1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

পানির ভয় দূর করতে সাঁতার প্রশিক্ষণ

গরমে শীতল জলের ছোঁয়া কে না চায়! কিন্তু বাঁশের পুলে সাঁতারের এ আয়োজন শুধু গ্রীষ্মকে বোকা বানাতে নয়৷ বাংলাদেশে অসংখ্য খাল-বিল, নদী-নালার পানিতে ডুবে প্রতিদিন গড়ে ৫০ জন শিশুর মৃত্যু হয়৷ ভবিষ্যতে এমনটা রোধ করতেই এই আয়োজন৷

১১ বছরের এই মেয়ে একসময় পানি দেখলেই ভয় পেত৷ এখন সে বাঁশ দিয়ে তৈরি অস্থায়ী এক সুইমিং পুলে সাঁতার শিখছে৷ সে যখন এক পাশ থেকে সাঁতরে পুলের অন্যপাশে যেতে পারলো, বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা অন্য শিশুদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ে সে উচ্ছ্বাস৷

বাংলাদেশে পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যুর হার অনেক বেশি৷ ২০০১ সালের এক সরকারি প্রতিবেদন বলছে, প্রতি বছর পানিতে ডুবে ১৮ হাজার শিশু মারা যায়৷ এদের সবাই ১৮ বছরের কম বয়সি এবং এর মধ্যে ৪৩ শতাংশের বয়সই পাঁচ বছরের কম৷

রাজধানী ঢাকার অদূরে গাজীপুরের শ্রীপুর৷ গৃহবধূ সামেলা বেগম নিজের দুই ছেলে এবং ভাতিজাকে হারিয়েছেন নদীতে৷ তারা কেউই সাঁতার জানতো না৷ সামেলা কাঁদতে কাঁদতে বলছিলেন, ‘‘সব মা-বোনদের আমি বলবো, সাবধান হন৷ দয়া করে আপনাদের সন্তানকে সাঁতার শেখান৷ আপনাদের যেন আমার মতো কোল খালি না হয়৷’’

সামেলার মতো যাতে আর কোনো মাকে এমন অসহায় হতে না হয়, সেজন্য বাংলাদেশের এক গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে মিলে সাঁতার শেখানোর কর্মসূচি হাতে নিয়েছে এক ব্রিটিশ দাতব্য সংস্থা৷ শ্রীপুর গ্রামের শিশুদের মন থেকে দূর করা হচ্ছে জলভীতি৷

‘‘আমরা মনে করি শিশুমৃত্যুর হার কমাতে সাঁতার একটা ওষুধের মতো কাজ করতে পারে’’, বলছিলেন ঢাকা-ভিত্তিক সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চের প্রধান গবেষক আমিনুর রহমান৷ এই সংস্থা শ্রীপুর ছাড়াও দেশের অন্যান্য গ্রাম এমনকি ঢাকাতেও সাঁতার প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে৷

শ্রীপুর গ্রামের নামেই ব্রিটেনের কেন্টের এই দাতব্য সংস্থার নাম দ্য শ্রীপুর ভিলেজ৷ ১৪২ জন মা এবং তাদের ২৮০ শিশুকে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে নির্বাচন করা হয়েছে৷ মায়েদের ব্যবসা-বাণিজ্যের নানা বিষয়ে দক্ষ করে তোলার পাশাপাশি নানা বিষয়ে তাদের সন্তানদের দেয়া হচ্ছে সাঁতার প্রশিক্ষণও৷ এরা নিজেদের এলাকায় ফিরে গিয়ে অন্য মা ও শিশুদের নিজেরাই প্রশিক্ষণ দেবেন, এটাই এই উদ্যোগের লক্ষ্য৷

মায়েরা শ্রীপুর গ্রামে থাকেন প্রায় তিন বছর৷ এক ব্রিটিশ দাতব্য কর্মী ১৯৮০ সালে এই গ্রাম প্রতিষ্ঠা করেন৷ লক্ষ্য ছিল, দরিদ্র নারীদের সহায়তা করা৷ এই গ্রামে কংক্রিটের বাড়ি, খেলার জায়গা, ক্লিনিক এবং ১৮ একর (৮ হেক্টর) কৃষি জমি আছে৷

লন্ডন থেকে কাজ করতে আসা শিশু উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ ম্যাথিউ সিলভেস্টার বলছেন, ‘‘এই শিশুদের আমরা পেশাদার সাঁতারু বানানোর চেষ্টা করছি না৷ শিশুরা যাতে নিজেদের রক্ষা করতে পারে সেজন্য তাদের যতটুকু দক্ষতা দরকার, আমরা তাই দিচ্ছি৷’’

শুরুতে ছোট বাচ্চাদের তিন ফুট গভীর এই সুইমিং পুলে আধা ঘণ্টা হাত-পা ছোঁড়াছুড়ি করতে দেয়া হয়৷ পাশেই একটি পুকুরে তুলনামূলক বড় বাচ্চাদের ভেসে থাকা এবং পানিতে এগিয়ে যাওয়ার কৌশল শেখান আরেক প্রশিক্ষক৷

প্রশিক্ষক মুক্তা তরফদার বলছেন, ‘‘পুরোটাই আত্মবিশ্বাসের ব্যাপার৷ একসময় যারা জলে ভীষণ ভয় পেত, এখন তারা একেবারেই স্বাভাবিক৷’’

এডিকে­/ডিজি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়