে ওরা আমাদের উপর কাঁদানে গ্যাস ও রবার বুলেট ছুড়ছে৷ আমরা কীভাবে বেরোবো?''

মাইকেল স্কলনিক পরিস্থিতির বর্ণনা দিতে গিয়ে লিখেছেন, প্রায় ৫০টি পুলিশের গাড়ি দেখা যাচ্ছে৷ বিশেষ সোয়াট বাহিনী এসে পড়েছে৷ বন্দুক প্রস্তুত রয়েছে৷ পরিস্থিতি খুবই সিরিয়াস৷

সাংবাদিক টিম পুল মনে করেন, পুলিশ বুঝছে না, যে প্রতিবাদকারীদের উপর হামলা চালালে আরও প্রতিবাদ দেখা যাবে৷

প্রোপেন জেন আক্ষেপ করে লিখেছেন, চারিদিকে কাঁদানে গ্যাস, সাঁজোয়া গাড়ি, অটোম্যাটিক অস্ত্র থাকলে শান্তির পরিবেশ কীভাবে সম্ভব? এখানে যা দেখা যাচ্ছে, তাই তো বাস্তব৷

টুইটারে ‘হ্যাশট্যাগ ফার্গুসন' লিখে বার্তা ছড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হলেও ইনস্টাগ্রাম ও ফেসবুক এই হ্যাশট্যাগ ব্লক অথবা সেন্সর করছে বলে অভিযোগ করছেন অনেকে৷ তাঁরা মনে করেন, এই পদক্ষেপ আসলে ক্ষমতার অপব্যবহারের দৃষ্টান্ত৷

সিএনএন ফার্গুসন-এর অস্থায়ী পুলিশ প্রধানের সাক্ষাৎকার নেবার সময় গুলির শব্দ শোনা গেছে – এই ভিডিওটি শেয়ার করেছেন মার্সিডিস নামের এক টুইটার ব্যবহারকারী৷

এনবিসি নেটওয়ার্কের সাংবাদিক ক্রিস্টিনা কোলম্যান জানিয়েছেন, তিনি ভিড়ের মধ্যে একটি ছোট ছেলের কণ্ঠ শুনতে পেয়েছেন, যে পুলিশকে বলছে, ‘‘তোমরা আমাকে খুন করতে চাও!'৷

ব্রিটানি প্যাকনেট হতাশা প্রকাশ করে লিখেছেন, এক বছর পরেও ফার্গুসন ও কাউন্টি পুলিশ কোনো শিক্ষা নিয়েছে বলে মনে হয় না৷

সংকলন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন