1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

স্বাস্থ্য

‘পুরুষরা নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদে বাধ্য করে'

সোমবার ছিল যৌনাঙ্গচ্ছেদ বিরোধী বিশেষ আন্তর্জাতিক দিবস৷ এই দিনে জাতিসংঘ বিশ্বব্যাপী যৌনাঙ্গচ্ছেদ বন্ধের জোর আহ্বান জানায়৷ ডয়চে ভেলে তানজানিয়া আর গিনি-বিসাউয়ের উপর এই প্রতিবেদনটি করেছে৷

গত ৬ ফেব্রুয়ারি সারা বিশ্বে পালিত হয় ইন্টারন্যাশনাল ডে অব জিরো টলারেন্স অব ফিমেল জেনিটাল মিউটিলেশন৷ তো সারা বিশ্বে যখন যৌনাঙ্গচ্ছেদ বন্ধের দাবি জোরালো হচ্ছে, তখন তানজানিয়া আর গিনি-বিসাউয়ের পরিস্থিতি কেমন?

কিলিমাঞ্জারো পর্বতের খুব কাছে তানজানিয়ার মানইয়ারা গ্রাম৷ ২০১৬ সালের ৩০ ডিসেম্বরের ঘটনা৷ এক দাদী ছুরি দিয়ে তার নাতনীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ করেছেন৷ দুই সপ্তাহেও রক্তপাত বন্ধ না হওয়ায় ঐ মেয়েটির হাসপাতালে মৃত্যু হয়৷ তার বয়স ছিল ১৭ বছর৷ তানজানিয়ায় নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ নিষিদ্ধ হয়েছে ২০ বছর আগে৷ কিন্তু এমন কিছু ঘটনা থেকেই বোঝা যায়, নিষিদ্ধ হলেও নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ এখনো বন্ধ হয়নি৷

তানজানিয়ার উত্তর পশ্চিমের মারা অঞ্চলের পুলিশ কর্মকর্তা সমু নাসোনগোমা ডয়চে ভেলেকে জানালেন, তাঁরা নতুন নতুন ঘটনার খবর পাচ্ছেন৷ যৌনাঙ্গচ্ছেদ করায় অনেককে গ্রেপ্তারও করেছেন, কিন্তু আদালতে সবাই রেহাই পেয়ে যায়৷

যৌনাঙ্গচ্ছেদের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাচ্ছে মিমুতি নামে একটি সংগঠন৷ সংগঠনের প্রধান রোজ নিজিলো জানালেন, তানজানিয়ার উত্তরাঞ্চলের ২৫ শতাংশেরও বেশি নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ হয়েছে৷ গত দুই বছর ধরে এফজিএম বা নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা৷ যৌনাঙ্গচ্ছেদ অবৈধ হওয়ার পরও প্রত্যন্ত ও যাযাবর গোষ্ঠীর মধ্যে এর প্রচলন খুব বেশি বলেও জানালেন তিনি৷ যৌনাঙ্গচ্ছেদের ফলে যে মানবদেহ ক্ষতিগ্রস্ত হয়, এ বিষয়ে মাসাই এবং অন্যান্য আদিবাসী গোষ্ঠী অবহিত নয়৷ তাঁদের ধারণা, এটা তাঁদের সংস্কৃতির অংশ এবং এর ফলে একজন মেয়ে নারীতে পরিণত হয়৷

নিষেধাজ্ঞার পরও গিনি-বিসাউয়ে চলছে যৌনাঙ্গচ্ছেদ

২০১১ সাল থেকে আফ্রিকার এই দেশটিতে নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ নিষিদ্ধ৷ কিন্তু মুসলিমদের একটি অংশ এখনো তা চালিয়ে যাচ্ছে৷ দেশটিতে ৪০টি আদিবাসী গোষ্ঠীর বাস এবং মোট জনগোষ্ঠীর অর্ধেক মুসলিম৷ রাজধানী মিসরা'র মুসলিমদের প্রধান ইসাইয়া জেলো ডয়চে ভেলেকে বললেন, ‘‘গিনি-বিসাউয়ের ৯৫ শতাংশ মুসলমান বিশ্বাস করেন, ইসলামে নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদের কথা বলা হয়েছে৷ এই দেশে হাজার বছর ধরে ইসলামিক আদিবাসীদের মধ্যে এই প্রথা চলে আসছে৷'' জেলো নিজেও বিশ্বাস করেন, নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ করা উচিত৷

২০১১ সাল থেকে আফ্রিকার এই দেশটিতে নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ নিষিদ্ধ

২০১১ সাল থেকে আফ্রিকার এই দেশটিতে নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ নিষিদ্ধ

তবে দেশটির সাবেক পরররাষ্ট্র মন্ত্রী ফাতুমাতা ডিজো এই প্রথার বিরুদ্ধে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন৷ তাঁর মতে, গিনি-বিসাওয়ের পুরুষরা নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদে বাধ্য করে৷ তারাই প্রচার করে, এটা নাকি ধর্মীয় অনুশাসন৷ অনেকে এমনও প্রচার করে যে, কোরানে যৌনাঙ্গচ্ছেদের কথা বলা হয়েছে৷ বেশিরভাগ নারীই তাদের কথা বিশ্বাস করেন, কেননা, তাঁরা নিজেরা পড়তে, লিখতে জানেন না৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, গিনি-বিসাউয়ের অর্ধেক নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ করা হয়েছে৷ তবে বিভিন্ন সংগঠনের প্রচারণার কারণে ১৪৬ টি গ্রামে বিভিন্ন সম্প্রদায় নারীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ বন্ধে সম্মত হয়েছে৷ তবে এজন্য শিক্ষা এবং সচেতনতা খুব জরুরি বলে মনে করেন ফাতুমাতা৷

প্রতিবেদন: আন্তোনিও কাসকাইস/এপিবি

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন