1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

পাহাড়চূড়ায় মিষ্টিমুখের অভিনব অভিজ্ঞতা

প্রায় ৩,৫০০ মিটার উচ্চতায় হিমবাহের উপর রেস্তোরাঁয় বসে অস্ট্রিয়ার জনপ্রিয় ‘কাইজারশ্মার্ন’ খাওয়ার মজাই আলাদা৷ তবে এমন রেস্তোরাঁ ও কনফেকশনারি চালানোর কাজ মোটেই সহজ নয়৷

পিৎসটাল হিমবাহ অস্ট্রিয়ার উচ্চতম স্কিয়িং এলাকা৷ মে মাস পর্যন্ত স্কিয়িং মরসুম চালু থাকে৷ ৩টি রেস্তোরাঁয় স্কি-প্রেমীরা খাওয়াদাওয়া করতে পারেন, তার মধ্যে একটি হিমবাহের শীর্ষে প্রায় ৩,৫০০ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত৷ বাকিগুলির উচ্চতা ৩,০০০ মিটার উচ্চতার কাছাকাছি৷

যাঁরা স্কি করতে আসেন, তাঁদের অন্যতম প্রিয় পদের নাম ‘কাইজারশ্মার্ন', যা এক ধরনের মিষ্টি৷ অস্ট্রিয়া, বিশেষ করে আল্পস পর্বতে এই খাবার অত্যন্ত জনপ্রিয়৷ কারো দাদি-নানির রান্নার কথা মনে পড়ে যায়৷ দুই রেস্তোরাঁর কাছেই অস্ট্রিয়ার সর্বোচ্চ কনফেকশনারি বা কেকের দোকান৷ স্টেফানি সান্টেলের সেখানে কাজে ব্যস্ত৷ তিনি বলেন, ‘‘এখানেই আমরা সব কিছু বেক করি, দুই রেস্তোরাঁর জন্য সব মিষ্টি এখানেই তৈরি হয়৷ উপরের কাফের জন্যও তাজা কেক-মিষ্টি এখান থেকেই যায়৷'' 

প্রতিদিন সকালে কেবল কারে অস্ট্রিয়ার সর্বোচ্চ কাফেতে কেক-মিষ্টি পাঠানো হয়৷ কাফে'র নাম অনুবাদ করলে দাঁড়ায় ‘কাফে তিন-চার-চল্লিশ'৷ কনফেকশনরি থেকেও প্রায় ৬০০ মিটার উপরে সেটি অবস্থিত৷ অসাধারণ দৃশ্য দেখতে দেখতে সেখানে হিমবাহ তুষার কেক খাওয়ার মজাই আলাদা!

তবে এই উচ্চতায় কেক তৈরির নানা ফ্যাসাদ আছে৷ স্টেফানি সান্টেলের এ বিষয়ে বলেন, ‘‘২,৮৪০ মিটার উচ্চতায় বাতাসের চাপের কারণে স্পঞ্জ কেকের বেস নিয়ে ৩,৪৪০ মিটার উচ্চতায় স্ফুটনাঙ্ক বা জল ফোটার তাপমাত্রা নিয়ে সমস্যা হয়৷ খারাপ আবহাওয়ার পূর্বাভাষ থাকলে কেকের বেস একদিন আগেই তৈরি করে ফেলি৷ তা না হলে কেক হালকা হয় না৷

তবে ‘কাইজারশ্মার্ন' বানাতে এত কিছু ভাবতে হয় না৷ তার উপকরণও খুব সাধারণ – দুধ, ডিম, ময়দা আর চিনি থাকলেই হলো৷ প্রথমে ময়দায় দুধ মেশানো হয়, তারপর ডিমের সাদা অংশ আলাদা করে চিনি দিয়ে ফেটানো হয়৷ ডিমের কুসুম এবার ময়দা ও দুধের তালের সঙ্গে ভাল করে মেশাতে হবে, যাতে মিষ্টি ফুলে-ফেঁপে ওঠে৷ স্টেফানি সান্টেলের বলেন, ‘‘পিৎসটালার হিমবাহে আমরা ময়দায় মিনারেল ওয়াটার মেশাই না, বরং ডিমের সাদা অংশ ব্যবহার করি৷ তাই কাইজারশ্মার্ন শুকনা হয়ে যায় না, অনেকক্ষণ রসালো থাকে৷ এবার কিশমিশও দেওয়া যায়৷ পিৎসটালার হিমবাহে আমরা কিশমিশ ব্যবহার করি, তবে সেটি ছাড়াও মিষ্টি বানানো যায়৷''

৫ মিনিট করে দুই দিকে বেক করলেই কাইজারশ্মার্ন প্রস্তুত হয়ে যায়৷ কাইজারশ্মার্নের নামের ইতিহাস নিয়ে নানা মত আছে৷ পাতলা ডিমের কেক করতে গিয়ে ভুলের কারণে নাকি এই মিষ্টি তৈরি হয়েছিল৷ অস্ট্রিয়ার সম্রাট ফ্রানৎস ইয়োসেফ খুব মিষ্টি খেতে ভালবাসতেন৷ তাঁর প্রিয় ডিমের কেক ঘেঁটে যাওয়ার পর ভৃত্যরা চামচে করে সেটি পরিবেশন করে৷ তখন থেকেই কাইজারশ্মার্ন হিসেবে এই মিষ্টি পরিচিত৷

শুধু পিৎসটালই নয়, এই মিষ্টি অস্ট্রিয়ার খাদ্যতালিকার অন্যতম প্রিয় পদ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক