1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

পানির মিটার বসিয়ে পানি সাশ্রয়

পানির অপচয়ের দৃষ্টান্তের অভাব নেই৷ ভারত-বাংলাদেশে এই সংকট এখনো মারাত্মক আকার ধারণ করেনি বটে, কিন্তু মধ্যপ্রাচ্যে পানি অপচয় গভীর সমস্যা আনতে পারে৷ এ সমস্যা মোকাবিলায় জার্মানির সহায়তায় লেবাননে শুরু হয়েছে একটি উদ্যোগ৷

ভিডিও দেখুন 04:40

মিটার যেভাবে কাজ করে...

হেলালিয়ে-তে যখন পানির মিটার থেকে রিডিং নেওয়া হয়, তখন তা নিয়ে শিগগীরই তর্কাতর্কি শুরু হয়ে যায়৷ লেবাননের সিডন শহরের এই এলাকাটিতে একটি পাইলট প্রকল্প চলেছে৷ সাধারণত লেবাননে পরিবার পিছু পানির খরচ ধরা হয় মোট হিসেবে: বছরে ১০০ ইউরো৷

জলের মিটার ও রিডিং চালু হওয়া যাবৎ কিছু কিছু মানুষের বিল বেড়েছে বৈকি৷ যে বেশি পানি খরচ করে,তাকে দামও বেশি দিতে হয়৷ বাগানের মালিক সাঈদ ইসা যেমন বলেন, ‘‘খরচ তো বাড়ছেই৷ পানির দাম আরো বাড়লে, স্নান বা ধোয়া-মোছার খরচ৷ অথবা আমি যখন বাগানে কোনো সব্জি লাগিয়েছি যাতে পানি দেওয়া প্রয়োজন৷ কিন্তু আমি সেটা মেনে নিতে পারি৷''

১৫ বছরে ৮০ কোটি ডলার সাশ্রয়

সিডন শহরের বাসিন্দা দেড় লাখের বেশি৷ সেখানে জার্মানির সাহায্যে সারা শহরে ঘরে ঘরে জলের মিটার বসানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে৷ এছাড়া জল সাশ্রয়েরও প্রেরণা দেওয়া হচ্ছে৷ এই প্রথম সঠিক পরিসংখ্যান পাওয়া যাচ্ছে: সিডনের প্রতিটি বাসিন্দা দিনে গড়ে ১৩৫ লিটার পানি ব্যবহার করেন – অর্থাৎ জার্মানির থেকে কিছু বেশি৷ এবং সেই পানিরও বিশ শতাংশ বাঁচানো যেতে পারে৷

জার্মানির সরকারি উন্নয়ন সহযোগিতা সংস্থা জিআইজেড-এর মানফ্রেড শয় বলেন, ‘‘যখন দেখা যায় যে, আগামী ১৫ বছরে শুধু পানি সরবরাহের ক্ষেত্রেই মোট ৪০০ কোটি ডলার বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়বে – তার ২০ শতাংশ বাঁচানো, মানে প্রায় ৮০ কোটি ডলার অবান্তর বিনিয়োগের সাশ্রয়৷''

ভাঙাচোরা পাইপ, নয়তো চুরি

সাশ্রয়কৃত অর্থের অন্য প্রয়োজন আছে: সিডনের পানির ট্যাংকের আধুনিকীকরণের জন্য, সারা দেশে পানির পাইপ বসানো ও মেরামতির জন্য৷ লেবাননের বহু এলাকায় দিনে মাত্র কয়েক ঘণ্টা ধরে কলে জল আসে যেখানে কলের পানি আছে, সেখানেও তার একটা বড় অংশ ভাঙাচোরা পাইপ থেকে চুঁইয়ে মরুভূমির বালিতে হারিয়ে যায়৷ নয়তো সিডনের পানির ট্যাংকে দিনে ৪০ হাজার ঘনমিটার পানি তৈরি হয়৷

জিআইজেড-এর ইউনেস হাসিব বলেন, ‘‘এই পরিমাণ পানির মাত্র অর্ধেক বাস্তবিক গ্রাহকদের কাজে লাগে৷ পানির একটা বড় অংশ জলের পাইপ খারাপ হওয়ায় অপচয় হয়, এছাড়া বেশ কিছু পানি বেআইনিভাবে পাইপ থেকে চুরি করা হয় বলে ধরে নেওয়া যেতে পারে৷''

পাইপে জলের চাপ কমিয়ে অপচয় কমানো

নতুন পাইপ বসানো যেমন ব্যয়বহুল তেমনই সময়সাপেক্ষ৷ কাজেই সিডনের মতো শহরগুলির জন্য জার্মান বিশেষজ্ঞদের একটি সহজ ও কার্যকরি পরিকল্পনা আছে৷ সেটি হলো এমন একটি যন্ত্র, যা প্রয়োজনে রাত্রে পাইপে জলের চাপ কমাতে পারে, যার ফলে পাইপের ফুটোফাটা দিয়ে আরো কম পানির অপচয় হয়৷ যন্ত্রটি বসানোর খরচ মাত্র ৩৫ হাজার ইউরো৷ হাসিবের ভাষ্যে: ‘‘এভাবে পানি বাঁচে দিনে প্রায় এক হাজার ঘনমিটার, যা কিনা প্রায় পাঁচ থেকে ছয় হাজার বাথটাব ভরার মতো পানি৷ অর্থাৎ কিনা অনেকটা পানি বাঁচানো সম্ভব হয়৷''

এর ফলে পানি সরবরাহের সামগ্রিক খরচা কমে, একক পরিবারগুলির পানির বিল কমে৷

এই নবনির্মিত গ্রাহককেন্দ্রে গ্রাহকরা এই প্রথম অভিযোগ কিংবা মেরামতির জন্য একটি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সঙ্গে কথাবার্তা বলার সুযোগ পাচ্ছেন৷ ‘দক্ষিণ লেবানন জল কর্তৃপক্ষ' অফিসের লক্ষ্য হলো: গ্রাহকদের মধ্যে পানির মূল্য সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করা৷

জল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আহমদ নিজাম বলেন, ‘‘বহু মানুষ মনে করেন যে, পানি সরবরাহ একটা সরকারি ব্যাপার৷ সে জন্য আমাকে পয়সা দিতে হয় কিনা, সেটা নগণ্য৷ আমরা ইচ্ছেমতো পানি নিই, দাম দিই না, চুরি করি৷ আমাদের দেখতে হবে যাতে এই মানুষরাও বোঝেন, পানীয় জল ঠিক কতটা গুরুত্বপূর্ণ ও মূল্যবান৷''

বাগানের মালিক সাঈদ ইসা এককালে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাসে জল দিতেন৷ আজকাল তিনি সাশ্রয়ী হয়ে গেছেন: সকালে আর বিকেলে ঘাসে পানি দেন৷ কেননা তাঁর পানির খরচ পানির মিটারেই দেখা যায়, আর সেই পানির বিল ইসা-কেই মেটাতে হয়৷

প্রথমে সিডন, পরে গোটা দেশ

জিআইজিড-এর মানফ্রেড শয় লক্ষ্য করেছেন: ‘‘লোকজন বেশ ভালোভাবেই এই পানির মিটারকে মেনে নিয়েছে, বিদ্রোহ করেনি৷ এবং সেটা সারা দেশের পক্ষে একটা পথনির্দেশ বলে আমার ধারণা৷ আমরা অন্যান্য এলাকাতেও এটা করার চেষ্টা করবো – ধীরে ধীরে গোটা দেশটাতেই পানির মিটার বসাব৷''

চূড়ান্ত লক্ষ্য হলো, সমগ্র লেবাননের জন্য একটি আধুনিক পানি সরবরাহ ব্যবস্থা, দিনে ২৪ ঘণ্টা পানি৷ সেই লক্ষ্যে পৌঁছতে আর হয়ত বছর দশেক সময় লাগবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও