1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

পাহাড়ে যখন আঁধার নামে

জার্মান আলোকচিত্রশিল্পী ব্যার্ন্ড রিচেল সারা জীবন ধরে পাহাড়ের রৌদ্রঝলমল, সুখি, বিজ্ঞাপনের সুদিকটিই দেখিয়েছেন তাঁর ছবিতে৷ কিন্তু তাঁর ক্যামেরায় পর্বতঘেরা পৃথিবীর অন্য এক চেহারাও ধরা পড়েছে৷

সুন্দর, সুবিশাল, নয়নাভিরাম পাহাড়-পর্বতের ছবি দেখে দেখে মানুষের চোখ পচে গেছে৷ জার্মানির মানুষ, পর্বতারোহী ও আলেকচিত্রশিল্পী ব্যার্ন্ড রিচেলও সেটা জানেন৷ বিজ্ঞাপন সংস্থা আর তাদের মক্কেলরা ব্যার্ন্ডের কাছ থেকে নিসর্গের ছবিই কিনতে চায়, রৌদ্রকরোজ্জ্বল, সুভাসিত প্রকৃতিদেবীর ছবি৷ তাই মাঝেমধ্যে একটু অন্যরকম ছবি তোলার সাধ হয় ব্যার্ন্ডের৷

‘‘গত ২৯ বছর ধরে নৈসর্গিক দৃশ্য খুঁজে বেড়াচ্ছি'', বলেন ব্যার্ন্ড৷ ‘‘আমার সমস্ত অভিজ্ঞতা আর দক্ষতার ভিত্তি হল আবহাওয়ার পূর্বাভাস; পরিষ্কার আকাশ, সুন্দর আলো৷ কিন্তু ভালো আবহাওয়ার জন্য অপেক্ষা করার সময় প্রকৃতির নাটকীয় দিকটাও দেখেছি – আর তার ছবি তুলেছি৷ সেই সব গুরুগম্ভীর, রহস্যময়, বিষাদমলিন মুহূর্তের ছবি নানা সম্পাদকীয় বিভাগকেও পাঠিয়েছি৷ কিন্তু তারা সবাই মাথা নেড়ে বলেছে, না, ও সব ছবি চলবে না৷ সকলের শুধু সুন্দর ছবি চাই৷''

ভিডিও দেখুন 04:30

ক্যামেরায় পাহাড়ের অন্য রূপ

অন্ধকারে আলো

অথচ অন্ধকারই আলোকে ফুটিয়ে তোলে৷ অন্ধকারের একটা নিজস্ব রূপ আছে – যেমন আল্পস পর্বতমালার মঁ ব্লঁ পর্বতশিখরের ল্য গ্রঁদ শোরাস – আলো-আঁধারিতে ভীতিময়৷ রিচেল-এর বিষয়বস্তু হলো তাই: আঁধার, প্রকৃতির নাটকীয় রূপ, যেমন শেক্সপিয়ারের নাটকে পাওয়া যায়৷

‘‘আমি শুধু বাভেরিয়ার এই পাহাড়ি এলাকাতেই সাত-আটবার ঝড়বৃষ্টির পিছনে দৌড়েছি – বাড়ির কার্নিশের নীচে কিংবা ঝোপঝাড়ের নীচে দাঁড়িয়ে – কিন্তু কোনো ভালো ছবি তুলতে পারিনি'', শোনালেন ব্যার্ন্ড৷‘‘তারপরে আসে কখেল হ্রদের উপর সেই চূড়ান্ত কালবৈশাখি, কোনোরকম বৃষ্টি ছাড়াই৷ অথচ এখানেই আমার বাস৷ আর এখানেই আমি আমার সেরা বজ্র-বিদ্যুতের ছবিগুলো তুলতে পেরেছি৷ তবে বহুবছর সময় লেগেছে৷''

পর্বতারোহী এবং আলোকচিত্রশিল্পী হিসেবে তিনি পাহাড় চেনেন; গেছেন হিমালয় থেকে পাটাগোনিয়ার লোফোটেন পর্বতমালা অবধি সর্বত্র৷ আবার খুব কাছেই: অস্ট্রিয়ার ও্যটসটাল উপত্যকায়৷ হিমবাহের গহ্বরের মধ্যে ঢুকে দেখা, সেখানে কী আছে ও তার ছবি তোলা৷

কেননা এ এমন একটি বস্তু, যা উপে যাবে, হারিয়ে যাবে; আল্পস পর্বতমালার হিমবাহগুলির দিন ফুরিয়ে আসছে৷

পাহাড়ের ডাক

ব্যার্ন্ড বলেন, ‘‘অধিকাংশ মানুষ বা পর্বতারোহী ম্যাটারহর্ন, গ্রোসগ্লকনার-এর মতো সুবিখ্যাত চুড়োগুলোর দিকে দৌড়ান, যাদের নাম সবাই চেনে৷ যাতে পরে অফিসে গিয়ে বড়গলা করে বলা যায়, ‘আমি ম্যাটারহর্নে চড়েছিলাম৷' যত নির্জন পাহাড়, ততো গভীর সেই অনুভূতি৷ চড়া ঠিক ততটাই কঠিন, উচ্চতাও এক, তবুও...৷''

ব্যার্ন্ড রিচেল-এর ছবির বইটির নাম ‘‘ডার্ক মাউন্টেন্স'', ‘আঁধার পাহাড়'৷ ক্ষণভঙ্গুর, স্বল্পস্থায়ী৷ এংগাডিন-তে শেষ ঝড় যে ক্ষয়ক্ষতি করেছে; সুইজারল্যান্ডের গ্রিন্ডেলভাল্ড হিমবাহ; যা কিছু ভগ্ন, রিক্ত, আহত, তাই যেন ব্যার্ন্ড রিচেলের ক্যামেরায় ধরা পড়ে৷

‘ডার্ক মাউন্টেন্স' বইটিতে তার অন্য দিক, তার অন্ধকার দিকটিকেও দেখা যায় – যেন পাহাড়ের অন্য মুখ৷

 লার্স  ফ্রিডরিশ/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়