1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পার্সেল বোমা'র লক্ষ্য সার্কোজি, দূতাবাস

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নিকোলা সার্কোজি এবং এথেন্সের তিনটি দূতাবাসে পাঠানো হচ্ছিল পার্সেল বোমা৷ কিন্তু কুরিয়ায় কার্যালয়েই জ্বলে ওঠে একটি বোমা৷ গ্রিস পুলিশ ইতিমধ্যে আটক করেছে দুই সন্দেহভাজন চরম বামপন্থী জঙ্গিকে৷

default

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নিকোলা সার্কোজি(ফাইল ফটো)

গ্রিসে পার্সেল বোমা

এথেন্সের একটি কুরিয়ার কার্যালয়ে প্রথম পার্সেল বোমাটির সন্ধান মেলে৷ মেক্সিকো দূতাবাসের ঠিকানা লেখা একটি পার্সেল দেখে কুরিয়ার কর্মীর সন্দেহ হলে সেটিকে তিনি মেঝেতে ছুড়ে দেন৷ সঙ্গে সঙ্গে জ্বলে যায় পার্সেল বোমাটি৷ চারদিক ছেয়ে যায় কালো ধোঁয়ায়৷ এই ঘটনায় আহত হন একজন৷ গ্রিস টেলিভিশনে দেয়া সাক্ষাৎকারে ঘটনার এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, সেখানে কোন বিস্ফোরণ ঘটেনি, তবে আমি ধোঁয়া বেরুতে দেখেছি এবং একজন মহিলার চিৎকার শুনেছি৷

এই ঘটনার পর পরই সক্রিয় হয় পুলিশ৷ কুরিয়ার কার্যালয়ের কাছের বাস স্টেশন থেকে ২২ এবং ২৪ বছর বয়সি দু'জনকে আটক করা হয়৷ পুলিশ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আটককৃতরা মোট চারটি পার্সেল পাঠানোর চেষ্টা করে৷ তাদের সঙ্গে অস্ত্র পাওয়া গেছে৷ একজন বুলেট-অভেদ্য পোশাক এবং উইগ পরিহিত ছিল৷

বাকি পার্সেলের খোঁজ

সন্দেহভাজনদের পকেটে থাকা একটি বিল দেখে দ্বিতীয় বোমাটির সন্ধান পায় পুলিশ৷ এটির গন্তব্য ছিল ডাচ দূতাবাস৷ এছাড়া ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নিকোলা সার্কোজি এবং বেলজিয়ান দূতাবাসের উদ্দেশ্যে তৈরি দু'টি পার্সেল বোমাও উদ্ধার করেছে পুলিশ৷ তবে পুলিশ জানিয়েছে, সার্কোজির কাছে এই পার্সেল বোমা পৌঁছার তেমন কোন সুযোগই ছিলনা৷ এই বিষয়ে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট দপ্তর থেকেও কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি৷

দায় স্বীকার করেনি কোন গোষ্ঠী

পুলিশের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, আটকদের একজন চরম বামপন্থী গোষ্ঠী ‘কন্সপারেন্সি অব ফায়ার নুকলি' এর সঙ্গে যুক্ত বলে আগেই অভিযোগ রয়েছে৷ গ্রিসভিত্তিক এই নৈরাজ্যবাদী গোষ্ঠী ২০০৮ সালে সিরিজ হামলা চালিয়ে আলোচনায় আসে৷ এছাড়া ২০১০ সালে এই গোষ্ঠী একাধিক বোমা হামলা চালিয়েছে৷ কিন্তু তাতে ক্ষয়ক্ষতি তেমন হয়নি৷ অবশ্য সোমবারের এই পার্সেল বোমার দায় কেউ এখনো স্বীকার করেনি৷

বলাবাহুল্য, এথেন্সের পার্সেল বোমার সঙ্গে সম্প্রতি লন্ডন বা দুবাইয়ে আটক পার্সেল বোমার কোন যোগসূত্র খুঁজে পাওয়া যায়নি৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন