1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পাক-মার্কিন ‘কৌশলগত সংলাপ’-এ ‘নতুন দিনের’ সূচনা

পাকিস্তান-যুক্তরাষ্ট্র দুইদিনের ‘কৌশলগত সংলাপ’ এর প্রথম দিনে বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন বলেছেন, পাকিস্তানের সঙ্গে ‘নতুন দিনের’ সূচনা হল এই সংলাপ শুরুর মধ্য দিয়ে৷

default

ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন এবং পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি

অন্যদিকে, পাকিস্তানি পররাষ্ট্র মন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি জ্বালানি সহায়তা চেয়েছেন এবং কাশ্মীর ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রকে অগ্রগণ্য ভূমিকা গ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছেন৷

সাম্প্রতিক সময়ে দুই দেশের মধ্যে এমন ‘কৌশলগত সংলাপ' এটাই প্রথম৷ বুধবার রাজধানী ওয়াশিংটনে দুই দিনের এই সংলাপের শুরুতেই যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তান একে অন্যের কাছ থেকে প্রত্যাশার বিষয়টি মোটামুটিভাবে স্পষ্ট করে দিয়েছে৷ যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি একে ‘নতুন দিনের' শুরু বললেও এটাও স্পষ্ট করেছেন যে, রাতারাতি কোনো যাদুর কাঠি নাড়াতে পারবেন না তিনি৷ আর পাকিস্তানও স্পষ্ট ভাষাতেই নিজের দাবি দাওয়া আদায়ের বিষয়ে সোচ্চার হয়েছে৷

যুক্তরাষ্ট্রের দিক থেকে এই সংলাপের অন্যতম লক্ষ্য বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়ে পাকিস্তানি জনগণের মধ্যে থাকা ব্যাপক ‘অ্যামেরিকা-বিরোধী' মনোভাব দূর করার চেষ্টা করা৷ পাকিস্তানিদের এটা বোঝানো যে, উগ্র-ইসলামপন্থীদের সঙ্গে স্বল্পমেয়াদী লড়াইয়ের এর বাইরেও দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্ব এবং সহযোগিতার একটি অন্য দিগন্তও আছে৷ অন্যদিকে, পাকিস্তান চায় সন্ত্রাসবিরোধী লড়াইয়ে নিজের ভূমিকার যথাযথ স্বীকৃতি আদায় করতে৷ চায় টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার সুনির্দিষ্ট প্রতিশ্রুতি৷ আর অবশ্যই আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতিতে ভারতের সঙ্গে সমমর্যাদার আসন৷

Pakistan Autobombe in Karachi vor US Konsulat

পাকিস্তানে আজকাল এমন তালেবানি সহিংসতা নিত্যদিনের ঘটনায় পরিণত হয়েছে

পাকিস্তানের গণমাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচারের লক্ষ্যে সাত-সকালের এক অনুষ্ঠানে সংলাপ শুরু করে হিলারি বলেছেন, তিনি শুধু পাকিস্তানের সরকার নয় বরং জনগণের সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে চান৷ হিলারি বলেন, ‘‘অতীতে আমাদের মধ্যে অনেক ভুল বোঝাবুঝি এবং মতানৈক্য ছিল৷ আর ভবিষ্যতেও অবশ্যই তা থাকবে৷ যেমনটা বন্ধুদের মধ্যে থাকে, সত্যি বলতে কি যে কোনো পরিবারের সদস্যদের মধ্যেও যেমন থেকে থাকে৷''

তিনি বলেন, ‘‘কিন্তু, এটা একটা নতুন দিন৷ গত এক বছর ধরে ওবামা প্রশাসন কথায় এবং কাজে পাকিস্তানের প্রতি একটা ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করেছে এবং অবস্থান নিয়েছে৷''

অন্যদিকে, পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী কুরেশি বলেছেন, ‘‘পাকিস্তান আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা আনায় বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রচেষ্টায় নিজের দায়দায়িত্ব পালনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ৷'' একইসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘কিন্তু আমরা আশা করি যে, বিশ্ব সম্প্রদায়ও আমাদের ন্যায়সঙ্গত বিষয়াবলীর বিষয়ে সমান দায়িত্ববান হবে এবং সাধারণ স্বার্থকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করবে৷''

স্পষ্টতই ভারত-মার্কিন অসামরিক পরমাণু সহায়তা চুক্তির প্রতি ইঙ্গিত করে কুরেশি বলেন, ‘‘আমরা আশা করি গুরুত্বপূর্ণ জ্বালানি খাতে আমাদের জন্যও অ-বৈষম্যমূলক প্রবেশাধিকার নিশ্চিত হবে৷ যাতে করে আমরা আমাদের অর্থনৈতিক এবং শিল্পায়নের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারি৷''

পাশাপাশি কাশ্মীর ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রকে জোরালো ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান কুরেশি৷ তিনি বলেন, ‘‘কাশ্মীর সহ দক্ষিণ এশিয়ার সব বিরোধপূর্ণ ইস্যুর শান্তিপূর্ণ সমাধান চাওয়া অব্যাহত রাখবে পাকিস্তান৷ আমরা আশা করি যুক্তরাষ্ট্র তার গঠনমূলক ভূমিকা রেখে এই প্রক্রিয়াকে উৎসাহিত করবে৷''

প্রতিবেদন : মুনীর উদ্দিন আহমেদ

সম্পাদনা : আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়