1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

পুরানো আসবাবপত্রের নতুন রূপ

জার্মানির মতো ‘বাই অ্যান্ড থ্রো' সমাজে পুরানো জিনিসের ব্যবহার তেমন দেখা যায় না৷ অথচ সেই জার্মানিতেই, সৃজনশীলতা কাজে লাগিয়ে পুরানো আসবাবপত্রগুলিকে নতুন রূপে তুলে ধরছেন এক শিল্পী৷

মানফ্রেড ভাইশার্ট পুরানো আসবাবপত্রের হাল ফেরান৷ তবে বাতিল এই কাঠ আগের অবস্থায় ফেরানো সম্ভব না হলেও তিনি তা দিয়ে নতুন ডিজাইনের কিছু বানাতে পারেন৷ একে বলে ‘আপসাইক্লিং'৷ তিনি বললেন, এটা বেশ সুন্দর, বিরলও বটে৷ যে দিয়েছে, সে মেলায় স্টল তৈরি করে৷

ফেলে দেওয়া জিনিস একসময় এত সুন্দর হয়ে উঠতে পারে৷ বছর তিনেক আগে সহকর্মী রিকে স্টার-এর সঙ্গে তিনি এই কাজ শুরু করেছিলেন৷ এত কাঠ যেভাবে ফেলে দেওয়া হয়, তা দেখে দুজনেই দুঃখ পেয়েছিলেন৷ সেই চিন্তা থেকেই ব্যবসা শুরু হয়৷ ভাইশার্ট বলেন, ‘‘যন্ত্রপাতি বা বাদ্যযন্ত্র পরিবহনের জন্য মজবুত কাঠের বাক্স তৈরির সময় এই সব অংশ পড়ে থাকে৷ এক নির্মাতাকে চিনি, যিনি এমন ‘ফ্লাইট কেস' তৈরি করেন৷ আবর্জনা ফেলতে তাঁকে অনেক খরচ করতে হয়৷ তিনি আমাদের বললেন, এসব দিয়ে সুন্দর কিছু তৈরি করতে পারলে নিয়ে যাও৷''

Bild_3 Sideboard aus Ölkanistern

পুরানো থেকে নতুন

দু'জনেরই মাথায় তখন সুন্দর একটা পরিকল্পনা এসে গেল৷ তবে তার জন্য বেশ কিছু উপায় বের করতে হয়েছে৷ সমস্যা হলো, দুই ডিজাইনার ছোটখাটো কাঠের টুকরো পান৷ সে সব দিয়ে বড় আসবাবপত্র তৈরি করা বেশ কঠিন৷ তবে তাঁরা সেই অসাধ্য সাধন করেছেন৷ বিভিন্ন মেলায় এখন তাঁদের পণ্য বিক্রি হয়৷ সেখানে শুধু যে এমন ‘আপসাইক্লিং' আসবাবপত্র পাওয়া যায়, তাই নয়৷ আছে সাইকেলের পুরানো টায়ার দিয়ে হাতের গহনা৷ পুরানো পাকানো খবরের কাগজ দিয়ে তৈরি হয় চেয়ারের বসার অংশ৷ দমকলের পাইপ থেকে কোমরের বেল্ট৷

চায়ের খালি বস্তা দিয়ে কাঁধে ঝোলানোর ব্যাগ৷ আসলে ‘আপসাইক্লিং' হলো ‘রিসাইক্লিং'-এর নতুন রূপ৷ এতে আবর্জনার একটা গতি হয়৷ একেই বলে ‘টেকসই' আচরণ৷ টেকসই ডিজাইন সংস্থার ব্যার্নড ড্রাসার বলেন, ‘‘টেকসই উন্নয়ন ও ইকোলজি যখন মূলমন্ত্র হয়ে উঠছে, তখন ডিজাইনই বা বাদ যাবে কেন! ডিজাইনারের কাছেও এটা একটা চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠে৷ আজ তাদের মাথা খাটিয়ে পথ খুঁজতে হচ্ছে৷''

তবে এমন টেকসই উদ্যোগ এখনো সবার নজর কাড়ে না৷ রিকে স্টার ও মানফ্রেড ভাইশার্ট-এর তৈরি আসবাবপত্রের ক্রেতার সংখ্যা এখনো হাতে-গোনা৷ রিকে স্টার বলেন, ‘‘তারা অদ্ভুত সব প্রশ্ন করে৷ বলে, এটা আবার কী? এসব দিয়ে কী হবে? যখন বলি, ফেলে দেওয়া জিনিস কাজে লাগিয়ে এসব তৈরি করা হয়েছে, তখন তারা বেশ পছন্দ করেন৷''

যেমন ড্রয়ার-ভরা আসবাব৷ তৈরি হয়েছে ফেলনা জিনিস দিয়ে, কিন্তু বিক্রি করলে যা পাওয়া যায়, তার দাম অনেক গুণ বেশি৷ যা বাকি রয়ে গেল, তা হয়ত পরের মেলায় বিক্রি হবে৷

এসবি/ডিজি

সংশ্লিষ্ট বিষয়