1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

পুঁজিবাজারে দীর্ঘস্থায়ী মন্দা, বিনিয়োগকারীদের হতাশা

হঠাৎ করেই যেন বিষয়টি আবার উঠে এসেছে পত্রপত্রিকার শিরোনামে৷ অন্যদিকে গ্রীষ্মের দাবদাহের বদলে ঘন ঘন বরিষণ, তা নিয়েও চিন্তা: এ’ও কি জলবায়ু পরিবর্তনের লক্ষণ?

default

আগুন জ্বলেছিল স্টক এক্সচেঞ্জের সামনে

দৈনিক জনকণ্ঠের শিরোনাম ছিল: মহামন্দা৷ দেখলে মনে হতে পারে, যেন কোনো মহামারি! সেই মহামারিতে প্রাণ যাচ্ছে তথাকথিত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের৷ অন্যদিকে কারও তা নিয়ে মাথাব্যথা নেই, অন্তত সেই অভিযোগ বিনিয়োগকারীদের৷

পুঁজিবাজারে ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি একটানা ধসের পর কিছুটা স্থিতিশীলতা তৈরি হয়েছিল৷ সেটা সরকারের কিছু ইতিবাচক ঘোষণার ফলে৷ কিন্তু এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ থেকে শেয়ারবাজার আবার পতনের ধারায় ফিরে এসেছে৷ জনকণ্ঠের ভাষায়: অধিকাংশ কোম্পানির দর স্মরণকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে৷ ফলে পুঁজি হারিয়ে নিঃস্ব হতে চলেছেন লাখ লাখ বিনিয়োগকারী৷

এই বিনিয়োগকারীরা কারা? যারা মার্জিন ঋণ নিয়ে শেয়ার ব্যবসা করেন, তারা৷ আবার যারা হয়তো বাবার পেনশনের টাকা নিয়ে শেয়ার কেনেন, তারাও৷ জনকণ্ঠ বিও হিসাবধারীদের পরিসংখ্যান তুলে ধরেছে, প্রায় ৩৩ লাখ৷ তাদের মধ্যে ১১ লাখ নিয়মিত লেনদেনে সক্রিয়৷ প্রথম আলো লিখছে: ‘বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, আর্থিক সংকট নয়, বাজারে সমস্যা এখন আস্থার অভাব৷ আস্থার এই সংকট না কাটলে বাজারও ফিরবে না ইতিবাচক ধারায়৷'

ওদিকে গ্রীষ্মের তাপমাত্রা চল্লিশ ছাড়াচ্ছে না বলেও অনেকে চিন্তায় পড়েছেন৷ জনকণ্ঠের কাছে যা জলবায়ুতে ব্যাপক পরিবর্তনের প্রমাণ৷ তাদের প্রতিবেদন শুরুই হয়েছে ‘উষ্ণায়নের প্রভাব', এই কথাগুলো দিয়ে৷ তার পরেই এসেছে ‘বায়ুমণ্ডলে অস্থিরতা'র প্রসঙ্গ, ভারতের আবহাওয়াবিদরাও যে'কথা বলেছেন৷ সমকালও তার প্রতিবেদন শুরু করেছে এইভাবে: ‘জলবায়ু পরিবর্তনের সুদূরপ্রসারী প্রভাব নিয়ে তুমুল আলোচনার মধ্যে নীরবেই চরিত্র বদল করেছে আবহাওয়া৷' এবং শেষে পরিবেশ আন্দোলনের সভাপতি ড. আবদুল মতিনের উদ্ধৃতি দিয়েছে, যিনি এই ‘এরাটিক ক্লাইমেট' বা‘আবহাওয়ার খেয়ালিপনা'কে জলবায়ু পরিবর্তনের লক্ষণ হিসেবে দেখছেন৷ তবে তিনি বলেছেন যে, এর জন্য যে এখনই বড় ক্ষতি হবে, এমন নয়৷

গ্রন্থনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন