1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পুনের বোমা হামলার ছায়া আসন্ন ভারত-পাকিস্তান বৈঠকে

ভারতের পুনে শহরে জার্মান বেকারি নামে এক রেস্তোঁরায় শনিবারের সন্ত্রাসী বোমা হামলা ভারত-পাকিস্তানের আসন্ন শান্তি আলোচনাকে দাঁড় করিয়েছে প্রশ্নচিহ্নের মুখে৷ যদিও সরকারি সূত্রে বৈঠক বাতিলের কথা বলা হয়নি৷

default

আগামী ২৫শে ফেব্রুয়ারি ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ের বৈঠক বসার কথা৷ সেই বৈঠক বানচাল করতেই কী সন্ত্রাসীরা সহজ নিশানা হিসেবে বেছে নেয় মহারাষ্ট্রের পুনে শহরের কেন্দ্রস্থলে জার্মান বেকারি নামে এক জনপ্রিয় রেস্তোঁরাটিকে ? যেখানে বিদেশি পর্যটকদেরই ভিড় থাকে বেশি৷ এখনও পর্যন্ত বিস্ফোরনে নিহত ৯ এবং আহত জনা চল্লিশেক৷ আহত বিদেশিদের মধ্যে আছেন একজন জার্মান৷ উল্লেখ্য, জার্মান বেকারির উল্টো দিকে আছে ইহুদি সেন্টার এবং ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে আন্তর্জাতিক মেডিটেশন সেন্টার ওশো আশ্রম৷ সেখানেও বিদেশিদের ভিড় লেগেই থাকে৷ জার্মান বেকারি স্বল্প দামের এক ছিমছাম রেস্তোঁরা৷ কম দামে বিদেশিদের উপযুক্ত খাবার দাবার পাওয়া যায়৷ মালিক একজন ভারতীয়৷ জার্মানিতে কয়েক বছর কাটিয়ে পুণেতে ফিরে জার্মান বেকারি রেস্তোঁরাটি খোলেন তিনি ১৯৮৭তে৷

সন্দেহের তীর এখন পর্যন্ত লস্কর-ই-তৈয়বার মদতপুষ্ট স্থানীয় ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন জঙ্গি গোষ্ঠীর দিকে৷ পাকিস্তানি বংশোদ্ভুত মার্কিন নাগরিক ডেভিড হেডলি , সন্ত্রাসী কার্যকলাপে জড়িত সন্দেহে মার্কিন আদালতে যার বিচার চলছে, তাকেও সন্দেহের বাইরে রাখা যাচ্ছেনা৷ পররাষ্ট্র মন্ত্রী এস.এম কৃষ্ণা মনে করেন, ভারত-পাকিস্তান বৈঠক নিয়ে এক বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে পুনে বোমা হামলাকে ঘিরে৷ বিস্ফোরনের তদন্ত রিপোর্টের পরই বৈঠকের বিষয়ে বলা যাবে৷ সরকারি অন্য সূত্রে অবশ্য বৈঠক বাতিলের কথা বলা হয়নি৷ প্রধান বিরোধি দল বিজেপি বলেছে, সন্ত্রাস ও শান্তি আলোচনার সহাবস্থান হতে পারেনা৷ তাই আলোচনা স্থগিত রাখাই কূটনৈতিক বিধেয়৷ পর্যবেক্ষক মহল বলছেন , পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি, ভারতের পররাষ্ট্রনীতি ও কৌশলগত স্বার্থ মাথায় রেখেই বৈঠকের দিনক্ষণ স্থির করা উচিত ছিল৷দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক বিদ্যুত চক্রবর্তী ড্যয়েচে ভেলেকে বলেন, ভারত-পাকিস্তান বৈঠকের ওপর এর প্রভাব পড়তেই পারে৷ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে সন্দেহ ও অবিশ্বাস সৃষ্টি করাই সন্ত্রাসীদের উদ্দেশ্য৷ দুদেশের সুশীল সমাজ দুদেশের সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে যে উদ্যোগ নিয়েছে সেটা বানচাল করতে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলি এবং সরকারের কায়েমি স্বার্থান্বেষী চক্র তত্পর৷

প্রতিবেদকঃ অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লি

সম্পাদনাঃ সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়